রবিবার, এপ্রিল ২১

রাজ্যে ২টি, দেশে ৯১টি আসনে ভোটগ্রহণ শুরু, পশ্চিমবঙ্গে প্রথম দু’ঘণ্টায় ভোট পড়ল ১৮.১২ শতাংশ

দ্য ওয়াল ব্যুরো: শুরু হয়ে গেল যুদ্ধ। বৃহস্পতিবার সকাল সাতটায় বাজল দুন্দুভি। সপ্তদশ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শুরু হল দেশজুড়ে।

সাত দফায় বিভক্ত দেশের ১৭তম লোকসভা নির্বাচনের প্রথম দফার ভোট গ্রহণ আজ। ১৮টি রাজ্য এবং ২টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের মোট ৯১টি লোকসভা আসনে হবে ভোট গ্রহণ। ভোট দেবেন ২০ লক্ষ নতুন ভোটার। এই তা

লিকায় রয়েছে পশ্চিমবঙ্গের আলিপুরদুয়ার ও কোচবিহার এই দুই জেলাও। নির্বাচন কমিশন সূত্রে খবর, প্রথম ঘণ্টায় উত্তরাখণ্ডে ১০ শতাংশ ভোট পড়েছে।

৯১টি আসনের মধ্যে অন্ধ্রপ্রদেশের ২৫টি আসনে, উত্তরপ্রদেশের ৮টি আসনে, মহারাষ্ট্রের ৭টি আসনে, বিহার ও ওড়িয়ার ৪টি করে আসনে, উত্তরাখণ্ড ও অসমের ৫টি করে আসনে, জম্মু-কাশ্মীর, মেঘালয়, অরুণাচলপ্রদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের ২টি করে আসনে ভোট গ্রহণ। তা ছাড়া, ছত্তীসগড়, নাগাল্যান্ড, ত্রিপুরা, মণিপুর, মিজোরাম, সিকিম, আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ, লক্ষ্যদ্বীপের একটি করে আসন মিলিয়ে মোট ৯১টি আসনে ভোট গ্রহণ আজ।

উত্তরাখণ্ডের ৫টি লোকসভা আসনে মোট ৫২ জন প্রার্থীর মধ্যে জোর টক্কর। লড়াই মূলত দ্বিমুখী, বিজেপি ও কংগ্রেসের মধ্যে। অন্যদিকে, অন্ধ্রপ্রদেশ, সিকিম, অরুণাচলপ্রদেশে এক দফায় হচ্ছে নির্বাচন। উত্তরপ্রদেশে ৫টি আসনে ভোট আজ। ওই ৫ আসনে বিজেপির বিরুদ্ধে মূল লড়াই এসপি, বিএসপি এবং আরএলডির জোটের। প্রথম দফায় ৯৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। যার মধ্যে চারজন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ভিকে সিং, সঞ্জীব বালিয়ান, সত্যপাল সিং ও মহেশ শর্মা। রয়েছেন আরএলডি নেতা অজিত সিংহ এবং কংগ্রেসের জয়ন্ত চৌধুরী ও ইমরান মাসুদ। অরুণাচল প্রদেশ, অসম, ছত্তীসগঢ়, মণিপুর, মেঘালয়, উত্তরাখণ্ড— এই রাজ্যগুলিতে মূল লড়াই বিজেপি এবং কংগ্রেসের মধ্যে। একমাত্র ছত্তীসগড়ে ক্ষমতা কংগ্রেসের হাতে। বাকি সব কটি রাজ্যে বিজেপি বা এনডিএ শাসকের আসনে।

