মঙ্গলবার, মার্চ ১৯

রাহু-কালে ভোট ঘোষণা! অশুভ ইঙ্গিত দেখছেন দক্ষিণের রাজনৈতিক নেতারা

দ্য ওয়াল ব্যুরো : রবিবার বিকেলেই ঘোষণা হতে পারে দেশের ৫৪৫টি লোকসভা কেন্দ্রের ভোট নির্ঘণ্ট। মুখ্য নির্বাচন কমিশনার সুনীল অরোরা বিকেল ৫টার সময় বিজ্ঞানভবনে সাংবাদিক সম্মেলন ডেকেছেন। কিন্তু এই ভোট ঘোষণার সময় নিয়েই আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন দক্ষিণের বেশ কিছু নেতা-মন্ত্রী। তাঁদের বক্তব্য, রাহু-কালে ভোটের দিন ঘোষণা শুভ হবে তো? অনেকে তো নির্বাচন কমিশনারের কাছে আবেদনও করেছেন, আরেকটু পরে এই সাংবাদিক সম্মেলন করলে হয় না?

রাজনৈতিক নেতাদের অনেকেরই গ্রহ-নক্ষত্রের অবস্থানের উপর অটুট বিশ্বাস। যে কোনও শুভ কাজের আগে জ্যোতিষীর পরামর্শ নেন তাঁরা। কিন্তু এই বিশ্বাস দক্ষিণ ভারতের নেতাদের মধ্যে কিছুটা বেশিই। জ্যোতির্বিদ্যা মতে, রবিবার বিকেল সাড়ে ৪টে থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত রাহুকাল চলবে। প্রত্যেক দিন সূর্যোদয় ও সূর্যাস্তের মধ্যে ৯০ মিনিট এই রাহুকাল থাকে। এই সময়ের মধ্যে কোনও শুভকাজ বা শুভ ঘোষণা করা ভালো নয়। আর তাই এই সময়ের মধ্যে যাতে ভোটের নির্ঘণ্ট ঘোষণা না করা হয়, সেই ব্যাপারেও নাকি তদ্বির করেছেন দক্ষিণের কিছু নেতা।

গ্রহ-নক্ষত্রের অবস্থান অনুযায়ী কাজ করার ভুরিভুরি উদাহরণ রয়েছে। তেলঙ্গনার মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাও ১৩ ডিসেম্বর নিজের শপথ গ্রহণের জন্য নির্দিষ্ট সময় বেছেছিলেন। এমনকী বিধানসভা নির্বাচনের আগে নিজের দলের প্রার্থীতালিকা ও নির্বাচনী ইস্তেহার প্রকাশের জন্যও নির্দিষ্ট সময় বেছেছিলেন তেলঙ্গানা রাষ্ট্রীয় সমিতির এই নেতা।

পড়শি রাজ্য কর্ণাটকের রাজ্যপাল বাজুভাই বালাও রাজ্যের এক জটিল পরিস্থিতিতে সব দলের নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করার জন্য রাহু-কাল শেষ হওয়ার অপেক্ষা করেছিলেন। কর্ণাটকের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী এইচ ডি দেবেগৌড়ার নিজের সব গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গ্রহ-নক্ষত্রের অবস্থান দেখে তারপরেই নিতেন।

তেলঙ্গনা, কর্ণাটকের থেকে কোনও অংশে কম যান না অন্ধ্রপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী চন্দ্রবাবু নাইডুও। তেলুগু দেশম পার্টির এই নেতা নিজের শপথবাক্য পাঠ করেছিলেন ঠিক সন্ধ্যা ৭টা বেজে ২৭ মিনিটে। কারণ জ্যোতিষীর মতে এই সময়টা তাঁর জন্য সবথেকে বেশি শুভ ছিল।

আর তাই উনিশের লোকসভা নির্বাচনের নির্ঘণ্ট ঘোষণার ক্ষেত্রেও রাহু-কাল শেষ হয়ে যাওয়ার পক্ষেই সওয়াল করেছেন কেউ কেউ। তবে রাজনৈতিক মহলের একাংশের মতে, ভোটে কে জিতবে, কে হারবে, সেটা নির্ভর করে সাধারণ মানুষের উপর। পাঁচ বছর ধরে কোনও কাজ না করে কেউ যদি ভেবে থাকেন, শুভ সময়ে ভোট ঘোষণা হলেই তিনি জিতে যাবেন, তাহলে তাকে পাগলের প্রলাপ ছাড়া আর কিছুই বলা যায় না।

আরও পড়ুন

#Breaking: সব শোধবোধ, সব্যসাচীই মেয়র, ‘বিনা নেমন্তন্নে ঢুকে পড়েছিলেন মুকুল রায়’

Shares

Comments are closed.