ইসরো-নাসার যৌথ উদ্যোগে তৈরি স্যাটেলাইটের উৎক্ষেপণ বাইশে, মহাকাশেও জোট ভারত-আমেরিকার

মার্কিন বিদেশ সচিব মাইক পম্পেও বলেছেন, ইসরো ও নাসার যৌথ উদ্যোগে তৈরি ‘নাসা-ইসরো সিন্থেটিক অ্যাপারচার রেডার’ তথা নিসারের (NISAR) উৎক্ষেপণ নিয়ে দীর্ঘ সময় ধরেই আলোচনা চলছিল। ২০১৪ সালে এমনটি একটি আর্থ অবজারভেশন স্যাটেলাইট তৈরির জন্য দুই দেশের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা চুক্তিবদ্ধ হয়।

৬০৭

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

দ্য ওয়াল ব্যুরো: মহাকাশেও জোট বাঁধছে ভারত-আমেরিকা। মার্কিন গবেষণা সংস্থা নাসা ও ভারতের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ইসরোর যৌথ উদ্যোগে তৈরি ‘আর্থ অবজারভেশন স্যাটেলাইট’ নিসারের উৎক্ষেপণ হবে বাইশ সালে। আজ ভারত ও আমেরিকা টু-প্লাস-টু স্তরের বৈঠকে এমনটাই জানা গিয়েছে।

ভারতের সঙ্গে টু-প্লাস-টু বৈঠকে যোগ দিতে গতকালই দেশে এসেছেন মার্কিন বিদেশ সচিব মাইক পম্পেও ও প্রতিরক্ষা সচিব মার্ক টি এসপার। আজ, মঙ্গলবার বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের সঙ্গে বৈঠক করেন তাঁরা। সেখানে সামরিক ও প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে দু’দেশের সমন্বয় আরও বাড়ানোর বিষয়ে আলোচনা হয়। একটি সামরিক চুক্তিতেও সই হয়। পাশাপাশি, মহাকাশে কৃত্রিম উপগ্রহ পাঠিয়ে দুই দেশের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য আদানপ্রদানের ব্যাপারেও কথাবার্তা হয়। বৈঠকে দুই দেশের তরফেই যৌথ বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, পৃথিবীর কক্ষে কৃত্রিম উপগ্রহ পাঠিয়ে আঞ্চলিক সীমান্ত, শত্রুপক্ষের গোপন অভিসন্ধির খবর পাওয়া যাবে। পাশাপাশি, পৃথিবীতে জলবায়ু বদলের প্রভাব সম্পর্কেও ওয়াকিবহাল থাকা যাবে। দুই দেশই পরস্পরের মধ্যে সমন্বয় ও তথ্যের আদানপ্রদান বাড়াবে।

মার্কিন বিদেশ সচিব মাইক পম্পেও বলেছেন, ইসরো ও নাসার যৌথ উদ্যোগে তৈরি ‘নাসা-ইসরো সিন্থেটিক অ্যাপারচার রেডার’ তথা নিসারের (NISAR) উৎক্ষেপণ নিয়ে দীর্ঘ সময় ধরেই আলোচনা চলছিল। ২০১৪ সালে এমনটি একটি আর্থ অবজারভেশন স্যাটেলাইট তৈরির জন্য দুই দেশের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা চুক্তিবদ্ধ হয়।

Other functions - ISRO & NASA to build NISAR; the world's most expensive  Earth monitoring satellite | The Economic Times

কী কাজ করবে নিসার স্যাটেলাইট?

নাসা ও ইসরোর তৈরি প্রথম রেডার ইমেজিং স্যাটেলাইট হল নিসার। পৃথিবীর স্থলভাগ, মেরু প্রদেশ, হিমবাহের খবর গ্রাউন্ড স্টেশনে পাঠাবে এই স্যাটেলাইট। ৫ থেকে ১০ মিটার রেজোলিউশনে নিখুঁত ম্যাপিং করবে। জলবায়ু বদলের প্রভাব কীভাবে পড়ছে, পৃথিবীর কোন কোন প্রান্তে কী কী বদল হচ্ছে, বাস্তুতন্ত্রে এর প্রভাব কতটা তার বিস্তারিত খবর দিতে পারবে এই নিসার স্যাটেলাইট। হিমবাহের গলন সবচেয়ে বড় সঙ্কট। পশ্চিম আন্টার্কটিকায় উপকূল বরাবর দুই বিশাল হিমবাহে ভাঙন ধরেছে বলে ইতিমধ্যেই সতর্ক করেছেন বিজ্ঞানীরা। হিমবাহ ভেঙে সমুদ্রের জলস্তর বেড়েছে। বিশাল ওই হিমবাহ পুরোপুরি গলতে শুরু করলে সমুদ্রের জলস্তর পাঁচ শতাংশ অবধি বাড়তে পারে বলে শঙ্কা করেছেন বিজ্ঞানীরা। নিসার স্যাটেলাইট পৃথিবীর কক্ষপথ থেকে হিমবাহের পরিস্থিতির খবর পাঠাবে।

NISAR (NASA-ISRO Synthetic Aperture Radar) Mission - Satellite Missions -  eoPortal Directory

ভঊমিকম্প, সুনামি, আগ্নেয়গিরির বিস্ফোরণ বা ভূমিধসের পূর্বাভাস দিতে পারবে এই স্যাটেলাইট। পাশাপাশি, প্রতিরক্ষাতেও বড় হাতিয়ার হতে পারে নিসার। সীমান্ত এলাকার নিখুঁত ম্যাপিং করে পাঠাতে পারবে এই স্যাটেলাইটের রেডার। শত্রুঘাঁটির অবস্থান জানাতে পারবে।

ইসরো ও নাসা দুই মহাকাশ গবেষণা সংস্থার যন্ত্রপাতিতেই তৈরি হয়েছে এই কৃত্রিম উপগ্রহ। নাসা দিয়েছে এল ব্যান্ড সিন্থেটিক অ্যাপারচার রেডার, হাই-রেট টেলিকমিউনিকেশন সাবসিস্টেম, জিপিএস রিসিভার, সলিড-স্টেট রেকর্ডার ও পে-লোড ডেটা সিস্টেম। ইসরো দিয়েছে স্যাটেলাইট বাস, এস ব্যান্ড সিন্থেটিক অ্যাপারচার রেডার, লঞ্চ ভেহিকল।

নিসার স্যাটেলাইটের ৩৯ ফুট অ্যান্টেনা এল ও এস মাইক্রোওয়েভ ব্যান্ডে কাজ করতে পারবে। ভারত থেকেই জিওসিনক্রোনাস স্যাটেলাইট লঞ্চ ভেহিকল বা জিএসএলভি রকেটে চাপিয়ে মহাকাশে পাঠানো হবে এই স্যাটেলাইটকে।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More