মঙ্গলবার, এপ্রিল ২৩

উনিশের ভোটে বাংলায় আসন সমঝোতার পথে এগোচ্ছেন রাহুল-সীতারাম

দ্য ওয়াল ব্যুরো: গত সোমবারই সংসদে কংগ্রেস সংসদীয় দলের দফতরে বাংলায় সম্ভাব্য রসায়ন নিয়ে দীর্ঘ আলোচনা করেছিলেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী ও সিপিএম সাধারণ সম্পাদক সীতারাম ইয়েচুরি।
শনিবার দিল্লিতে সাংবাদিক বৈঠকে সীতারাম এক প্রকার স্পষ্ট করে দিলেন, সেই রসায়নের ফর্মুলা কী হবে? তাৎপর্যপূর্ণ ভাবে এ দিন সকালে আবার প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্রকে ডেকে রাহুল জানিয়ে দেন, প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্ব যেন বামেদের সঙ্গে আলোচনা শুরু করে দেন।

এ দিন সাংবাদিক বৈঠকে সীতারাম এক প্রশ্নের জবাবে বলেন, “বাংলায় তৃণমূল ও বিজেপি-কে পরাস্ত করতে বামফ্রন্টের শরিকরা নিজেদের মধ্যে আলোচনা করে বিভিন্ন আসনে প্রার্থী দেবে। যেখানে তাঁরা প্রার্থী দিতে পারবেন না, এমন কিছু আসনে বিজেপি ও তৃণমূল বিরোধী শক্তিকে জেতাতে পূর্ণ সমর্থন জানাবে।” এ ব্যাপারে আগামী দিনে আরও আলোচনা হবে বলে জানান সিপিএম সাধারণ সম্পাদক।

পর্যবেক্ষকদের মতে, সীতারামের এই বক্তব্য থেকেই পরিষ্কার যে বাংলায় কংগ্রেস ও সিপিএমের মধ্যে আসন সমঝোতা হবে। কোনও আনুষ্ঠানিক জোট হবে না। যে আসনগুলিতে কংগ্রেসের সাংসদরা রয়েছেন, সেখানে সিপিএম প্রার্থী দেবে না। একই ভাবে তার উল্টোটাও হবে।

তবে সূত্রের মতে, রায়গঞ্জ লোকসভা আসনটি নিয়ে জট রয়েছে। সেখানে বর্তমান সাংসদ হলেন সিপিএমের মহম্মদ সেলিম। আবার গত ভোটে দীপা দাশমুন্সি ওই আসনে মাত্র ১২০০ ভোটের ব্যবধানে হেরেছিলেন। ফলে তিনিও ওই আসনটির দাবিদার। কংগ্রেসের এক নেতা অবশ্য বলেন, দীপা দাশমুন্সিকে রাজ্যসভার কোনও আসন থেকে জিতিয়ে এনে রফাসূত্র বের করা যেতে পারে।

এ দিকে শনিবার সকালে বিভিন্ন রাজ্যের প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতিকে দিল্লিতে বৈঠকের জন্য ডেকেছিলেন রাহুল গান্ধী। সেখানে বাংলার পরিস্থিতি নিয়ে রাহুল প্রশ্ন করেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্রর কাছে। জবাবে সোমেনবাবু তাঁকে বলেন, বাংলায় কংগ্রেস কর্মীরা কেউই তৃণমূলের সঙ্গে জোটে আগ্রহী নন। তাই তৃণমূলের সঙ্গে জোটের কোনও প্রশ্নই উঠছে না। বামেদের সঙ্গে আলোচনা করা যেতে পারে। সূত্রের মতে, রাহুল সোমেনবাবুকে বলেন, এ বিষয়ে প্রদেশ কংগ্রেস যে অবস্থান নেবে সেটাই সর্বভারতীয় কংগ্রেসের অবস্থান হবে।

এ দিন কংগ্রেস ওয়ার রুম থেকে বেরোতেই সোমেন মিত্রকে ঘিরে ধরেন সাংবাদিকরা। তিনি তাঁদেরও বলেন, তৃণমূলের সঙ্গে জোটের প্রশ্ন নেই। স্বাভাবিক ভাবেই তাঁকে প্রশ্ন করা হয়, রাহুল গান্ধী যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সমর্থন করছেন! জবাবে সোমেনবাবু বলেন, “রাহুল গান্ধী সিবিআইয়ের অপব্যবহারের বিরুদ্ধে আন্দোলনে সমর্থন করেছেন। বাংলায় তৃণমূল বিরোধিতা বন্ধ করতে বলেননি।”

Shares

Comments are closed.