বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ১৪

শামির চুক্তি এখনই বাতিল নয়, গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির পরেও পেস বোলারের পাশেই দাঁড়ালো বোর্ড

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সোমবার ভারতীয় দল যখন সিরিজ হোয়াইট ওয়াশের স্বপ্ন দেখছে, তখনই দুঃসংবাদটা আসে। ভারতীয় দলের পেস বোলার মহম্মদ শামির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছন আলিপুরের অতিরিক্ত মুখ্য দায়রা আদালত। কিন্তু তাতে শামির বোলিং-এর ধার একটুও কমেনি। বরং দ্বিতীয় ইনিংসে তিন উইকেট নিয়ে ভারতীয় বোলারদের মধ্যে অন্যতম সেরা হয়েছেন। আর তারপরেই একটা সুখবর পেলেন শামি। এই গ্রেফতারি পরোয়ানার পরেও শামির পাশে দাঁড়ালো বিসিসিআই। এই মুহূর্তে শামির চুক্তি বাতিল হচ্ছে না বলেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছে বোর্ডের তরফে।

মঙ্গলবার ছিল শামির জন্মদিন। বিসিসিআই-এর তরফে টুইট করে শুভেচ্ছাও জানানো হয় বিরাটের দলের ভন্যতম সেরা অস্ত্রকে। তারপরেই বোর্ডের এক কর্তা সংবাদমাধ্যমের সামনে জানিয়েছেন, “হ্যাঁ, আমরা জানি যে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়েছে মহম্মদ শামির বিরুদ্ধে। কিন্তু এই মুহূর্তে এর মধ্যে ঢোকার কোনও মানে নেই। চার্জশিট দেখার পর সিদ্ধান্ত নেব, কীভাবে এগোতে হবে না হবে। বিসিসিআইয়ের নিয়ম মেনেই পদক্ষেপ করা হবে। তবে এখনই এর ব্যাপারে কিছু বলা ঠিক হবে না। এখনই শামির চুক্তি বাতিল করা হচ্ছে না।”

তবে গত বছর স্ত্রী হাসিন জাহানের অভিযোগের পরেই শামির চুক্তি বাতিল করেছিল বোর্ড। সেই ব্যাপারে ওই কর্তা সাফ জানান, “তখন বিষয়টা অন্যরকম ছিল। তখন শুধু গার্হস্থ্য হিংসা নয়, শামির বিরুদ্ধে ম্যাচ গড়াপেটারও অভিযোগ উঠেছিল। তখন সিওএ যা ঠিক মনে করেছে, তাই করেছে। দুর্নীতি দমন শাখা প্রধান নীরজ কুমার বিষয়টি খতিয়ে দেখার পর ক্লিনচিট পান শামি। তারপরই তাঁর সঙ্গে চুক্তি হয়। এক্ষেত্রে শুধু গার্হস্থ্য হিংসার অভিযোগে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়েছে শামির বিরুদ্ধে। তাই এখনই ওর চুক্তি বাতিল করার মতো কিছু হয়নি। সব কিছু খতিয়ে দেখে তবেই কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।”

গত বছর দক্ষিণ আফ্রিকা সফর থেকে ফেরার পরেই মহম্মদ শামির বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ আনেন স্ত্রী হাসিন জাহান। বিবাহ-বহির্ভূত সম্পর্ক, মারধর, হেনস্থা-র মতো একাধিক অভিযোগ করেন তিনি। এ ছাড়াও শামি ম্যাচ গড়াপেটার সঙ্গে যুক্ত বলেও অভিযোগ করেন হাসিন। এমনকী শামির দাদার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগও এনেছিলেন তিনি।

অন্যদিকে শামি দাবি করেছেন, তিনি নির্দোষ, তাঁকে ফাঁসানো হয়েছে। কিন্তু বারবার শামির বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন হাসিন। গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির পরেও হাসিন বলেন, “শামি এমন কী বড় ক্রিকেটার। ওর থেকে অনেক বড় ক্রিকেটার আমি দেখেছি। ও যা খেলে তার থেকে অনেক বেশি দেখায়।”

হাসিনের করা অভিযোগের ভিত্তিতে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪৯৮এ ধারায় শামি ও তাঁর দাদার বিরুদ্ধে মামলা রুজু হয়৷ কিন্তু তারপর থেকে একবারও আলিপুরের অতিরিক্ত মুখ্য দায়রা আদালতে হাজিরা দেননি শামি৷ আর তারপরেই গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন বিচারক। অবশ্য তারপরেও বোর্ড পাশে দাঁড়ালো শামির। এখন দেখার দেশ থেকে ফেরার পর এই মামলা কোনদিকে যায়।

Comments are closed.