চিনের পরে জাপান, করোনা সংক্রমণে বাড়ছে মৃত্যু, ঝাঁপ ফেলেছে স্কুল-কলেজ, আতঙ্ক ঘরে ঘরে

জাপানেও বাড়ছে করোনার ভয়। আতঙ্কে ঘরবন্দি মানুষজন। হাসপাতালে বাড়ছে আইসোলেশন ওয়ার্ড।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো: মৃত্যুর রেকর্ড ছাড়িয়েছে চিনে। গত ২৪ ঘণ্টায় হুবেই প্রদেশেই ভাইরাসের সংক্রমণে মৃত্যু হয়েছে ২৪২ জনের। চিনের মূল ভূখণ্ডে মৃতের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ১৫০০। নোভেল করোনাভাইরাস চিনের গণ্ডি পেরিয়ে চোখ রাঙাচ্ছে গোটা বিশ্বেই। তাইল্যান্ড, হংকং, ফিলিপিন্স, আমেরিকা,  অস্ট্রেলিয়াতে সংক্রামিতের খোঁজ মিলেছিল, এবার জাপানে ভাইরাসের সংক্রমণে শুরু হয়েছে মৃত্যু। সংক্রমণের আতঙ্কও ছড়িয়েছে ঘরে ঘরে। ঝাঁপ পড়েছে স্কুল-কলেজে। হাসপাতালে বাড়ছে আইসোলেশন ওয়ার্ড।

জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রক সূত্রে খবর, জাপানের উপকূলবর্তী এলাকা কানাগাওয়াতে করোনাভাইরাসের সংক্রমণে মৃত্যু হয়েছে ৮০ বছরের এক মহিলার। নিউমোনিয়ার উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন তিনি। পরে দেখা যায় ওই মহিলা সিভিয়ার অ্যাকিউট রেসপিরেটারি সিন্ড্রোমে আক্রান্ত। স্বাস্থ্য দফতরের আধিকারিকরা বলছেন, ওই মহিলা কখনও চিনে যাননি। অথচ তাঁর শরীরে সংক্রমণ ঢুকল কীভাবে সেটাই চিন্তার বিষয়।

জাপানের আরও কয়েকজায়গা থেকে ভাইরাস আক্রান্তরদের খবর মিলেছে। সংক্রমণ সন্দেহে আইসোলেশন ওয়ার্ডে ভর্তি ডজনখানেক রোগী। জাপানের ইয়োকোহোমার কাছে কোয়ারেন্টাইন করা জাহাজেও বাড়ছে সংক্রামিতের সংখ্যা। জাপানের স্বাস্থ্য মন্ত্রক জানিয়েছে, অন্তত ২০০ জন ভাইরাস আক্রান্ত ডায়মন্ড এক্সপ্রেস জাহাজে।

করোনার আতঙ্কের প্রভাব পড়তে শুরু করেছে প্রমোদতরীর পর্যটন ব্যবসায়। সিঙ্গাপুরের একটি প্রমোদতরীকে নিজেদের দেশের বন্দরে ঢুকতে দিতে চাইছে না তাইল্যান্ড সরকার। জাপান, ফিলিপিন্সেও তাই।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার রিপোর্ট বলছে, এর আগে বিভিন্ন দেশ মিলিয়ে মোট ৩০০টি সংক্রমণের খবর মিললেও এখন সেই সংখ্যাটা ৩৪০ ছাড়িয়েছে। যার মধ্যে আমেরিকাতেও আজ নতুন করে সংক্রমণের খবর মিলেছে। মৃত্যু হয়েছে জাপানে। শুধু তাই নয় জাপানের ঘরে ঘরেও ভাইরাস সংক্রমণের ভয় দেখা দিয়েছে।

চিনের ন্যাশনাল হেলথ কমিশনের রিপোর্ট বলছে, দিনে গড়ে ৭০ থেকে ৮০ জনের মৃত্যুর খবর মিলছিল উহান-সহ চিনের মূল ভূখণ্ডে। ১০ ফেব্রুয়ারি ১০৩ জনের মৃত্যু হয়। সেটাই ছিল সর্বোচ্চ। বুধবারের সংখ্যাটা তার দ্বিগুণেরও বেশি। এতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১৩৬৭। কাল থেকে এ পর্যন্ত ২৫৪টি মৃত্যুর খবর মিলেছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা হুয়ের দাবি গত এপ্রিল থেকেই একটু একটু করে মহামারির আকার নিয়েছে এই মারণ ভাইরাস। আর এখন পরিস্থিতি এমন যে এই অসুখ সন্ত্রাসবাদের থেকেও ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেছে। হুয়ের বক্তব্য, এই ভাইরাস এখন গোটা বিশ্বের কাছে ভয়ের হয়ে দাঁড়িয়েছে। সন্ত্রাসবাদ যেমন বিশ্বের কাছে চ্যালেঞ্জ তেমনই করোনাভাইরাসও চ্যালেঞ্জ। আর সেটা সন্ত্রাসবাদের থেকেও ভয়াবহ।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More