স্মার্ট জ্যাকেটেই পালাবে করোনা, বিশ্বে প্রথম অ্যান্টিভাইরাল ‘আজরাখ কোভেস্ট’ বানালেন ভারতীয় ডিজাইনার

করোনার ঠেকাবে আবার স্টাইলের দিকেও খেয়াল রাখবে এমন জ্যাকেট বানিয়েছেন আহমেদাবাদের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ডিজাইনের প্রাক্তন অধ্যাপক ও ইনস্টিটিউট অব অ্যাপারেল ম্যানেজমেন্টের প্রাক্তন ডিরেক্টর সোমেশ সিং।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো: জ্যাকেট পরলেই কাছে ঘেঁষবে না করোনা!

দেখতে আর পাঁচটা জ্যাকেটেরই মতো। আজরাখ ব্লক প্রিন্টে বেশ খোলতাই ডিজাইন। স্টাইল স্টেটমেন্টে যেমন খাসা তেমনি ভাইরাস ঠেকাতেও এর নানা ভূমিকা আছে। এমন এক জ্যাকেট যাতে রয়েছে চার-স্তরের সুরক্ষা। অ্যান্টিভাইরাল উপাদান ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাবে, সোশ্যাল ডিস্টেন্সিং সেন্সর যা পারস্পরিক দূরত্ব রাখতে নির্দেশ দেবে, স্যানিটাইজেশন পকেটে যাই রাখা হোক না কেন জীবাণুমুক্ত করে দেবে, থার্মোমিটার শরীরের তাপমান রাখবে। তাছাড়াও জ্যাকেটের সঙ্গেই থাকবে ফেস-মাস্ক। অতএব একটা জ্যাকেট গলিয়ে নিলে সবদিক থেকে সুরক্ষা মোটামুটি নিশ্চিত হয়ে যাবে।

করোনার ঠেকাবে আবার স্টাইলের দিকেও খেয়াল রাখবে এমন জ্যাকেট বানিয়েছেন আহমেদাবাদের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব ডিজাইনের প্রাক্তন অধ্যাপক ও ইনস্টিটিউট অব অ্যাপারেল ম্যানেজমেন্টের প্রাক্তন ডিরেক্টর সোমেশ সিং। গুজরাতের বিখ্যাত আজরাখ প্রিন্টের বানানো এই জ্যাকেটর নাম ‘আজরাখ কোভেস্ট’ । সোমেশ জানিয়েছেন, বিশ্বে প্রথম করোনা ঠেকানোর মতো এমন অ্যান্টিভাইরাল জ্যাকেট তৈরি হয়েছে। এই জ্যাকেট পরনে থাকলে ভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি কমবে। অবশ্যই সঠিকভাবে নিয়ম মেনে এই জ্যাকেট পরতে হবে।

কোভেস্ট অ্যান্টিভাইরাল জ্যাকেটের বিশেষত্ব কী কী?

সোমেশ জানিয়েছেন, বেশিরভাগ মানুষই রাস্তায় বের হলে মাস্ক পরতে ভুলে যান বা সবসময় মাস্ক পরে থাকতে পছন্দ করেন না। এর কারণ হল এমন উপাদানে ফেস-মাস্ক তৈরি হচ্ছে যা ত্বকের জন্য অস্বস্তিকর। এই জ্যাকেটেই থাকবে ইনবিল্ট মাস্ক। সুতির উপাদানে তৈরি মাস্ক যা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইডলাইন মেনেই বানানো। এর পাশাপাশি, সোশ্যাল ডিস্টেন্সিং একটা বড় বিষয়। পারস্পরিক দূরত্ব ঠিক কতটা রাখতে হবে সেটা বোঝা যায় না অনেক সময়েই। কতটা কাছাকাছি মানুষজন থাকলে বা ভিড়ের মধ্যে গেলে নিজেকে কতটা সরিয়ে রাখতে হবে সেটা বুঝতে না পারার কারণে সংক্রমণ খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে একজনের থেকে অন্যজনের শরীরে। সেই কারণে এই জ্যাকেটে রাখা হয়েছে বিশেষ সেন্সর যা সিগন্যাল দিয়ে বুঝিয়ে দেবে কখন সতর্ক হতে হবে।

