শুক্রবার, নভেম্বর ১৫

বেতন নিয়ে বিএসএনএল কর্মীদের সুখবর শোনাল কর্তৃপক্ষ, কবে মাইনে জানুন বিস্তারিত

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বিএসএনএল কর্মীদের মাইনে বন্ধ। উৎসবের এই মরসুমেও হাত ফাঁকা কেন্দ্রীয় সরকারি সংস্থার কর্মীদের। তবে কর্মীদের বেতন নিয়ে সুখবর শোনালেন বিএসএনএল-এর চেয়ারম্যান তথা ম্যানেজিং ডিরেক্টর পিকে পুরওয়ার। সংবাদ সংস্থা আইএএনএস জানাচ্ছে, পুরওয়ার বলেছেন, সারা দেশের এক লক্ষ ৭৬ হাজার বিএসএনএল কর্মীকে দীপাবলীর আগেই মাইনে দেওয়া হবে। তবে তিনি জানিয়েছেন,  সেপ্টেম্বরের মাইনে দেওয়া হবে তাঁদের।

কর্মীদের মাইনে দিতে সারা দেশে প্রতিমাসে বিএসএনএল-এর খরচ হয় ৮৫০ কোটি টাকা। প্রতিমাসে সংস্থার ১হাজার ৬০০ কোটি টকা আয় হয়। সংস্থার বক্তব্য, এই আয় দিয়ে এত কর্মীর মাইনে তার উপর টেকনিক্যাল বিষয়ে বিপুল খরচ—সব একসঙ্গে সামলানো কঠিন হয়ে যাচ্ছে। তবে সংস্থার তরফে বলা হয়েছে, পিএসইউ চেষ্টা করছে যাতে ব্যাঙ্ক লোন নিয়ে একটা আপতকালীন তহবিল তৈরি করা যায়। সরকারের তরফে একজন গ্যারেন্টারকে রেখে এই তহবিল গঠনের চেষ্টা চলছে বলে জানা গিয়েছে।

টেলকোর তরফে দাবি করা হয়েছে ২০১৯-২০ অর্থবর্ষে ইতিমধ্যেই এখনও পর্যন্ত ১৩ হাজার ৮০৪ কোটি টাকা ক্ষতি হয়েছে। ফোর জি স্পেকট্রামে বিএসএনএল-কে অন্তর্ভুক্ত করা এবং একটা অংশের কর্মীর স্বেচ্ছাবসর হলে এই ধাক্কা সামাল দেওয়া সম্ভব। বিএসএনএল-এর পুনরজ্জীবন যে সরকারের অন্যতম অগ্রাধিকার তাও জানান সংস্থার এমডি তথা চেয়ারম্যান। তাঁর কথায়, “৫০ হাজার কোটি টাকার একটি তহবিল যাতে বিএসএনএল, এমটিএনএল-এর জন্য গঠন করা যায় তা নিয়ে অর্থমন্ত্রক এবং প্রধানমন্ত্রীর দফতর ভাবনা চিন্তা করছে।”

বিএসএনএল কর্মীদের মাইনে বন্ধ হয়ে যাওয়ার পরই বিভিন্ন মহলে ক্ষোভ দেখা যায়। কেন্দ্রীয় টেলিকম সংস্থার কর্মীরা শুক্রবার থেকে আমরণ অনশনে বসার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন। এর মধ্যেই এক মাসের মাইনে দেওয়ার কথা ঘোষণা করল ভারত সঞ্চার নিগম লিমিটিড।

পড়ুন, দ্য ওয়ালের পুজোসংখ্যার বিশেষ লেখা…

Comments are closed.