কোচবিহার এবং আলিপুরদুয়ার— পশ্চিমবঙ্গের এই দুটি আসনে আজ ভোটগ্রহণ। এই দুই আসনেই মূল লড়াই তৃণমূল ও বিজেপির মধ্যে। প্রধান বিরোধী শক্তি হিসেবে বিজেপির উত্থানের পর প্রথম লোকসভা ভোটে দেশের শাসক দলের মুখোমুখি বাংলার শাসক দল। কোচবিহারে তৃণমূলের টিকিটে লড়ছেন বাম জমানার মন্ত্রী পরেশচন্দ্র অধিকারী, বিজেপির টিকিটে জেলা তৃণমূলের একসময়ের দাপুটে নেতা নিশীথ প্রামাণিক। কংগ্রেস প্রার্থী পিয়া রায়চৌধুরী ও বাম প্রার্থী গোবিন্দ রায়।

আলিপুরদুয়ারে প্রার্থী বিদায়ী তৃণমূল সাংসদ দশরথ তিরকে। বিজেপির হয়ে তৃণমূলের টক্করে আদিবাসী আন্দোলনের মুখ জন বার্লা। কংগ্রেসের মোহনলাল বসুমাতা ও বাম প্রার্থী মিলি ওঁরাও।

আলিপুরদুয়ারে ১২ হাজার ৮৩৪টি বুথে ভোটগ্রহণ চলছে। স্পর্শকাতর বুথ ৮১৪টি। কোচবিহারে ২হাজার ১০টি বুথে চলছে ভোটগ্রহণ। কোচবিহার ও আলিপুরদুয়ারে সকাল ৯ টা পর্যন্ত গড় ভোট ১৮.১০ শতাংশ।

সকাল থেকেই নিরপত্তায় মুড়ে ফেলা হয়েছে দুই জেলা। বিচ্ছিন্ন কিছু গণ্ডগোলের খবর সামনে এসেছে। গীতালদহ, নয়াবাড়িতে বিরোধী এজেন্টদের বুথে ঢুকতে দেওয়ায় বাধা, অভিযোগ তৃণমূলের দিকে। দিনহাটায় বেশ কিছু বুথে ইভিএম খারাপ হওয়ার খবর মিলেছে। কোচবিহারে ইভিএম কারচুপির অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে।

তৃণমূল এবং বিজেপি কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষে উত্তপ্ত দিনহাটা। তৃণমূল কর্মীদের বিরুদ্ধে ভোটারদের মারধরের অভিযোগ তুলেছে বিজেপি। হামলায় এক বিজেপি সমর্থকের মাথা ফেটেছে বলে খবর। অন্যদিকে, তৃণমূলের অভিযোগ, বিজেপি সমর্থকদের  হামলায় বেশ কয়েকজন তৃণমূল কর্মী জখম হয়েছেন। সংঘর্ষের ঘটনা জানার পর প্রশাসনের কাছে রিপোর্ট চেয়ে পাঠিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

কোচবিহারে কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে ভোটে নাক গলানোর অভিযোগ তুলেছে শাসক দল। তৃণমূল নেতা রবীন্দ্রনাথ ঘোষের দাবি, নিয়ম না মেনে বুথের মধ্যে ঢুকে পড়ছেন বিএসএফ জওয়ানরা। পাশাপাশি, উঠেছে ইভিএম কারচুপির অভিযোগও। তাঁর দাবি, নির্বাচন কমিশনে জানালেও অভিযোগ নেওয়া হয়নি। শেষ পর্যন্ত তিনি অভিযোগ জানিয়েছেন জেলাশাসককে। একই সঙ্গে তাঁর দাবি, রাজ্য পুলিশ দিয়ে ভোট করালে এই প্রক্রিয়া অনেক সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হতো। পুননির্বাচনের দাবিও তুলেছেন তিনি।

তুফানগঞ্জে বিজেপির নির্বাচনী কার্যালয়ে ভাঙচুর, অভিযোগ শাসক দলের দিকে। নাগরাকাটার ১৬১ নম্বর বুথে বিজেপির প্রতীক নেই নেই বলে অভিযোগ করেছেন আলিপুরদুয়ারের বিজেপি প্রার্থী। মাথাভাঙায় বিজেপি এজেন্টকে হেনস্থা, বুথ থেকে বার করে দেওয়ার অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে।

Shares

Comments are closed.