রবিবার, অক্টোবর ২০

এনআরসি তালিকায় নাম নেই মানেই কেউ ঘরছাড়া বা বিদেশি নয়, স্পষ্ট জানাল কেন্দ্র

দ্য ওয়াল ব্যুরো : অসমের জাতীয় নাগরিক পঞ্জিকরণ বা এনআরসি তালিকায় নাম না থাকা মানেই কেউ ঘরছাড়া বা বিদেশি নয়, এমনটাই জানিয়ে দিল কেন্দ্র। তালিকায় যাঁদের নাম নেই, তাঁরাও সব রকম সুযোগ সুবিধা ভোগ করতে পারবেন বলেই জানানো হয়েছে কেন্দ্রের তরফে।

অসমে এনআরসি-র চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ হয়েছে শনিবার। সেখানে দেখা গিয়েছে, ১৯ লক্ষেরও বেশি মানুষের নাম নেই এই তালিকায়। তারপর থেকেই প্রতিবাদের সুর চড়িয়েছে বিরোধীরা। এমনকী অসম বিজেপিরও বেশ কিছু প্রতিনিধি বিরোধিতা করেছেন। তারপরেই রাষ্ট্রপুঞ্জের উদ্বাস্তু বিষয়ক হাই কমিশনার ফিলিপ্পো গ্রান্ডি সরকারের কাছে আবেদন করেছেন, যাঁদের তালিকায় নাম নেই, তাঁদের যেন ঘরছাড়া না করা হয়। তিনি বলেন, “এই ধরণের কোনও প্রক্রিয়া ভারতের মতো এত বড় একটা দেশের এত বড় পরিমাণ জনসংখ্যার উপর একটা বিশাল ধাক্কা হতে পারে। তাই সরকারের উচিত সবদিক বিবেচনা করেই কোনও সিদ্ধান্ত নেওয়া।”

তারপরেই রবিবার সন্ধেবেলা বিদেশমন্ত্রকের তরফে জানানো হয়, “এনআরসি তালিকায় নাম না থাকা মানেই তাঁর সব অধিকার ছিনিয়ে নেওয়া হল, তা নয়। যাঁদের তালিকায় নাম নেই, তাঁরাও সব ধরণের অধিকার পাবেন। সব ধরণের সুযোগ-সুবিধা ভোগ করতে পারবেন।”

বিদেশমন্ত্রকের তরফে আরও জানিয়ে দেওয়া হয়, “যাঁদের তালিকায় নাম নেই, তাঁদের নাম তালিকাভুক্ত করার জন্য একাধিক ট্রাইবুনাল খোলা হয়েছে। আগেই ১০০ ট্রাইবুনাল ছিল। আরও ২০০ ট্রাইবুনাল ডিসেম্বর মাসের মধ্যে যোগ করা হবে।”

বিদেশমন্ত্রকের তরফে আরও জানানো হয়েছে, “এটা সরকার নিজে থেকে করছে না। সুপ্রিম কোর্ট ঠিক যেমন নির্দেশ দিয়েছে, সেটাই মেনে চলা হচ্ছে। এই প্রক্রিয়ায় কোনও ভেদাভেদ নেই। কারও প্রতি অন্যায়-অবিচার করা সরকারের উদ্দেশ্য নয়। আর তাই অসমের মানুষদের যে ফর্ম ফিলআপ করতে হয়েছিল, সেখানে ধর্ম উল্লেখ করার কোনও জায়গা ছিল না। সরকার নিয়ম মেনে সব কাজ করছে। সাধারণ মানুষের ভয় পাওয়ার কোনও কারণ নেই। কাউকে তাড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে না। কেবলমাত্র সংবিধান অনুযায়ী কাজ করা হচ্ছে।”

Comments are closed.