রবিবার, সেপ্টেম্বর ২২

#Breaking: সেই রবি শাস্ত্রীকেই বিরাটদের কোচ হিসেবে বেছে নিলেন কপিল দেবের কমিটি

দ্য ওয়াল ব্যুরো: জল্পনার অবসান। গত কয়েক মাসের নাটকের শেষে সেই রবি শাস্ত্রীকেই কোচ হিসেবে বেছে নিলেন কপিল দেবের নেতৃত্বাধীন উপদেষ্টা কমিটি। ২০২১ সালের টি ২০ বিশ্বকাপ অবধি শাস্ত্রীর সঙ্গে চুক্তি করল বোর্ড।

শুক্রবার ভারতীয় দলের কোচ বাছাইয়ের প্রক্রিয়া শুরু করেন কপিল দেব, শান্তা রঙ্গস্বামী ও অংশুমান গায়কোয়াড়ের তিন সদস্যের উপদেষ্টা কমিটি। তার আগেই অবশ্য নিজের নাম প্রত্যাহার করে নেন ফিল সিমন্স। ফলে প্রতিযোগিতায় ছিলেন পাঁচ জন। রবি শাস্ত্রী, রবিন সিং, লালচাঁদ রাজপুত, মাইক হেসন ও টম মুডি।

এই পাঁচ জনের মধ্যে অভিজ্ঞতার বিচারে লড়াই ছিল মূলত শাস্ত্রী ও মুডি ও মাইক হেসনের মধ্যে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত দেশীয় কোচের উপরেই আস্থা রাখলেন নির্বাচকরা। অর্থাৎ, ফের একবার ভারতীয় দলের কোচ হওয়ার স্বপ্ন অধরা থেকে গেল অস্ট্রেলীয় মুডির। মাইক হেসনও দ্বিতীয় স্থানেই শেষ করলেন।

কোচ নির্বাচিত হওয়ার পর সাংবাদিক সম্মেলনে উপদেষ্টা কমিটির প্রধান কপিল দেব জানান, তিনি সদস্যের মিলিত সম্মতিতেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। ভারতের প্রথম বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক বলেন, “আমরা ইন্টারভিউর উপর নির্ভর করে ১০০-র মধ্যে নম্বর দিচ্ছিলাম। তাতে খুব কম ব্যবধানে মাইক হেসন ও টম মুডিকে হারিয়ে এক নম্বরে উঠে আসেন রবি শাস্ত্রী।”

 

কমিটির আরেক সদস্য অংশুমান গায়কোয়াড় বলেন, “শাস্ত্রী এই সিস্টেমের সঙ্গে পরিচিত। উনি দলের ছেলেদেরও খুব ভালোভাবে চেনেন। দলের সবার সঙ্গে রবির ভালো সম্পর্ক রয়েছে। তাই আলাদা করে কোনও আন্ডারস্ট্যান্ডিং-এর দরকার নেই। তাই আমাদের মনে হয়েছে শাস্ত্রীই কোচের যোগ্য দাবিদার।”

বোর্ড সূত্রে জানানো হয়েছে, দ্বিতীয় টার্মে ২০১৯ সালের সেপ্টেম্বর থেকে ২০২১ সালে টি ২০ বিশ্বকাপ অবধি চুক্তি থাকবে শাস্ত্রীর সঙ্গে। অর্থাৎ, টি ২০ বিশ্বকাপের পারফরম্যান্সের উপর নির্ভর করবে তাঁর ভবিষ্যৎ।

বিশ্বকাপে ভারতের খারাপ ফলের উপর আঙুল উঠেছিল রবি শাস্ত্রীর দিকেও। কিন্তু উপদেষ্টা কমিটি বারবার বলে এসেছে, রবিকে কোচের পদ থেকে সরিয়ে দেওয়ার কোনও যৌক্তিকতা নেই। তবে টিমের অন্য সাপোর্ট স্টাফে একাধিক বদলের ইঙ্গিত মিলেছে। সেই সব পদের ইন্টারভিউ এখনও নেওয়া হয়নি। তা পরে নেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।

Comments are closed.