সোমবার, অক্টোবর ২১

রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে বাংলাদেশকে হারিয়ে অনুর্ধ্ব ১৮ সাফ চ্যাম্পিয়ন ভারত

দ্য ওয়াল ব্যুরো : ফাইনাল হয়তো একেই বলে। তিন-তিনটে গোল। তিনটে লাল কার্ড। রুধশ্বাস ৯০ মিনিটের খেলা। শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশকে হারিয়ে প্রথমবারের জন্য অনুর্ধ্ব ১৮ সাফ চ্যাম্পিয়ন হল ভারত। নেপালের কাঠমান্ডুতে উড়ল ভারতের জাতীয় পতাকা।
মলদ্বীপের বিরুদ্ধে সেমিফাইনালে যে দল ৪-০ গোলে জিতেছিল, তার থেকে এ দিন কিছু বদল করেছিলেন ভারতের কোচ ফ্লয়েড পিন্টো। অমন ছেত্রী ও গিবসন সিং-এর জায়গায় বিক্রম প্রতাপ সিং ও রিকি সাবংকে এ দিন প্রথম এগারোতে খেলান তিনি। তাঁর সিদ্ধান্ত যে কতটা সঠিক, তা প্রমাণিত হয় ম্যাচের ২ মিনিটের মধ্যেই।
ম্যাচ শুরুর দু’মিনিটে থইবা সিং-এর ক্রসে মাথা ছোঁয়ান গুরকীরত সিং। সেই বল এসে পড়ে বিক্রম প্রতাপ সিং-এর পায়ে। ডান পায়ের জোরালো শটে গোল করে ভারতকে এগিয়ে দেন বিক্রম। তারপরেই ২৩ মিনিটের মাথায় ছন্দপতন। মাথা গরম করে লাল কার্ড দেখেন ভারতের গুরকীরত ও বাংলাদেশের মহম্মদ ফাহিম। দু’দলই ১০ জনে হয়ে যায়।
প্রথমার্ধেই অবশ্য ম্যাচে ফেরে বাংলাদেশ। ৩৯ মিনিটের মাথায় গোল করে সমতা ফেরান বাংলাদেশের ইয়াসিন। কিন্তু গোল করে জার্সি খুলে সেলিব্রেট করতে গিয়ে বাংলাদেশকেই ধাক্কা দেন তিনি। ইয়াসিন আগেই হলুদ কার্ড খেয়েছিলেন। গোল করে জার্সি খোলায় দ্বিতীয় হলুদ কার্ড অর্থাৎ লাল কার্ড খেয়ে মাঠ ছাড়তে হয় তাঁকে। ৯ জনে হয়ে যায় বাংলাদেশ।
দ্বিতীয়ার্ধে একের পর এক সুযোগ তৈরি করে ভারত। কিন্তু গোল আসছিল না। সবাই ভাবছিলেন খেলা গড়াবে অতিরিক্ত সময়ে। কিন্তু ইনজুরি টাইম শুরু হওয়ার পরেই গিবসনের লম্বা থ্রো ধরে বল জালে জড়িয়ে ফেন রবি রাণা। আর ম্যাচে ফেরা সম্ভব হয়নি বাংলাদেশের। ২-১ গোলে ম্যাচ জিতে যায় ভারতের অনুর্ধ্ব ১৮ দল।
এই জয়ের ফলে প্রথমবার অনুর্ধ্ব ১৮ সাফ চ্যাম্পিয়ন হল ভারত। ২০১৫ সালেও ফাইনালে পৌঁছেছিল ভারত। কিন্তু সে বার রানার্স হয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়। এ বার অবশ্য ট্রফি নিয়েই ফিরছেন ভারতের ছোটরা।

 

Comments are closed.