শুক্রবার, নভেম্বর ১৫

লিটন-নঈমের পার্টনারশিপে রাজকোটে রাজকীয় শুরু বাংলাদেশের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: দিল্লিতে প্রথম টি২০ জেতার পর যেন অন্য ফর্মে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। দ্বিতীয় ম্যাচে রাজকোটে সৌরাষ্ট্র ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের মাঠেও দুরন্ত শুরু করল তারা। লিটন দাস ও মহম্মদ নঈমের ওপেনিং জুটিতে প্রথম কোনও উইকেট না হারিয়ে ৬ ওভারেই তুলে নিয়েছে ৫৪ রান। এদিন টসে জিতে প্রথমে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেন ভারতীয় টি২০ দলের অধিনায়ক রোহিত শর্মা।

এদিন আবহাওয়া নিয়ে চিন্তায় ছিল ভারতীয় শিবির। গত দু’দিন ধরেই হাওয়া অফিস জানাচ্ছিল শক্তি সঞ্চয় করছে পূর্ব-মধ্য আরব সাগরে সৃষ্টি হওয়া ঘূর্ণিঝড় ‘মহা’। বুধবার গভীর রাতে বা বৃহস্পতিবার ভোরের দিকে তা আছড়ে পড়তে পারে গুজরাত উপকূলে। ঝড়ের গতি হতে পারে ৯০ কিলোমিটার প্রতি ঘণ্টা। এর প্রভাবে ভারী বৃষ্টি হতে পারে গুজরাতের জুনাগড়, গীর, সোমনাথ, আমরেলি, সুরাট, ভারুচ, আনন্দ, রাজকোট, আহমেদাবাদ-সহ রাজ্যের একটি বড় অংশে। সকালের দিকে মেঘ থাকলেও সময়ের সঙ্গে সঙ্গে তা কাটতে শুরু করে দুপুরের পর থেকেই। শুরু হয় খেলা।

তিনটি টি২০ ম্যাচের সিরিজে প্রথম ম্যাচেই হেরে বসে আছে ভারত। দিল্লির অরুণ জেটলি স্টেডিয়ামে মুসফিকুরের ব্যাটিং আর ধোঁয়াশাকে মোকাবিলা করতে পারেনি টিম ইন্ডিয়া। টসে জিতে প্রথমে বল করার সিদ্ধান্ত নেন বাংলাদেশের অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। প্রথম ওভারেই অধিনায়ক রোহিত শর্মার উইকেট হারায় ভারত। অন্যদিকে শিখর ধাওয়ান ভাল খেললেও নিয়মিত ব্যবধানে উইকেট পড়ছিল। বাংলাদেশের বোলারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে রানের গতিও ছিল কম। ধাওয়ান ৪১ করে রানআউট হন। শেষ দিকে ক্রুনাল ও ওয়াশিংটন সুন্দরের ব্যাটে ১৪৮ তোলে ভারত।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুতে লিটন দাস আউট হলেও পার্টনারশিপ গড়েন সৌম্য সরকার ও নঈম। চাহালের বলে নঈম আউট হলে ব্যাট করতে নামেন মুশফিকুর রহিম। প্রথমে সৌম্য ও পরে মাহমুদুল্লাহর সঙ্গে পার্টনারশিপ গড়েন তিনি। শেষ ১২ বলে জিততে দরকার ছিল ২২ রান। খলিল আহমেদের এক ওভারে ১৮ রান তুলে নেন মুশফিকুর। নিজের হাফ সেঞ্চুরি পূর্ণ করলেন তিনি।

ফলে এদিনের ম্যাচ টিম ইন্ডিয়ার কাছে মরণ-বাঁচন ম্যাচ। জিতলে তবেই সিরিজে সমতা ফেরাবে রোহিত বাহিনী।

Comments are closed.