শনিবার, সেপ্টেম্বর ২১

মিগ: এত পুরনো গাড়িও কেউ ব্যবহার করেন না, বললেন বায়ুসেনা প্রধান

দ্য ওয়াল ব্যুরো: ভারতীয় সেনাবাহিনীর জওয়ানরা প্রায় প্রতিদিনই উন্নততর অস্ত্র ব্যবহার করছে। কিন্তু সেখানেই ভারতীয় বায়ুসেনার উইং কম্যান্ডাররা এখনও যে সব মিগ ২১ যুদ্ধবিমান চালান, তা প্রায় ৪৪ বছর পুরনো, এমনটাই জানালেন বায়ুসেনা প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল বিএস ধানোয়া। বায়ুসেনা প্রধান জানান, এত পুরনো গাড়িও মানুষ চালায় না।

বহুদিন ধরেই ভারতীয় বায়ুসেনার মিগ ২১ বিমানকে নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। প্রশ্ন তুলেছেন বায়ুসেনার পাইলটরাও। আর এ বার এই ব্যাপারে খোদ মুখ খুললেন বায়ুসেনা প্রধান ধানোয়া। ভারতীয় বায়ুসেনার আরও আধুনিকীকরণের ব্যাপারে একটি সেমিনারে যোগ দিয়ে এ দিন এই কথা বলেন ধানোয়া। সেখানে তাঁর সঙ্গে ছিলেন কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং।

এই সেমিনারেই বিএস ধানোয়া বলেন, “আমরা এখনও মিগ ২১ যুদ্ধবিমান চালাই। এই যুদ্ধবিমানগুলি ৪৪ বছর পুরনো। কেউ এত পুরনো গাড়িও চালান না।” বায়ুসেনা প্রধান আরও বলেন, “এই বিমানগুলো রাশিয়া থেকে আনা হয়েছিল। কিন্তু বর্তমানে দেশের ৯৫ শতাংশ মিগ বিমান-এর যন্ত্রাংশ ভারতেই তৈরি হয়। আর তাই রাশিয়ানরা এখন আর এই বিমান ব্যবহার না করলেও ভারতে এই বিমান ব্যবহার করা হয়।”

তবে এ দিন এক আশার কথাও শুনিয়েছেন বায়ুসেনা প্রধান। তিনি জানান, “রাশিয়ার প্রযুক্তিতে তৈরি এই মিগ ২১ বিমান-এর ব্যবহার এ বার বন্ধ হয়ে যাবে। আমিই হয়তো সেপ্টেম্বর মাসে শেষ এই ধরণের বিমান চালাবো। এরপর সব কিছুই ভারতীয় প্রযুক্তিতে তৈরি হবে।” ১৯৭৩-৭৪ সালে ভারতীয় সেনাবাহিনীতে প্রথম মিগ ২১ বিমান আসে।

ভারতীয় বায়ুসেনার উইং কম্যান্ডার অভিনন্দন বর্তমান যে বিমান নিয়ে পাক বায়ুসেনার এফ ১৬ বিমানের পিছনে ধাওয়া করেছিলেন, তা ছিল এক মিগ ২১ বাইসন বিমান। এই মিগ ২১ বাইসনগুলি হলো মিগ ২১ বিমানের উন্নততর রূপ। ২০০৬ সালে ১১০টি মিগ ২১ বিমানকে উন্নততর মিগ ২১ বাইসন যুদ্ধবিমানে পরিণত করা হয়। এই বিমানগুলিতে আরও শক্তিশালী র‍্যাডার ও যোগাযোগের মাধ্যম রয়েছে। এর ফলে এই বিমান দিয়েই পাক এফ ১৬ বিমানকে ধ্বংস করেছিলেন অভিনন্দন।

গত কয়েকবছরে হামেশাই মিগ ২১ বিমান ভেঙে পড়ার খবর পাওয়া যায়। বারবার আঙুল ওঠে বিমানের যন্ত্রের উপর। গত ৪০ বছরে ৮৭২টি মিগ ২১ বিমানের মধ্যে অর্ধেক বিমানই ধ্বংস হয়েছে। এতে শহিদ হয়েছেন অনেক বায়ুসেনার পাইলট। আর তাই এ দিন এই নিয়ে খোলাখুলি মুখ খুললেন বায়ুসেনা প্রধান।

Comments are closed.