রবিবার, অক্টোবর ২০

ভারতের সিদ্ধান্ত বৈষম্যমূলক, মুসলিমদের ‘সেকেন্ড ক্লাস সিটিজেন’ বানাতে চাইছেন মোদী: ইমরান

দ্য ওয়াল ব্যুরো : কাশ্মীরের উপর থেকে স্পেশ্যাল স্ট্যাটাস তুলে নেওয়ার পরেই পাক বিদেশমন্ত্রী শাহ মেহমুদ কুরেশি নিন্দে করেছিলেন মোদী সরকারের এই সিদ্ধান্তের। এ বার মুখ খুললেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। ভারতের এই সিদ্ধান্তকে বৈষম্যমূলক বলে অভিযোগ করেছেন ইমরান। তাঁর দাবি, মুসলিমদের সেকেন্ড ক্লাস সিটিজেন বানাতে চাইছে মোদী সরকার।

মঙ্গলবার পাকিস্তানের পার্লামেন্টে অধিবেশন চলাকালীন এই অভিযোগ করেন ইমরান। তিনি বলেন, “ভারতের সরকার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে, তা হঠাৎ করে নয়। এটা সম্পূর্ণ রাজনৈতিক ফায়দা তুলতে নেওয়া হয়েছে। বিজেপির মতাদর্শ আরএসএস-এর মতাদর্শ। তাদের লক্ষ্য হচ্ছে ভারতকে হিন্দু রাষ্ট্র বানানো।” ইমরান আরও বলেন, “তারা মুসলিমদের উপর অত্যাচার করেছে, কারন মুসলিম শাসকরা ৫০০-৬০০ বছর ধরে ভারতের উপর শাসন করেছে। তাই তারা চেষ্টা করছে মুসলিমদের সেকেন্ড ক্লাস সিটিজেন বানানোর। ব্রিটিশরা ভারত ছাড়ার পরেই এই চেষ্টা করে চলেছে তারা।”

এই প্রসঙ্গে মহম্মদ আলি জিন্নাহর প্রসঙ্গও তুলে আনেন ইমরান। তিনি বলেন, জিন্নাহ একবার আরএসএস-এর মতাদর্শ পড়ে দেখেছিলেন। তিনি জানতেন ভারতে মুসলিমদের অবস্থা খারাপ হতে পারে। তাই পাকিস্তানের দাবি তোলেন তিনি। পাক প্রধানমন্ত্রী জানান, কাশ্মীরের বেশ কিছু নেতা আগে তাঁকে বলতেন, পাকিস্তানকে পৃথক দেশ হিসেবে তৈরি করার সিদ্ধান্ত ভুল। কিন্তু এখন নাকি তাঁরাই জিন্নাহর সিদ্ধান্তর প্রশংসা করেন।

ইমরান দাবি করেন, ভারতে মুসলিমদের উপর অত্যাচার করা হয়, অথচ পাকিস্তানে সবাইকে সমান চোখে দেখা হয়। তিনি বলেন, “বিজেপির মতাদর্শ হলো মাংস খাওয়া নিয়ে মুসলিমদের হত্যা করা। তারা কাশ্মীরে তাই করেছে। বিজেপির মতাদর্শ বৈষম্যমূলক।”

কাশ্মীরের উপর থেকে ৩৭০ ধারা তুলে নিয়ে নেওয়ায় ফের পুলওয়ামার মতো কোনও ঘটনা ঘটতে পারে বলে ভারতকে সাবধানও করেছেন পাক প্রধানমন্ত্রী। তাঁর দাবি, পুলওয়ামাতে যে হামলা হয়েছিল, তার সঙ্গে পাকিস্তানের কোনও সম্পর্ক ছিল না। কিন্তু সরকারের এই সিদ্ধান্তের পর ফের এই ঘটনা ঘটতে পারে বলেই জানিয়েছেন তিনি। ইমরান আরও জানান, ভারতের এই সিদ্ধান্ত রাষ্ট্রসংঘ, আন্তর্জাতিক আদালতে তুলবেন তিনি।

Comments are closed.