আর পাঁচটা সাধারণ জ্যাকেটের মতো দেখতে হলেও এতে রয়েছে অ্যান্টিভাইরাল উপাদান, বলেছেন ডিজাইনার সোমেশ সিং। সেটা কেমন? এই জ্যাকেটের ৬*১০  ইঞ্চির পকেট তিনটি স্তরে তৈরি। জ্যাকেটের সামনের দিকেই থাকবে এই পকেট। বিশেষত্ব হল পকেটে ফিট করা থাকবে আলট্রাভায়োলেট লাইট যেটা বাইরে থেকে দেখা যাবে না। পকেটে জিনিসপত্র রাখলে ৩০ সেকেন্ড ধরে ২৬০ ন্যানোমিটারের ইউভি লাইট সেইসব জিনিস জীবাণুমুক্ত করে দেবে। জ্যাকেটের বোতাম এই ইউভি লাইটের নিয়ন্ত্রণ রাখবে। বোতামের মধ্যেই থাকবে সার্কিট। যদি জ্যাকেট খুলে ফেলা হয়, তাহলে সার্কিট বন্ধ হয়ে যাবে, ইউভি রেডিয়েশনও থেমে যাবে।

সোমেশ বলেছেন, এই ইউভি রেডিয়েশন শরীরের কোনও ক্ষতি করবে না। জ্যাকেট শরীরে গলালেই সার্কিট অন হয়ে যাবে। আলট্রাভায়োলেট রেডিয়েশনের কারণে ভাইরাস ড্রপলেট শরীরে সংস্পর্শে এলেও নষ্ট হয়ে যাবে।

জ্যাকেটের কাঁধের কাছে ও পিছনের দিকে ফিট করা থাকবে সেন্সর। এই সেন্সর সিগন্যাল দিয়ে বলে দেবে পারস্পরিক দূরত্ব মেনে চলা হচ্ছে কিনা। যদি আশপাশের লোকজনের থেকে দূরত্ব ২ মিটারের কম হয়ে যায় তাহলেই সিগন্যাল দেবে সেন্সর। তখনই সতর্ক হতে হবে। জ্যাকেটে লাগানো থাকবে থার্মোমিটার। প্রয়োজন হলে শরীরের তাপমান মেপে নেওয়া যাবে। এই জ্যাকেট ২-৩ দিন অন্তর ড্রাই ক্লিন করিয়ে নেওয়া যাবে। তবে পরিষ্কার করার আগে ব্যাটারি খুলে রাখতে হবে।

আজরাখ কোভেস্ট জ্যাকেট আগামীদিনে আরও অনেক কাজ করবে বলে জানিয়েছেন সোমেশ। তিনি বলেছেন, এখনও অবধি ২ মিটার দূরত্ব মাপতে পারবে এর সেন্সর। তবে এটি ব্যবহার করা যাবে অন্য কাজেও। মহিলারা এই সেন্সরের মাধ্যমে বুঝতে পারবেন কেউ পিছু নিয়েছে কিনা, পিছন থেকে পাশ থেকে গাড়ি চলে এলেও সিগন্যাল নিয়ে সতর্ক করবে এই সেন্সর। এইভাবে দুর্ঘটনা রোখা যাবে। তাছাড়াও এই জ্যাকেট অ্যারোমাথেরাপির কাজও করবে বলে জানিয়েছেন সোমেশ। মানসিক অবসাদ, স্ট্রেস থেকেও দূরে রাখবে। মিডিয়াম, স্মল, লার্জ, একস্ট্রা লার্জ সবরকম মাপেই মিলবে এই জ্যাকেট। দাম পড়বে প্রায় পাঁচ হাজার টাকার কাছাকাছি।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More