শনিবার, সেপ্টেম্বর ২১

মোদী নিজে দলিত নন, তাই পিছিয়ে পড়া শ্রেণীর কষ্টটাও বুঝবেন না: মায়াবতী

দ্য ওয়াল ব্যুরো: সম্প্রতি উত্তরপ্রদেশে নির্বাচনী প্রচারে গিয়ে সপা-বসপা জোটকে আক্রমণ করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। বলেছিলেন, ইচ্ছে করে জাত-পাতের রাজনীতি করছেন অখিলেশ যাদব ও মায়াবতী। মোদীর করা এই মন্তব্যের পর তাঁকে পাল্টা দিলেন মায়াবতী। বললেন, জাতপাতের প্রসঙ্গ তুলে নিজেকে হাসির খোরাক করে তুলেছেন মোদী। তাঁর এই মন্তব্য অত্যন্ত অপরিণত বলেও মন্তব্য করেছেন বসপা নেত্রী।

উত্তরপ্রদেশের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন, বিজেপি যে ভাষায় কথা বলছে, তা দেখে বোঝা যাচ্ছে তারা বুঝতে পেরেছে ভোটে তাদের হার নিশ্চিত। মোদী বুঝতে পেরেছেন, তিনি আর প্রধানমন্ত্রী হবেন না। তাই হতাশা ও রাগ থেকেই এই ধরণের মন্তব্য করছেন বিজেপি নেতারা। হার নিশ্চিত জেনেই সম্পূর্ণ অমূলক ও অপরিণত মন্তব্য করছেন মোদী নিজেও।

একটি টুইট করেও বিজেপির বিরুদ্ধে তোপ দেগেছেন মায়াবতী। তিনি বলেন, “মোদী যে আমাদের জোটকে জাত-পাতবাদী জোট বলেছেন, তা শুনে আমার হাসি পাচ্ছে। যিনি নিজে পিছিয়ে পড়া শ্রেণী থেকে আসেননি, তিনি তাঁদের কষ্ট বুঝতে পারবেন না। তাই একটা জোটের প্রতি এই ধরণের মন্তব্য ঠিক নয়।” তিনি আরও বলেন, “মোদী নিজেই জাত-পাতের রাজনীতি করতে চাইছেন। তিনি জোর করে নিজেকে পিছিয়ে পড়া শ্রেণীর মানুষ প্রমাণ করতে চাইছেন। যদি তিনি সত্যিই পিছিয়ে পড়া শ্রেণীর হতেন, তাহলে আরএসএস কোনওদিনই তাঁকে প্রধানমন্ত্রী হতে দিত না। আরএসএস কল্যাণ সিংয়ের মতো নেতাদের সঙ্গে কী করেছে, তা সবাই জানে।”

বিরোধীদের নিন্দে করার আগে মোদীকে আগে তাঁর নিজের রাজ্য গুজরাতের দিকে নজর দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বহেনজি। মায়াবতী বলেন, “মোদীর উচিত গুজরাতের দিকে নজর দেওয়া। আমি শুনেছি সেখানে দলিতদের মাথা উঁচু করে বাঁচারও স্বাধীনতা নেই। একজন দলিত নিজের বিয়েতে ঘোড়ায় চড়ার অনুমতিও পায় না। দলিতদের সমাজের এক প্রান্তে রাখা হয়। এই ধরণের মানসিকতা থেকে আসা এক ব্যক্তি কীভাবে দলিত ও পিছিয়ে পড়া শ্রেণীর কষ্ট বুঝবেন?”

মায়াবতীর করা এই মন্তব্যের পর রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের একাংশের বক্তব্য, উত্তরপ্রদেশে নির্বাচনে বরাবরই জাত-পাতের প্রসঙ্গ উঠে আসে। বসপা নিজেদের দলিত সম্প্রদায়ের প্রতিনিধি হিসেবেই দেখানোর চেষ্টা করে। আর তাই ভোটের আগে সেখানে গিয়ে মোদীও এই প্রসঙ্গ তুলে এনে সপা-বসপা জোটকে ঘায়েল করার চেষ্টা করেছিলেন। আর তাই মোদীর পাল্টা দিলেন মায়াবতী। উত্তরপ্রদেশের মানুষের কাছে বোঝানোর চেষ্টা করলেন, যিনি নিজে দলিত নন, তিনি দলিতদের কষ্ট আর কী বুঝবেন।

আরও পড়ুন

#Breaking: অযোধ্যা মামলার শুনানি পিছলো ৩ মাস, ১৫ অগস্টের মধ্যে সমাধানের নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

Comments are closed.