শনিবার, মার্চ ২৩

রায়বরেলী, অমেঠী খালি রেখেই প্রার্থী ঘোষণা করে দিলেন অখিলেশ-মায়াবতী

দ্য ওয়াল ব্যুরো: মৌখিক ঘোষণা আগেই হয়ে গিয়েছিল। এ বার তাতে সিলমোহর পড়ে গেল। উত্তরপ্রদেশে লোকসভা নির্বাচনের প্রার্থীতালিকা প্রকাশ করে দিল মায়াবতী-অখিলেশের বসপা-সপা জোট। কংগ্রেসের জন্য অমেঠি, রায়বরেলী বাদ রেখে এবং অজিত সিংয়ের রাষ্ট্রীয় লোকদলের জন্য তিনটি আসন রেখে বাকি ৭৫টি আসনের জন্য ঘোষণা করে দেওয়া হলো প্রার্থীতালিকা।

চোদ্দর লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির হাতে গোহারা হারের পর উনিশের নির্বাচনের বেশ কয়েক মাস আগে জোট বেঁধেছেন মায়াবতী ও অখিলেশ। কিছু দিন আগে সাংবাদিক সম্মেলন করে তাঁরা ঘোষণা করেছিলেন, উত্তরপ্রদেশে সমান সংখ্যক আসনে প্রার্থী দেবেন তাঁরা। তবে রাহুল গান্ধীর নির্বাচনী কেন্দ্র অমেঠি ও সনিয়া গান্ধীর নির্বাচনী কেন্দ্র রায়বরেলীতে বসপা-সপা জোটের কোনও প্রার্থী দেওয়া হবে না বলেই জানিয়েছিলেন তাঁরা। সেটাই বজায় থাকল।

৭৫টি আসনের মধ্যে ৩৮টি কেন্দ্রে প্রার্থী দিয়েছে বহুজন সমাজবাদী পার্টি। এর মধ্যে রয়েছে বারাণসীও। অন্যদিকে অখিলেশ যাদবের সমাজবাদী পার্টি ৩৭টি কেন্দ্রে প্রার্থী দিয়েছে। বিজেপি বিরোধী জোটের আর একটি দল রাষ্ট্রীয় লোকদলের জন্যও ছাড়া হয়েছে ৩টি আসন। তবে কংগ্রেস এই বিরোধী জোটের মধ্যে নেই। উত্তরপ্রদেশে কংগ্রেস এককভাবে লড়াই করবে বলেই জানিয়েছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। মায়াবতীও জানিয়েছেন, কংগ্রেস আলাদাভাবে লড়লে সেরকম কোনও সমস্যা হবে না। কারণ কংগ্রেসের ভোটব্যাঙ্ক মোটামুটিভাবে একই থাকবে।

তবে কংগ্রেসও যে উত্তরপ্রদেশকে হালকাভাবে নিচ্ছে না তা গত কয়েকদিনে কংগ্রেসের কার্যকলাপ থেকেই স্পষ্ট। ইতিমধ্যেই কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক প্রিয়ঙ্কা গান্ধী বঢড়া ও জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়াকে উত্তরপ্রদেশের পর্যবেক্ষকের দায়িত্ব দিয়ে পাঠিয়েছে কংগ্রেস। লখনৌতে রাহুল-প্রিয়ঙ্কার র‍্যালিতে দেখা গিয়েছে নজরকাড়া ভিড়। এই জনসমর্থন কংগ্রেসের মনোবলকে আরও বাড়িয়ে দিচ্ছে।

তবে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের একাংশের মতে, সপা-বসপার সঙ্গে কংগ্রেসের জোট না করা দেখনদারি ছাড়া আর কিছুই নয়। তাঁদের মতে, কিছু কেন্দ্রে অখিলেশ-মায়াবতী জোটের দলিত প্রার্থীর সঙ্গে কংগ্রেস উচ্চবর্ণের প্রার্থী দেবে। এই প্রার্থী মূলত বিজেপি প্রার্থীর ভোট কাটার জন্য দেওয়া হবে। অন্যদিকে কংগ্রেসের শক্তি বেশি, এমন কিছু কেন্দ্রে সেরকমই প্রার্থী দেবেন মায়াবতী-অখিলেশ, যাতে কংগ্রেস প্রার্থীর ভোট না কাটে। অর্থাৎ পুরোটাই সমঝোতা। খালি বাইরে দেখানো, জোট হয়নি। পর্যবেক্ষকদের মতে, উত্তরপ্রদেশে লোকসভার আসনের সংখ্যা গোটা দেশে সবথেকে বেশি। তাই এই রাজ্যে বিজেপিকে যে একটুও জায়গা ছাড়বে না বিরোধী জোট, তা পরিষ্কার।

আরও পড়ুন

পুলওয়ামার শহিদদের কথা তুলে মোদীকে আক্রমণ রাহুলের

Shares

Comments are closed.