ইসরোর বড় সাফল্য! মাধ্যাকর্ষণের মায়া কাটিয়ে পৃথিবীর কক্ষে বসল জিস্যাট-৩০

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো: নতুন বছরের শুরুতেই মহাকাশযাত্রার শুভ সূচনা করে দিল ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইসরো। পৃথিবীর মায়া কাটিয়ে মহাকাশে পৌঁছে গেল ইসরোর ‘হাই পাওয়ার’ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট জিস্যাট-৩০। ফ্রেঞ্চ গিনি থেকে আরিয়ানা-৫ রকেটের পিঠে চেপে মধ্যরাতে হুশ করে উড়ে যাওয়ার পর থেকেই তার উপর সতর্ক নজর রেখেছিল ইসরোর গ্রাউন্ড স্টেশন। ভোররাতেই পৃথিবীর মাধ্যাকর্ষণের মায়া কাটিয়ে ফেলে জিস্যাট-৩০। আরিয়ানা-৫ (ভিএ-২৫১)  রকেটকে গুড বাই বলে ভারতের আধুনিক এই যোগাযোগ রক্ষাকারী উপগ্রহ এখন জমিয়ে বসেছে পৃথিবীর কক্ষপথে।

ভারতীয় সময় রাত আড়াইটে নাগাদ দক্ষিণ আমেরিকার উত্তর-পূর্ব উপকূলের ফ্রেঞ্চ গিনি উৎক্ষেপণ কেন্দ্র থেকে আরিয়ানা-৫ লঞ্চ ভেহিকলের পিঠে চেপে মহাকাশে পাঠানো হয় জিস্যাট সিরিজের এই অত্যাধুনিক উপগ্রহকে। এই ভারী কমিউনিকেশন স্যাটেলাইটের উৎক্ষেপণের জন্য ইউরোপিয়ান স্পেস এজেন্সির (ইএসএ) সঙ্গে হাত মিলিয়েছিল ইসরো। যৌথ প্রচেষ্টায় এই মিশন পুরোপুরি সফল হয়েছে বলে জানিয়েছেন ইসরোর চেয়ারম্যান কে শিবন।

ভারতীয় মহাকাশ-মিশনের এই সাফল্যে অভিনন্দন জানিয়ে টুইট করেছেন আরিয়ানাস্পেসের সিইও স্টিফেন ইজরায়েল। টুইট করে তিনি বলেছেন, ‘‘ইসরোর সঙ্গে যৌথ মিশনে ২৪টি স্পেসক্রাফ্ট পাক খাচ্ছে পৃথিবীকে ঘিরে। আগামী দিনে আরও বড় মিশনের জন্য ইসরোর সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধব আমরা।’’

ইসরো জানিয়েছে, ৩৩৫৭ কিলোগ্রাম ওজনের জিস্যাট-৩০ উপগ্রহকে নিরাপদে পৃথিবীর মাধ্যাকর্ষণ পার করিয়েছে আরিয়ানা-৫ রকেট। ৩৮ মিনিট ২৫ সেকেন্ডের মধ্যে রকেট থেকে আলাদা হয়েছে পে-লোড। জিস্যাটকে পৃথিবীর কক্ষে বসিয়ে দিয়েছে আরিয়ানা-৫।

২০০৬ সালে ভারী কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট ইনস্যাট-৪সির মিশন ব্যর্থ হওয়ার পরে ইনস্যাট-৪এ উপগ্রহ মহাকাশে পাঠায় ইসরো। তবে এর কার্যকারিতাও সীমিত গণ্ডির মধ্যে বাঁধা। ইসরো জানিয়েছে, দেশের বিভিন্ন অংশের মধ্যে তো বটেই, এশিয়ার বিভিন্ন দেশ, গালফ দেশগুলোর মধ্যে যোগাযোগ বজায় রাখবে এই জিস্যাট-৩০। এর কার্যক্ষমতা থাকবে ১৫ বছর।

স্বভাবতই প্রশ্ন উঠেছে ভারতের পিএসএলভি ও জিওসিনক্রোনাস স্যাটেলাইট লঞ্চ ভেহিকল (জিএসএলভি মার্ক-৩) থাকতে আরিয়ানা-৫ রকেটের প্রয়োজন হল কেন! জিএসএলভি ৪ টন অবধি ওজন বহনে সক্ষম, আর জিস্যাট-৩০ স্যাটেলাইটের ওজন তার চেয়ে কম। ইসরো জানিয়েছে, জিস্যাটের মতো ভারী কমিউনিকেশন স্যাটেলাইটকে পৃথিবীর মাধ্যাকর্ষণের বাইরে নিয়ে গিয়ে কক্ষপথে বসানোর কাজ সঠিক ভাবে করতে পারবে ইউরোপীয়ান স্পেস এজেন্সির (ইএসএ) আরিয়ানা-৫। তাই কোনওরকম ঝুঁকি না নিয়েই এই মিশনের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে ইএসএ-কে।

৩৩৫৭ কিলোগ্রাম ওজনের জিস্যাট-৩০ উপগ্রহ যোগাযোগ ব্যবস্থায় বিরাট পরিবর্তন আনতে চলেছে বলে জানিয়েছে ইসরো

জিস্যাট-৩০ উপগ্রহে রয়েছে ‘কমিউনিকেশন ট্র্যান্সপন্ডার’। কৃত্রিম এই উপগ্রহটি অনেক বছর কর্মক্ষম থাকবে। ইসরোর চেয়ারম্যান কে শিবন জানিয়েছেন, দেশের দুর্গম প্রান্তেও যোগাযোগ সক্ষম এই উপগ্রহ।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More