রবিবার, অক্টোবর ২০

৩৭০ ধারা বাতিল অসাংবিধানিক, অনৈতিক ও একতরফা: ওমর আবদুল্লা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: জম্মু ও কাশ্মীরের ‘স্পেশাল স্টেটাস’ তথা বিশেষ মর্যাদা বিলোপ করলে ফল ভাল হবে না আগেই বলেছিলেন। সোমবার কাশ্মীরে ৩৭০ ধারা তুলে দেওয়ার ঐতিহাসিক সিদ্ধান্তের পরে সরকারের উদ্দেশ্যে রাজ্যের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ন্যাশনাল কনফারেন্স নেতা ওমর আবদুল্লা বললেন, সরকারের এই সিদ্ধান্ত পুরোপুরি অসংবিধানিক। কোনও রকম আলোচনার রাস্তায় না গিয়ে একতরফা নেওয়া এই সিদ্ধান্ত অনৈতিক ছাড়া আর কিছুই নয়।

রবিবার সন্ধে থেকেই উত্তেজনার আবহ চলছিল কাশ্মীরে। নতুন কী সিন্ধান্ত নেওয়া হবে সেই নিয়ে টুঁ শব্দ না করলেও, কাশ্মীর নিয়ে যে বড়সড় পদক্ষেপের পথে হাঁটতে পারে মোদী সরকার এই ধারণা করেছিলেন অনেকেই। ওমর আবদুল্লা, ফারুক আবদুল্লা, মেহবুবা মুফতিরা এককাট্টা হয়ে হুঁশিয়ারিও দিয়েছিলেন কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা লোপের কোনও রকম চেষ্টা কেন্দ্র করলে সর্বশক্তি দিয়ে সেটা রোখার চেষ্টা হবে। এর পর থেকেই কার্যত গৃহবন্দি রাজ্যের প্রধান তিন নেতা ওমর আবদুল্লা, মেহবুবা মুফতি ও সাজ্জাদ লোন।

সোমবার সেই আশঙ্কাকেই সত্যি করে জম্মু ও কাশ্মীর থেকে সংবিধানের স্পেশাল স্টেটাস তুলে নিয়ে দুটি আলাদা কেন্দ্র শাসিত অঞ্চল ঘোষণা করে দিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। রাষ্ট্রপতির সিলমোহর দেওয়া ওই সিদ্ধান্ত এ দিন রাজ্যসভায় পড়ে শোনান অমিত শাহ। জানিয়ে দেন এ বার থেকে জম্মু-কাশ্মীর এবং লাদাখ দুটি আলাদা কেন্দ্র শাসিত অঞ্চল হবে। দুটি অঞ্চলে থাকবেন দু’জন লেফটেন্যান্ট গভর্নর।

এ দিনের সিদ্ধান্তের পরে ন্যাশনার কনফারেন্স নেতা ওমর আবদুল্লার মন্তব্য, স্বাধীনতার পর থেকে রাজ্যে এই ধারা চলে আসছে। কেন্দ্রের সিদ্ধান্ত রাজ্যবাসীর বিশ্বাস ভেঙেছে। আগামী দিনে এই সিদ্ধান্ত বড়সড় বিপর্যয়ের কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে।

প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী কথায়, ইচ্ছাকৃত ভাবে একটা আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি করে রাখা হয়েছিল গোট রাজ্যে। বিশেষত কাশ্মীরে সেনা পাঠিয়ে গণতন্ত্রের মুখ বন্ধ করে দেওয়ার চেষ্টা হয়েছিল। যে অন্ধকার দিকটা নিয়ে আমরা সকলেই ভয় পেয়েছিলাম, সেটাই সত্যি হলো। তাঁর কথায়, “৩৭০ ধারা বাতিল করে রাজ্যের অধিকারে অনৈতিক হস্তক্ষেপ করা হলো। এর বিরুদ্ধে লড়াই চলবে। বৃহত্তর আন্দোলনের পথে যেতে পারে ন্যাশনাল কনফারেন্স। আমরা সকলেই প্রস্তুত।”

আরও পড়ুন:

Breaking : কাশ্মীরের স্পেশ্যাল স্ট্যাটাস রদ, লাদাখ ও জম্মু-কাশ্মীর দু’টি পৃথক কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল

Comments are closed.