দেশে সুস্থতায় রেকর্ড, ৫১ হাজারের বেশি সেরে উঠলেন একদিনে, আক্রান্ত প্রায় ৫৫ হাজার

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

    দ্য ওয়াল ব্যুরো: গতকাল কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের বুলেটিন জানিয়েছিল ভারতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েছে ৫৭ হাজার ১১৮। সেই বৃদ্ধি এদিন কিছুটা কমল। নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ৫৫ হাজার মানুষ। তবে সুস্থতায় এদিন রেকর্ড হয়েছে দেশে। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৫১ হাজারের বেশি মানুষ, যা এযাবৎ সর্বাধিক। এই সংখ্যা গতকালের তুলনায় প্রায় ১৫ হাজার বেশি। দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা এই মুহূর্তে সাড়ে ১৭ লাখের বেশি। অন্যদিকে সুস্থ হয়ে উঠেছেন প্রায় সাড়ে ১১ লাখ মানুষ।

    কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের বুলেটিন অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ৫৪ হাজার ৭৩৫ জন আক্রান্ত হয়েছেন। এর ফলে ২ অগস্ট, রবিবার, সকাল ৮টা পর্যন্ত ভারতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৭ লাখ ৫০ হাজার ৭২৩ জন।

    গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে করোনা আক্রান্ত হয়ে ৮৫৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। অর্থাৎ এখনও পর্যন্ত দেশে করোনায় মৃতের সংখ্যা ৩৭ হাজার ৩৬৪ জন। ভারতে করোনায় মৃত্যুহার ২.১৩ শতাংশ। দেশে মৃত্যুহার প্রতিদিন কমছে। গতকালই কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানিয়েছে বিশ্বে করোনায় মৃত্যহার সবথেকে কম ভারতে।

    স্বাস্থ্যমন্ত্রকের বুলেটিন জানিয়েছে, আক্রান্তের সংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে ভারতে করোনা থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা মানুষের সংখ্যাও বাড়ছে। বুলেটিন জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছে উঠেছেন ৫১ হাজার ২৫৫ জন। এই সংখ্যা এখনও পর্যন্ত সর্বাধিক। ভারতে মোট সুস্থ হয়ে ওঠা ব্যক্তির সংখ্যা ১১ লাখ ৪৫ হাজার ৬২৯ জন। এই মুহূর্তে দেশে সুস্থতার হার ৬৫.৪৪ শতাংশ। এই সুস্থতার হার প্রতিদিনই বাড়ছে। অর্থাৎ এই মুহূর্তে দেশে কোভিড অ্যাকটিভ রোগীর সংখ্যা ৫ লাখ ৬৭ হাজার ৭৩০ জন।

    ভারতে আক্রান্তের সংখ্যা সবথেকে বেশি মহারাষ্ট্রে। এই রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা চার লাখ ছাড়িয়ে গিয়েছে। মহারাষ্ট্রে রবিবার সকালে আক্রান্তের সংখ্যা ৪ লাখ ৩১ হাজার ৭১৯ জন। মহারাষ্ট্রে কোভিডে মারা গিয়েছেন ১৫ হাজার ৩১৬ জন। তবে এর মধ্যেই এই রাজ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ২ লাখ ৬৬ হাজার ৮৮৩ জন। অর্থাৎ এই মুহূর্তে মহারাষ্ট্রে অ্যাকটিভ রোগীর সংখ্যা ১ লাখ ৪৯ হাজার ৫২০ জন।

    আক্রান্তের সংখ্যায় মহারাষ্ট্রের পরেই রয়েছে তামিলনাড়ু। দক্ষিণের এই রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ৫১ হাজার ৭৩৮ জন। মৃত্যু হয়েছে ৪০৩৪ জনের। আক্রান্তের সংখ্যায় দিল্লিকে টপকে তিন নম্বরে এসেছে অন্ধ্রপ্রদেশ। এই রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৫০ হাজার ২০৯ জন। মৃত্যু হয়েছে ১৪০৭ জনের। তারপরেই রয়েছে দিল্লি। রাজধানীতে এই মুহূর্তে আক্রান্ত হয়েছেন ১ লাখ ৩৬ হাজার ৭১৬ জন। মৃত্যু হয়েছে ৩৯৮৯ জনের। পাঁচ নম্বর রাজ্য হিসেবে কর্নাটকে আক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ২৯ হাজার ২৮৭ জন। মৃত্যু হয়েছে ২৪১২ জনের। ছ’নম্বরে রয়েছে উত্তরপ্রদেশ। এই রাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ৮৯ হাজার ৪৮ জন। মৃত্যু হয়েছে ১৬৭৭ জনের।

    মহারাষ্ট্র, তামিলনাড়ু, অন্ধ্রপ্রদেশ, দিল্লি, কর্নাটক, ও উত্তরপ্রদেশ, এই ছয় রাজ্যেই মোট আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ১২ লাখের কাছে। এই রাজ্যগুলি মিলিয়ে মোট আক্রান্ত হয়েছেন ১১ লাখ ৮৮ হাজার ৭১৭ জন। এই সংখ্যা দেশের মোট আক্রান্তের ৬৭.৯০ শতাংশ। এই ছয় রাজ্য মিলিয়ে মোট ২৮ হাজার ৮৩৫ জনের মৃত্যু হয়েছে, যা দেশের মোট মৃত্যুর ৭৭.১৭ শতাংশ।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More