মঙ্গলবার, মে ২১

‘মোদীকে চ্যালেঞ্জ করছি, আমি ওঁর থেকে বেশি ফিট’, জইশ মুখপত্রে দাবি মাসুদ আজহারের

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কত জন জঙ্গি নিহত হয়েছে বালাকোটের বিমান হামলায়? কেমন আছেন জইশ প্রধান মাসুদ আজহার? বারবার ওঠা এই প্রশ্নের জবাব এ বার দিলেন খোদ জইশ চিফ। সম্প্রতি জইশ-এর মুখপত্র আল-কালাম-এ লিখে মাসুদ আজহার জানালেন, একদম ঠিক আছেন তিনি। বালাকোটের হামলায় জইশ-এর কোনও সদস্য নিহত হয়নি বলেও দাবি করেছেন তিনি। যদিও এই লেখা মাসুদ আজহারেরই কিনা তার সত্যতা যাচাই করা হয়নি।

সম্প্রতি এই পত্রিকায় নিজের ‘সাদি’ ছদ্মনাম নিয়ে লেখেন মাসুদ আজহার। তিনি লেখেন, “বালাকোটের হামলা নিয়ে যেসব কথা লেখা হয়েছে, সব মিথ্যে। কারও কিছু হয়নি। সবাই ভালো আছে।” নিজেকে নবি মহম্মদের সঙ্গে তুলনা করে নিজের কলমে মাসুদ লেখেন, “কাশ্মীরে আগুন জ্বালানো শুরু করেছেন আহমেদ আদিল দারের মতো কাশ্মীরের মানুষরাই। এই আগুন সহজে নিভবে না। কাশ্মীরের এই লড়াই আমাদের স্বাধীনতা সংগ্রাম। এই লড়াই ধীরে ধীরে কাশ্মীর থেকে ভারতের অভ্যন্তরে পৌঁছে যাবে। গোটা ভারতে আগুন জ্বলবে।”

শুধুমাত্র ভারতের প্রসঙ্গই নয়, নিজের কলমে আফগানিস্তানের অভ্যন্তরীন পরিস্থিতির কথাও তুলে ধরেন মাসুদ। এই পরিস্থিতি থেকে বেরিয়ে আসার জন্য যুবকদের জইশ-এ যোগ দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

এমনকী নিজের শারীরিক অবস্থা নিয়েও মুখ খোলেন জইশ প্রধান। তিনি লেখেন, “আমি সাধারণত নিজের শরীর নিয়ে কোথাও কিছু বলি না। কিন্তু গত কয়েকদিন ধরে যেভাবে মিথ্যে রটানো হচ্ছে, তাতে আমি বলতে বাধ্য হচ্ছি। আমি একদম ঠিক আছি। আমার কিডনি ও লিভার একদম ভালো আছে। আমি কোরানের উপদেশ অনুযায়ী খাবার খাই। আর তাই গত ১৭ বছর ধরে হাসপাতালের মুখ আমাকে দেখতে হয়নি। এমনকী ক’বছর আগে শেষবার ডাক্তার দেখিয়েছি, সেটাই মনে করতে পারছি না।” নিজের শারীরিক সুস্থতার প্রমাণ দিতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চ্যালেঞ্জও জানিয়েছেন মাসুদ। তিনি বলেন, “আমি নরেন্দ্র মোদীকে তিরন্দাজি বা শুটিং প্রতিযোগিতার জন্য চ্যালেঞ্জ জানাচ্ছি। তাহলেই বোঝা যাবে, আমি ওঁর থেকে বেশি ফিট।”

১৪ ফেব্রুয়ারি পুলওয়ামায় সিআরপিএফ কনভয়ে জঙ্গি হামলার পর ২৬ ফেব্রুয়ারি পাক অধিকৃত কাশ্মীরের বালাকোটে জইশ জঙ্গি ঘঁটিতে হামলা চালায় ভারতীয় বায়ুসেনার ১২টি মিরাজ ২০০০ যুদ্ধবিমান। এই হামলার পরেই বিরোধীরা দাবি জানান, কত জঙ্গি নিহত হয়েছে তার সংখ্যা জানাতে হবে। যদিও বায়ুসেনার তরফে জানানো হয়, তাঁরা হামলা করেছেন। যে যে টার্গেট ছিল, সেগুলো ধ্বংস করেছেন। কিন্তু কত জন নিহত হয়েছেন, জানেন না। জানা যায়, মাসুদ আজহারের তিনজন আত্মীয় নিহত হয়েছে এই হামলায়। আরও শোনা যায়, গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় নাকি হাসপাতালে ভর্তি মাসুদ। যদিও পাকিস্তানের তরফে দাবি করা হয়, কোনও ক্ষয়ক্ষতিই হয়নি এই বিমান হামলায়।

এরপর পাক বায়ুসেনাও ভারতের আকাশসীমা লঙ্ঘনের চেষ্টা করে। জবাব দেয় ভারতীয় বায়ুসেনা। এই লড়াইয়ে ভারতীয় বায়ুসেনার এক জওয়ান অভিনন্দন বর্তমান পাক রেঞ্জার্সদের হাতে ধরা পড়েন। দু’দিন পাক জেলে বন্দি থাকার পরে ভারতে ফেরেন অভিনন্দন। সীমান্তের পরিস্থিতি এখনও উত্তপ্ত। প্রায় প্রত্যেকদিনই যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করে গুলি চালাচ্ছে পাক রেঞ্জার্স। কাশ্মীরেও জারি রয়েছে জঙ্গিদের সঙ্গে নিরাপত্তারক্ষীদের গুলির লড়াই। এর মধ্যেই এ বার মুখ খুললেন খোদ জইশ প্রধান মাসুদ আজহার।

আরও পড়ুন

‘ম্যায় ভি চৌকিদার’ স্লোগান তুলে প্রচার শুরু মোদীর

Shares

Comments are closed.