শনিবার, মার্চ ২৩

এ যেন নয়া কংগ্রেস, মোদীর খাস তালুক আমদাবাদে কংগ্রেস ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠক ডেকে দিলেন রাহুল

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বোন প্রিয়ঙ্কা বঢড়া গান্ধী আনুষ্ঠানিক ভাবে কংগ্রেসে যোগ দেওয়ার পর সম্প্রতি রাহুল গান্ধী একদিন বলেছিলেন, এ বার লড়াই হবে আমনে সামনে! স্ট্রেট ব্যাটে।

কিন্তু কংগ্রেস সভাপতি যে এতটা সরাসরি লড়াই চাইছেন কে জানত!

মার্চ মাসের গোড়ায় লোকসভা ভোটের নির্ঘণ্ট ঘোষণা করবে জাতীয় নির্বাচন কমিশন। তার আগে ফেব্রুয়ারি মাসের শেষে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর খাস তালুক আমদাবাদে দলের বর্ধিত ওয়ার্কিং কমিটির বৈঠক ডেকে দিলেন রাহুল গান্ধী। যার অর্থ সনিয়া, রাহুল, প্রিয়ঙ্কা – এই তিন গান্ধীই ওই সময়ে উপস্থিত থাকবেন মোদী রাজ্যে। সেই সঙ্গে থাকবেন কংগ্রেসের জাতীয় ও রাজ্য স্তরের শীর্ষ নেতারা।

পর্যবেক্ষকদের মতে, এই পদক্ষেপের বার্তা একটাই। উনিশের ভোটকে নরেন্দ্র মোদী বনাম রাহুল গান্ধীর সরাসরি লড়াইতে পরিণত করা। এবং এ হেন মেরুকরণের কৌশল সফল হলে, হিন্দিবলয়ে দলের ফায়দা হবে বলেই মনে করছেন কংগ্রেস শীর্ষ নেতৃত্ব।

প্রসঙ্গত, প্রিয়ঙ্কা ছাড়াও জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়াকে উত্তরপ্রদেশের দায়িত্ব দিয়েছেন রাহুল। মঙ্গলবার ও বুধবার লখনউতে কংগ্রেস দফতরে বসে রাতভর কর্মীদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন প্রিয়ঙ্কা। উত্তরপ্রদেশের দলের নেতা কর্মীদের তিনি গত দু দিনে বারবার বলেছেন, মানুষের কাছে গিয়ে বলুন, এ বার ডায়রেক্ট ফাইট হবে-মোদী বনাম রাহুল।

ভাই বোনের এই কৌশল পরিষ্কার। ইতিহাস বলছে, গত বিশ-ত্রিশ বছর ধরে হিন্দিবলয়ে কংগ্রেসের যে ক্ষয় হয়েছে, সেই শূণ্যস্থান দখল করেছে আঞ্চলিক দলগুলি। মোদী বনাম রাহুলের লড়াইয়ের মেরুকরণ ঘটিয়ে সেই পুরনো ভোট কংগ্রেসের দিকে ফেরত আনতে চাইছেন রাহুল-প্রিয়ঙ্কা।

বস্তুত, আমদাবাদ তথা গুজরাতে কংগ্রেসের সাংগঠনিক পরিস্থিতি আর ততটা দুর্বল নেই, যা পাঁচ বছর আগে ছিল। গত বছর বিধানসভা ভোটে গুজরাতে ভাল সংখ্যক আসন জিতেছে কংগ্রেস। তাঁদের হিসাব মতো ২০১৪ সালের লোকসভা ভোটে কংগ্রেস গুজরাতে একটাও আসন না পেলেও বিধানসভা ভোটের ফলাফলের ভিত্তিতে ১১ টা আসনে এগিয়ে রয়েছে।

এবং সেই গুজরাতে গিয়ে সনিয়া-রাহুল-প্রিয়ঙ্কা যদি বৈঠক করেন, তা হলে সন্দেহ নেই গোটা দেশের কংগ্রেস কর্মীরা উজ্জীবিত হবেন। তাঁদের আত্মবিশ্বাস বাড়বে।

কংগ্রেসের অনেকে আবার ইতিমধ্যে বলছেন, সরাসরি লড়াইয়ের যে ঝলক দেখাতে শুরু করেছেন তা ট্রেলর মাত্র। কে বলতে পারে উনিশের ভোটে বেনারস লোকসভা আসনে মোদীর বিরুদ্ধে প্রার্থী হয়ে যাবেন না প্রিয়ঙ্কা গান্ধী! তাই চমক এখনও বাকি।

আরও পড়ুন-

কড়া দিদিমণি, ক্লাস ছেড়ে বেরনোই যায় না! পুরি-আলুরদম নিয়েই প্রিয়ঙ্কার বৈঠকে ঢুকলেন কংগ্রেস নেতারা

Shares

Comments are closed.