বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১৪

মাঠে কীভাবে নিয়ন্ত্রণ করেন আবেগ, লড়েন হতাশার সঙ্গে, জবাব দিলেন ধোনি নিজেই

দ্য ওয়াল ব্যুরো : ক্যাপ্টেন কুল তিনি। মাঠের মধ্যে যত কঠিন পরিস্থিতিই হোক না কেন, তাঁর চোখমুখ দেখে বোঝা কঠিন ভিতরে কী চলছে। মহেন্দ্র সিং ধোনির এই ইউএসপিই তাঁকে বাকি অধিনায়কদের থেকে আলাদা করেছে। কিন্তু কীভাবে মাঠের মধ্যে নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করেন মাহি। তার উত্তর দিলেন ধোনি নিজেই।

বুধবার একটি সাক্ষাৎকারে সে কথা জানান ধোনি। তিনি বলেন, “আমি অন্য সবারই মতো। কিন্তু আমি আমার আবেগকে অন্যদের থেকে বেশি নিয়ন্ত্রণ করতে পারি।” তাহলে কি হতাশায় ভোগেন না ধোনি? ভোগেন। তিনি নিজেই জানিয়েছেন তা। কিন্তু তিনি জানেন এই নেতিবাচক মানসিকতা ধ্বংসাত্মক। তাই তিনি যতটা পারেন ইতিবাচক থাকার চেষ্টা করেন। ধোনি বলেন, “আমারও একই রকমের হতাশা হয়। আমিও অনেক সময় রেগে যাই, অসন্তুষ্ট হই। কিন্তু এই আবেগগুলো মোটেই ইতিবাচক নয়।”

তাহলে কীভাবে বেরিয়ে আসেন এই চাপের মধ্যে থেকে? মাহির জবাব, তিনি উত্তর খোঁজার চেষ্টা করেন। কীভাবে সমস্যা সমাধান হবে সেই উত্তর। ধোনি বলেন, “এই সব আবেগের থেকে বের হওয়ার জন্য কী করা দরকার সেটা ভাবা বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আমি ভাবতে থাকি কী পরিকল্পনা করতে পারি? কাকে আমি ব্যবহার করতে পারি? একবার এর ভিতরে ঢুকে পড়লে আমি অনেক ভাল ভাবে আমার আবেগকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারি।”

ভারতের অধিনায়কত্ব নেওয়ার পর দুটি বিশ্বকাপ, একটি চ্যাম্পিয়নস ট্রফি তিনি দেশকে দিয়েছেন। সেইসঙ্গে ভারতীয় ক্রিকেটে এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা করেছেন। যদিও গত কয়েক বছর ধরে ধোনির ব্যাটিং গ্রাফ নীচের দিকে। তার খেসারত দিতে হয়েছে তাঁকে। বারবার সমালোচনা হয়েছে। কিন্তু মুখ ফুটে জবাব দেননি। বিশ্বকাপের পর থেকে ভারতীয় জার্সিতে দেখা যায়নি তাঁকে। কবে দেখা যাবে কেউ জানে না। এত প্রশ্নের মাঝেও সমান নির্লিপ্ত ধোনি। সত্যি তিনিই পারেন। কারণ আবেগ কীভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে হয় তাঁর থেকে তো ভালো কেউ জানেন না।

পড়ুন, দ্য ওয়ালের পুজোসংখ্যার বিশেষ লেখা…

 

Comments are closed.