বুধবার, মার্চ ২০

কুলদীপ-শামির দুরন্ত বোলিং, ব্যাটে ধাওয়ানের কামব্যাক, নিউজিল্যান্ডে সহজ জয় ভারতের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বহুদিন পর নিউজিল্যান্ড সফরে গিয়ে শুরুতেই ভারতীয় দল বুঝিয়ে দিলেন, ঘরের মাঠেও সিরিজ সহজ হবে না কিউয়িদের। বরং প্রথম ম্যাচে দেখে মনে হলো, নিউজিল্যান্ডই ভারতের মাটিতে খেলছে। শামি শুরু করেছিলেন, শেষ করলেন দুই রিস্ট স্পিনার। ব্যাটেও ফর্মে ফিরলেন শিখর ধাওয়ান। যোগ্য সঙ্গ দিলেন কোহলি। ব্যাটিং-বোলিং সবক্ষেত্রে প্রাধান্য নিয়ে প্রথম ম্যাচ জিতলেন বিরাট অ্যান্ড কোং।

আরও পড়ুন ব্যাড লাইট নয়, কড়া রোদেই বন্ধ ওয়ান ডে

নেপিয়ারের ব্যাটিং সহায়ক পিচে এ দিন টস ভাগ্য সঙ্গ দেয়নি বিরাটকে। তবে বোলিং পেলেও দ্বিতীয় ওভার থেকেই নিজেদের উপস্থিতি জানান দিতে থাকেন মহম্মদ শামিরা। নিউজিল্যান্ড ইনিংসের দ্বিতীয় তথা নিজের প্রথম ওভারেই মার্টিন গাপটিলকে প্যাভিলিয়নে ফেরান মহম্মদ শামি। শামির ইনসুইংগারে বোল্ড হয়ে ফেরেন দুরন্ত ফর্মে থাকা কিউয়ি ওপেনার। নিজের দ্বিতীয় ওভারে ফের নিউজিল্যান্ড ইনিংসে আঘাত হানেন শামি। এ বার তাঁর শিকার অন্য ওপেনার কলিন মুনরো। এই ম্যাচে দ্রুততম ভারতীয় বোলার হিসেবে ( ৫৫ ইনিংসে ) ১০০ উইকেটে পৌঁছলেন শামি।

এরপর অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনের সঙ্গে জুটি বাঁধেন বিশ্বের তিন নম্বর ব্যাটসম্যান রস টেলর। ক্রিজে খানিক থিতু হতেই ব্যক্তিগত ২৪ রানে চাহালের শিকার হন টেলর। অধিনায়ক ছাড়া ভারতীয় বোলারদের সামনে ক্রিজে বেশিক্ষণ সময় কাটাতে পারেননি নিউজিল্যান্ডের কোনও ব্যাটসম্যানই। মাঝের সময়ে ভারতের স্পিন জুটির দাপট। একদিকে যখন ক্রিজ আঁকড়ে পড়ে থেকে অর্ধশতরানের দিকে এগোচ্ছেন উলিয়ামসন, অন্যদিকে তখন আয়ারাম-গয়ারাম বাকি নিউজিল্যান্ড ব্যাটসম্যানরা। ম্যাকলিন পার্কের ব্যাটিং সহায়ক উইকেটে নিউজিল্যান্ডের কোনও পার্টনারশিপই লম্বা হতে দিলেন না ভারতীয় বোলাররা।

ব্যক্তিগত ৬৪ রান করে উইলিয়ামসন কুলদীপের বলে আউট হয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরতেই তাড়াতাড়ি গুটিয়ে যায় ব্ল্যাক ক্যাপসদের ইনিংস। কুলদীপের রং ওয়ান বুঝতে না পেরে বিজয় শংকরের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন অধিনায়ক। ১১ রানের মধ্যে বাকি তিন উইকেটও পড়ে যায়। মাত্র ৩৮ ওভারে ১৫৭ রানে অলআউট হয়ে যান উইলিয়ামসনরা।

ভারতের হয়ে সর্বোচ্চ চারটি উইকেট নেন চায়নাম্যান কুলদীপ যাদব, শামির ঝুলিতে আসে তিনটি উইকেট। চাহাল দু’টি এবং কেদার যাদব একটি উইকেট নিয়েছেন।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালোই করেন ভারতের দুই ওপেনার শিখর ধাওয়ান ও রোহিত শর্মা। রোহিতের একটু সমস্যা হলেও সাবলীল ব্যাটিং করছিলান ধাওয়ান। দ্রুত রান উঠছিল। মাঝে ডিনার ব্রেকের পরে এসেই ব্রেসওয়েলের বলে খোঁচা মেরে আউট হন রোহিত। তারপর কড়া রোদের কারণে বন্ধ থাকে খেলা।

৩০ মিনিট পরে খেলা শুরু হলে ধাওয়ান ও কোহলি পার্টনারশিপ করেন। দুই ব্যাটসম্যানের কোনও অসুবিধা হচ্ছিল না। মাঝেমধ্যে বাজে বলে চার আসছিল। ৪৫ রানের মাথায় লকি ফারগুসনের বলে লেগ সাইডে কিপারের দস্তানায় ক্যাচ দিয়ে আউট হয়ে ফিরে যান অধিনায়ক বিরাট কোহলি।

কোহলি আউট হতে নামেন রায়ুডু। অন্যদিকে ন’ম্যাচ পরে নিজের হাফসেঞ্চুরি পূর্ণ করেন ধাওয়ান। সফরের শুরুটা দুরন্ত করলেন গব্বর। শেষ পর্যন্ত ৩৪.৫ ওভারে জয়ের জন্য দরকারি রান তুলে নেয় ভারত। ধাওয়ান ৭৫ ও রায়ুডু ১৩ করে অপরাজিত থাকেন। ৮ উইকেটে ম্যাচ জিতে যায় ভারত।

এই জয়ের ফলে সিরিজের শুরুটা দুরন্ত হলো ভারতের। ব্যাটিং সহায়ক উইকেটেও যেভাবে ভারতীয় বোলাররা বল করলেন, তা অবশ্যই আশা জোগাবে বিরাটকে। অস্ট্রেলিয়ার পর এ বার নিউজিল্যান্ডেও সিরিজ জয়ের স্বপ্ন দেখছেন ভারতীয় সমর্থকরা। সম্ভাবনা রয়েছে হোয়াইটওয়াশেরও।

The Wall-এর ফেসবুক পেজ লাইক করতে ক্লিক করুন

Shares

Comments are closed.