বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১৭

তিন মাসের খাবার মজুত আছে উপত্যকায়, সমস্যা হবে না, জানাল প্ল্যানিং কমিশন

দ্য ওয়াল ব্যুরো : কাশ্মীরের উপর থেকে স্পেশ্যাল স্ট্যাটাস সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। সেইসঙ্গে জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখ, এই দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে ভাগ করে দেওয়া হয়েছে কাশ্মীরকে। আর তারপর থেকেই উপত্যকা থমথমে। রাস্তায় সেনার ভারী বুটের শব্দ। প্রায় গোটা কাশ্মীর জুড়েই জারি রয়েছে ১৪৪ ধারা। তবে এর ফলে সেখানকার মানুষদের খাবারের সমস্যা হবে না, এমনটাই জানিয়েছেন প্ল্যানিং কমিশনের প্রিন্সিপ্যাল সেক্রেটারি। তাঁর দাবি, তিন মাসের খাবার মজুত রয়েছে উপত্যকায়।

প্ল্যানিং কমিশনের প্রিন্সিপ্যাল সেক্রেটারি রোহিত কানসাল মঙ্গলবার শ্রীনগরে বলেন, “রাজ্য জুড়ে পর্যাপ্ত পরিমাণ খাবার মজুত করা হয়েছে এবং বিতরণও করা হয়েছে। বিশেষত কাশ্মীর উপত্যকায় তিন মাসেরও বেশি চাল, গম, মাংস, ডিম এবং জ্বালানির সরবরাহ রয়েছে। তাই খাবারের কোনও ঘাটতি হবে না। ফলে খাবার ও আবশ্যিক বিভিন্ন জিনিসের সরবরাহ নিয়ে কোনও সমস্যায় পড়তে হবে না সেখানকার বাসিন্দাদের।”

তিনি আরও বলেন, “জম্মু ও কাশ্মীরের জনগণের কাছে সরকারের পক্ষ থেকে অনুরোধ করা হচ্ছে এলাকায় শান্তি বজায় রাখার জন্য। গোটা এলাকায় নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে এবং সেখানে কেন্দ্রীয় বাহিনীর পর্যাপ্ত উপস্থিতি রয়েছে।”

জম্মু ও কাশ্মীরের নিরাপত্তা পরিস্থিতি পর্যালোচনা করতে জাতীয় সুরক্ষা উপদেষ্টা অজিত দোভাল শ্রীনগরেই আছেন। দুই প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি ও ওমর আবদুল্লাহকে সোমবার রাতে গ্রেফতার করে একটি সরকারি অতিথি নিবাসে রাখা হয়েছে। তাঁরা সেখানে সরকারি হেফাজতে রয়েছেন। দু’জনেই ৩৭০ ধারা তুলে নেওয়ার সমালোচনা করেছিলেন।

গত কয়েকদিনে কাশ্মীরের মোতায়েন করা হয়েছে ৪৩ হাজার সেনা। সেইসঙ্গে সেখানে আগে থেকে মোতায়েন সেনা ও পুলিশ রয়েছে। উপত্যকায় যাতে কোনও ভাবেই অশান্তি না ছড়ায়, তার জন্য তৎপর কেন্দ্র। যে কোনও পরিস্থিতির জন্য সবাইকে তৈরি থাকতে বলা হয়েছে। সেইসঙ্গে কাশ্মীরে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে ইন্টারনেট পরিষেবা। যাতে ইন্টারনেটের মাধ্যমে কোনও রকমের গুজব না ছড়ায়, তার জন্যই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানানো হয়েছে। আপাতত স্কুল-কলেজও বন্ধ রয়েছে কাশ্মীরে।

Comments are closed.