বৃহস্পতিবার, মে ২৩

হাজার ঘণ্টা বিমান চালানোর অভিজ্ঞতা আছে এমন পাইলটরাই চালাবেন বোয়িং ৭৩৭ ম্যাক্স, নির্দেশ বিমানমন্ত্রকের

দ্য ওয়াল ব্যুরো : ইথিওপিয়ান এয়ারলাইন্সের বোয়িং ৭৩৭ ম্যাক্স ৮ বিমান ভেঙে পড়ার পর থেকে ভারতের বোয়িং ৭৩৭ বিমানগুলির জন্য অতিরিক্ত সতর্কতা নিয়েছে অসামরিক বিমান মন্ত্রক। ভারতের বিভিন্ন বিমান সংস্থায় যে বোয়িং ৭৩৭ বিমানগুলি চলে, সেগুলি ঠিক আছে কিনা, তার পুঙ্খানুপুঙ্খ তদারকি করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এ বার অসামরিক বিমান মন্ত্রক সূত্রে জানিয়ে দেওয়া হলো, শুধুমাত্র ১০০০ ঘণ্টার উপর বিমান ওড়ানোর অভিজ্ঞতাসম্পন্ন পাইলটরাই বোয়িং ৭৩৭ বিমান ওড়ানোর অনুমতি পাবেন। বাকি কোনও পাইলটকে ওই বিমান ওড়ানোর অনুমতি দেওয়া হবে না।

ডিরেক্টরেট জেনারেল অফ সিভিল এভিয়েশন-এর তরফে ভারতের সব অসামরিক বিমানসংস্থাকে এই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ভারতে কেবলমাত্র জেট এয়ারওয়েজ ও স্পাইসজেট-এই দুই বিমানসংস্থা এই বোয়িং ৭৩৭ বিমান ব্যবহার করে। এই নির্দেশের পর স্পাইসজেটের তরফে জানানো হয়েছে, তাদের ১৩টি বোয়িং ৭৩৭ ম্যাক্স জেট বিমানেই ইতিমধ্যে যান্ত্রিক তদারকি শুরু করে দেওয়া হয়েছে। জেট এয়ারওয়েজ জানিয়েছে, এই ধরণের ৫টি বিমান রয়েছে তাদের। সেগুলির উড়ান বর্তমানে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

এর আগে অসামরিক বিমান মন্ত্রকের এক কর্তা জানিয়েছিলেন, বোয়িং ৭৩৭ বিমান নিয়ে কী পদক্ষেপ নেওয়া যায়, সে ব্যাপারে আলোচনা করছেন তাঁরা। তারপরেও এই সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়। ইতিমধ্যেই জেট এয়ারওয়েজের তরফে আরও ২২৫টি বোয়িং ৭৩৭ ম্যাক্স বিমানের অর্ডার দেওয়া হয়েছে। তার মধ্যে বেশ কয়েকটি এসেও গিয়েছে। স্পাইসজেটও ১৫৫টি এই ধরণের বিমানের অর্ডার দিয়েছে।

বোয়িং-এর তরফে জানানো হয়েছে, ইথিওপিয়ান এয়ারলাইন্সের বিমানের দুর্ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে তারা। তাই এই মুহূর্তেই বিমানসংস্থাগুলিকে এই বিমান নিয়ে নতুন কোনও নির্দেশিকা দেওয়ার দরকার নেই। আমেরিকায় ১৯৬৭ সাল থেকে চলে আসা ৭৩৭ বিমানের উন্নত রূপ হলো এই ৭৩৭ ম্যাক্স ৮। ২০১৭ সাল থেকে ইতিমধ্যেই বিশ্বজুড়ে ৩৫০টি বোয়িং ৭৩৭ ম্যাক্স ৮ কেনা হয়েছে। আরও ৫ হাজার বিমানের অর্ডার আছে তাদের কাছে।

বোয়িং-এর তরফে জানানো হয়েছিল, এই বিমান বিশ্বের সবথেকে সুরক্ষিত বিমান। কিন্তু তারপরেও বিভিন্ন বিমানসংস্থা অভিযোগ করেছেন, মাঝেমধ্যে বিমানের কন্ট্রোল সিস্টেমের সফটওয়্যারে সমস্যা হচ্ছে। এই সমস্যা কীভাবে দূর করা যায়, সেই ব্যাপারে কোনও নির্দেশিকা বোয়িং-এর তরফে তাদের দেওয়া হয়নি।

রবিবার সকাল সাড়ে আটটা নাগাদ আদ্দিস আবাবা থেকে উড়েছিল ইথিওপিয়ান এয়ারলাইনসের বোয়িং ৭৩৭ ম্যাক্স বিমান। তার গন্তব্য ছিল নাইরোবি। আকাশে ওড়ার ছয় মিনিটের মাথায় বিমানটি ভেঙে পড়ে। বিমানে থাকা ১৫৭ জনের প্রত্যেকেই মারা যান। নিহতদের মধ্যে চার ভারতীয় ছিলেন। তাঁদের অন্যতম শিখা গর্গ। তিনি ছিলেন রাষ্ট্রপুঞ্জে ভারতের উপদেষ্টা।

এর আগেও গত বছর অক্টোবর মাসে ইন্দোনেশিয়ার লায়ন এয়ার-এর একটি বোয়িং ৭৩৭ ম্যাক্স বিমান ভেঙে পড়ে। এই দুর্ঘটনায় ১৮৯ জন নিহত হন। বারবার এই ধরণের ঘটনা ঘটায় প্রশ্ন উঠছে বোয়িং ৭৩৭ বিমানগুলির যান্ত্রিক গোলযোগের দিকেই।

আরও পড়ুন

‘সন্তানকে ফেলে এসেছি বিমানবন্দরে’, মায়ের মুখে এ কথা শুনেই বিমান ফেরালেন পাইলট

Shares

Comments are closed.