হাড়হিম ঠান্ডায় লাগামছাড়া দূষণ, হাঁসফাঁস রাজধানী, একিউআই বিপজ্জনক সীমায়

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

    দ্য ওয়াল ব্যুরো: একেই ঠান্ডায় কাঁপছে রাজধানী। তায় মাত্রাছাড়া দূষণ। রীতিমতো হাঁসফাঁস অবস্থা দিল্লি ও তার সংলগ্ন এলাকার। রবিবার সকাল থেকে ফের দৃশ্যমানতা কমেছে হুহু করে। ধোঁয়াশায় ঢেকেছে চারদিক। মাস্ক পরে রাস্তায় নামতে দেখা গেছে লোকজনকে। সকাল সাড়ে ৯টার পরে বাতাসের গুণগত মানের সূচক বা এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স দাঁড়িয়েছে ৩৩৬।

    কেন্দ্রীয় দূষণ নিয়ন্ত্রণ পর্ষদের রিপোর্ট অনুযায়ী, সকাল সাড়ে ৮টার পর থেকে দিল্লির চাঁদনী চক এলাকায় বাতাসের গুণগত মানের সূচক (একিউআই) ছিল ৩৮১। জাতীয় রাজধানী এলাকায়  একিউআই ৪১৮, দিল্লি ইউনিভার্সিটি এলাকায় একিউআই ছিল ৩৭৩।

    এয়ার কোয়ালিটি মনিটর করার সরকারি সংগঠন SAFAR জানিয়েছে, অতি বিপজ্জনক থেকে কিছুটা কমলেও দিল্লির বাতাসের এয়ার কোয়ালিটি ইনডেক্স এখনও ‘ভেরি পুওর’ যা অ্যালার্মিং। এদিন সকাল থেকে গাঢ় ধোঁয়াশা ঢেকেছিল ধীরপুর রোড, পুসা রোড, লোধি রোড ও ইন্দিরা গান্ধী বিমানবন্দর চত্বরকে। একিউআই ছিল যথাক্রমে ৩৪২, ৩২৩, ৩১৭ ও ৩৩৬। আইআইটি দিল্লি এলাকায় দূষণের মাত্রা ‘ভেরি পুওর’ থেকে কমে দাঁড়িয়ে ‘পুওর’ ক্যাটাগরিতে। আজ ওই এলাকায় একিউআই ছিল ২৯৯।

    এয়ার কোয়ালিটি মনিটর করার সরকারি সংগঠন SAFAR জানিয়েছে, বাতাসের গুণগত মানের সূচক বা একিউআই ৩০১-৪০০-র মধ্যে থাকলে তাকে বলে ‘ভেরি পুওর’ আর ৪০০ ছাড়িয়ে গেলে সেটাই হয়ে ওঠে  ‘সিভিয়ার’ বা অতি বিপজ্জনক। পরিসংখ্যান বলছে, এ বছর দূষণের মাত্রাটা অন্যান্য বারের তুলনায় অনেকটাই বেশি।

    আরও পড়ুন: বৃষ্টি নেই, রোদও নেই, শীত থাকছে পুরোনো মেজাজে

    এনভায়রনমেন্ট কন্ট্রোল অথরিটি (ইপিসিএ)জানিয়েছে, দিওয়ালির পর থেকেই রাজধানীতে দূষণ সহনশীলতার মাত্রা ছাড়িয়েছে। আতসবাজির ধোঁয়া,পার্শ্ববর্তী দুই রাজ্য পঞ্জাব ও হরিয়ানায় শস্যের গোড়া পোড়ানো, গাড়ি ও কলকারখানার ধোঁয়ায় জেরবার দিল্লি ও তার সংলগ্ন এলাকা। তার উপর সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরোধিতায় সপ্তাহখানেক ধরে ক্ষোভের পারদ চড়েছে রাজধানীতে। প্রতিবাদ মিছিল, যানজট, জনতা-পুলিশ খণ্ডযুদ্ধে নাভিশ্বাস উঠছে দিল্লি ও তার সংলগ্ন এলাকার। কাঁদানে গ্যাস ছুড়ে, আগুন জ্বালিয়ে, গাড়ি পুড়িয়ে আরও বিষাক্ত হয়েছে দিল্লির বাতাস।

    দিনকয়েক আগেই জাতীয় রাজধানী এলাকায় একিউআই পৌঁছে গিয়েছিল ৪১৮-তে। সেখান থেকে দূষণের মাত্রা কিছুটা কমলেও হাঁসফাঁস অবস্থা যায়নি। তার উপর গত কয়েকদিনে রাস্তায় টায়ার জ্বালিয়ে প্রতিবাদ মিছিলে সামিল হয়েছেন বহু মানুষ। জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে একের পর এক গাড়ি। বিক্ষোভ থামাতে পাল্টা কাঁদানে গ্যাস ছুড়েছে পুলিশ। সব মিলিয়ে দূষণের পাল্লা আরও ভারী হয়েছে। মথুরা রোডে এদিন একিউআই দাঁড়িয়েছে ১৫৫-তে, গ্রেটার নয়ডায় ৪২২, ফরিদাবাদে ৩৯৮।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More