বৃহস্পতিবার, অক্টোবর ১৭

রোজ ক্লাসই করতেন না মোদী, এমএ ডিগ্রিতে অসঙ্গতির অভিযোগ গুজরাতের প্রাক্তন অধ্যাপকের

দ্য ওয়াল ব্যুরো : প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর মাস্টার ডিগ্রি নিয়ে বড়সড় প্রশ্ন তুলে দিলেন গুজরাত বিশ্ববিধ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের প্রাক্তন অধ্যাপক জয়ন্তী ভাই পটেল। তাঁর দাবি, নরেন্দ্র মোদী এমএ ডিগ্রিতে যে বিষয়ের কথা উল্লেখ করেছেন, তা বিশ্ববিদ্যালয়ের সিলেবাসে নেই। প্রধানমন্ত্রী যে তথ্য দিয়েছেন, তাতে যথেষ্ট অমিল আছে বলেই দাবি প্রাক্তন অধ্যাপকের।

ইন্ডিয়া টুডে-কে অধ্যাপক পটেল বলেছেন, তাঁর কাছে যা তথ্য আছে তাতে এটা পরিষ্কার, মোদী এমএ পার্ট-টুতে যে বিষয় দেখিয়েছেন, তা বিশ্ববিদ্যালয়ে অন্তর্ভুক্ত নেই।

১৯৬৯ সাল থেকে ১৯৮৩ সাল পর্যন্ত গুজরাত বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যাপনা করেছেন জয়ন্তী ভাই পটেল। তিনি বলেছেন, নরেন্দ্র মোদী মোটেই নিয়মিত ছাত্র ছিলেন না। ক্লাসে তাঁর হাজিরার হারও ছিল ভীষণ খারাপ। ক্লাসে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে ছাত্র-অধ্যাপক বিতর্ক হতো। তাঁর দাবি, অন্য ছাত্ররা সেই বিতর্কে অংশগ্রহণ করলেও, মোদী সে সবের ধার ঘেঁষতেন না।

যদিও গুজরাত বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মহেশ পটেল জয়ন্তী ভাইয়ের দাবি উড়িয়ে দিয়েছেন। তাঁর কথায়, “উনি যা বলছেন তা সম্পূর্ণ ভুল। ৩০ বছর আগের মার্কশিটে ওই বিষয়গুলি লেখা রয়েছে। তখন বিষয়গুলি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ানো হতো।”

এর আগেও মোদীর বিরুদ্ধে দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের জাল ডিগ্রি দেখানোর অভিযোগ উঠেছিল। যদিও দিল্লি বিশ্বাবিদ্যালয়ের উপাযার্য তরুণ দাস জানিয়েছিলেন, ৭৮ সালে পরীক্ষা দিয়েছিলেন মোদী। ৭৯ সালে সার্টিফিকেট দেওয়া হয়েছিল তাঁকে। এ বার ফের অভিযোগ উঠল গুজরাত বিশ্ববিদ্যালয়ের এমএ ডিগ্রি নিয়ে।

Comments are closed.