সোমবার, এপ্রিল ২২

অমিত শাহ বলেছিলেন, ‘বাংলায় পাব ২৩ আসন’, মোদী বললেন, ‘সংখ্যায় যাচ্ছি না’

দ্য ওয়াল ব্যুরো: গত কয়েকমাসে একাধিকবার রাজ্যে এসেছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। মালদা, কাঁথির সভা থেকে সরাসরি শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের উদ্দেশে তোপ দেগে শাহ বলেছেন, রাজ্যে বিজেপির শক্তি বাড়ছে। নির্বাচনের ফলেই তা বোঝা যাবে। রাজ্যে ২৩টি আসন পাবে বিজেপি, এমনটাই দাবি করেন তিনি। প্রথম দফার ভোটের ঠিক একদিন আগে অবশ্য বাংলায় আসনসংখ্যা নিয়ে কোনও মন্তব্য করলেন না প্রধানমন্ত্রী। অমিত শাহের দাবি অনুযায়ী এ রাজ্যে বিজেপির আসনসংখ্যার কথা জিজ্ঞাসা করা হলে সেই প্রশ্ন এড়িয়ে গিয়ে মোদী বললেন, ‘সংখ্যায় যাচ্ছি না।’ তবে তার সঙ্গেই মোদী দাবি করেন, তাঁর দেখা সবথেকে পরিশ্রমী নেতা অমিত শাহ।

সম্প্রতি এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমে সাক্ষাৎকারে মোদীকে জিজ্ঞাসা করা হয়, নির্বাচনী প্রচারে এসে অমিত শাহ যে দাবি করেছেন, অর্থাৎ পশ্চিমবঙ্গে ২৩টি আসন পাবে বিজেপি, সে ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর কী মত। এই প্রশ্নের উত্তরে মোদী বলেন, “আমি সংখ্যায় যাচ্ছি না।” তারপরেই অবশ্য বিজেপি সভাপতির দরাজ প্রশংসা করে মোদী বলেন, “অমিত শাহ দলের অন্যতম পরিশ্রমী নেতা। আমার প্রচারে মিডিয়া যেভাবে ঝাঁপিয়ে পড়ে, তাঁর প্রচারে অতটা দেখা যায় না। আমার মনে হয় না, সারা বছর ধরে ওনার মতো পরিশ্রম আর কোনও দলের নেতা করেছেন।” মোদী আরও বলেন, “শুধুমাত্র নির্বাচনের সময় নয়, অমিত শাহ হলেন এমন নেতা, যিনি সারা বছর ধরে দলের নীচের সারির কর্মীদের সঙ্গে দেখা করে কথা বলেন, তাঁদের সমস্যা বোঝার চেষ্টা করেন। তাঁর এই কঠোর পরিশ্রমে বিজেপিরই সুবিধা হচ্ছে। তাই আমি ওনার মতামতকেই সবথেকে বেশি গুরুত্ব দিই।”

তবে মোদীর এই বক্তব্যের পরেই জল্পনা শুরু হয়েছে রাজ্য রাজনীতিতে। প্রশ্ন উঠছে, ভোটের আগে যখন অমিত শাহ থেকে শুরু করে মুকুল রায়, দিলীপ ঘোষরা দাবি করছেন, রাজ্যে ২২-২৩টি আসন পাবে বিজেপি, তখন প্রধানমন্ত্রী চুপ কেন? এ প্রসঙ্গে তৃণমূলের এক নেতার বক্তব্য, “সত্যি কথাটা বেরিয়ে এল মোদীর মুখ থেকে। সংখ্যার ব্যাপারে যাওয়ার প্রশ্নই নেই এ রাজ্যে। কারণ পশ্চিমবঙ্গে একটিও আসন পাবে না বিজেপি।” অন্যদিকে রাজ্য বিজেপির এক নেতার কথায়, “প্রধানমন্ত্রী আত্মবিশ্বাসী, কিন্তু তার সঙ্গে বিনয়ীও। আর তাই ফল ঘোষণার আগেই আসনের সংখ্যার কথা তিনি বলছেন না। পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির জনপ্রিয়তা কতটা বেড়েছে, তা ভোটের ফল বেরোলেই বোঝা যাবে।”

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের একাংশের মতে, এ বারের নির্বাচনে পশ্চিমবঙ্গকে পাখির চোখ করেছে বিজেপি। গত কয়েকমাসে বিজেপির শীর্ষনেতৃত্ব এতবার রাজ্যে এসে সভা করেছেন, তা আগে দেখা যায়নি। বারবার রাজ্যে এসে নিচু তলার বিজেপি কর্মীদের মনোবল বাড়ানোর চেষ্টা করছেন মোদী-শাহরা। প্রচারের পরিমাণ যত বেড়েছে, বিজেপি নেতাদের আসন প্রাপ্তির দাবি তত বেড়েছে। এ ভাবে বাড়তে বাড়তেই ২৩টি আসনের দাবি জানিয়েছেন অমিত শাহ। কিন্তু মোদী বাংলায় এসে নির্বাচনী প্রচারে কোনও সংখ্যার কথা বলেননি। শুধু এ রাজ্যেই নয়, কোথাও নির্বাচনী প্রচারে সংখ্যার কথা বলেননি তিনি। শুধু বলেছেন, মানুষের সমর্থন দেখে তিনি নিশ্চিত, এ বার আরও বেশি আসন নিয়ে ক্ষমতায় আসবেন তাঁরা। মানুষের কাছে আসনের কথা না বলে বরং কী কারণে তাঁরা বিজেপিকে ভোট দেবে, সে ব্যাপারেই বেশি জোর দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তাই এ দিনও তাঁর মুখে আসন সংখ্যার কথা এল না।

আরও পড়ুন

জঙ্গিপুরে প্রণববাবুর ছেলেকে মদত করছে আরএসএস: মমতা

Shares

Comments are closed.