মঙ্গলবার, অক্টোবর ১৫

বেঁচে থাকতে কাছ ছাড়ত না, কেরলে ধসে চাপা পড়ে মৃত্যুর পরেও দু’বোনের জায়গা হলো এক কবরে

দ্য ওয়াল ব্যুরো : একজনের বয়স চার, অন্যজনের আট। তুতো বোন তারা। নাম আনাঘা ও আলিনা। তুতো বোন হলেও এক বিছানায় ঘুমোনো থেকে শুরু করে সবসময় একসঙ্গে তারা। আলাদা করতে পারত না কেউ। মৃত্যুর পরেও আলাদা হলো না তারা। কেরলের বিধ্বংসী বন্যায় ধসে বাড়ি চাপা পড়ে মৃত্যু হয়েছে দু’জনেরই। আর মৃত্যুর পর দু’বোনকে এক কবরেই সমাধি দিল পরিবার।

ঘটনাটি কেরলের মালাপ্পুরম জেলার কাবালিপাড়া গ্রামের। সেখানে মুথাপ্পানকুন্নু পাহাড়ের উপরে বাড়ি ছিল আনাঘা ও আলিনার। যৌথ পরিবার। হইহই করে দিন কাটত। কিন্তু বৃহস্পতিবার রাতে ধস নামে সেখানে। ৪০টি বাড়ি ভেঙে পড়ে ধসে। পাহাড়ের একদম উপরের দিকে বাড়ি ছিল আনাঘাদের।

তাড়াহুড়োর মধ্যে বাকিদের বের করে আনলেও বের করা যায়নি দু’বোনকে। নিজেদের ঘরে তখন এক বিছানায় তারা ঘুমোচ্ছিল। আলিনার বাবা ভিক্টর অনেক চেষ্টা করেও তাদের বাঁচাতে পারেননি। সে সময় আনাঘার বাবা থমাস বাইরে ছিলেন কাজের সূত্রে। খবর পেয়ে তিনিও চলে আসেন। শুক্রবার ধ্বংসস্তূপ থেকে উদ্ধার হয় চার বছরের আনাঘার দেহ। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলেও তাকে বাঁচানো যায়নি। অনেক খোঁজাখুজির পর শনিবার আলিনার দেহ পাওয়া যায়।

পরিবারের লোকেরা সিদ্ধান্ত নেন, দু’বোনকে একসঙ্গে কবর দেওয়া হবে। সেইমতো সোমবার বাড়ির পাশেই একই কবরে জায়গা হয় দুজনের। মৃত্যুর পরেই একসঙ্গেই থেকে গেল আনাঘা ও আলিনা।

আরও পড়ুন মায়ের হাতে শক্ত করে ধরা দেড় বছরের ছেলের হাত, দেহ উদ্ধারে গিয়ে চোখে জল উদ্ধারকারীদের

Comments are closed.