রেকর্ড ভাঙল, দেশে ৩২ হাজারের বেশি করোনা আক্রান্ত একদিনে, মোট সংখ্যা সাড়ে ৯ লাখ ছাড়াল

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের সকাল ৮টার বুলেটিনে দেখা গেল একদিনে দেশে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৩২ হাজার ৬৯৫ জন। সেই সঙ্গেই এক লাফে করোনা আক্রান্তের মোট সংখ্যা সাড়ে ৯ লাখের গণ্ডি পেরিয়ে গেল।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

    দ্য ওয়াল ব্যুরো: গত কয়েকদিন ধরেই করোনা কার্ভ বাড়ছিল। দৈনিক সংক্রমণ ২৫ থেকে ২৯ হাজারের মধ্যে ঘোরাফেরা করছিল। আজ, বৃহস্পতিবার সব রেকর্ড ভাঙল। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের সকাল ৮টার বুলেটিনে দেখা গেল একদিনে দেশে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৩২ হাজার ৬৯৫ জন। সেই সঙ্গেই এক লাফে করোনা আক্রান্তের মোট সংখ্যা সাড়ে ৯ লাখের গণ্ডি পেরিয়ে গেল। দেশে এখন মোট কোভিড পজিটিভ ৯ লাখ ৬৮ হাজার ৮৭৬ জন।

    দেশের এখন কোভিড অ্যাকটিভ কেস অর্থাৎ সক্রিয় ৩ লাখ ৩১ হাজার ১৪৬ জনের শরীরে। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের হিসেব বলছে, গত ২৪ ঘণ্টায় ভাইরাসের সংক্রমণে ৬০৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। এখনও অবধি দেশে করোনা সংক্রমণে মোট মৃতের সংখ্যা ২৪ হাজার ৯১৫।

    করোনা সংক্রমণ ও মৃতের সংখ্যার নিরিখে রাজ্যগুলির মধ্যে এখনও এগিয়ে মহারাষ্ট্র। ভাইরাস পজিটিভ আক্রান্ত ২ লাখ ৭৫ হাজার ৬৪০ জনের শরীরে। মৃত্যু হয়েছে ১০ হাজার ৯২৮ জনের। মহারাষ্ট্রে কোভিড সংক্রমণের বেশিরভাগই মুম্বইতে। সেখানে কোভিড পজিটিভ রোগীর সংখ্যা ৯৬ হাজার ৪৭৪ জন।

    আজকের হিসেবে রাজধানীতে কোভিড পজিটিভ রোগীর সংখ্যা ১ লাখ ১৬ হাজার ৯৯৩। তবে সংক্রমণ সারিয়ে সুস্থও হয়েছেন প্রায় ৯৫ হাজার রোগী। দিল্লিতে করোনা অ্যাকটিভ কেস ১৭ হাজারের বেশি। গুজরাট ও তামিলনাড়ুতেও কোভিড সংক্রমণ চিন্তার কারণ। গুজরাটে আক্রান্ত ৪৪ হাজার ৫৫২। তামিলনাড়ুতে ইতিমধ্যেই কোভিড পজিটিভ রোগীর সংখ্যা দেড় লাখ ছাড়িয়েছে। আজকের হিসেবে আক্রান্তের মোট সংখ্যা ১ লাখ ৫১ হাজার ৮২০। কেরলে এখনও অবধি সংক্রমণ ৯ হাজার ৫৫৩। করোনা কার্ভ নিয়ন্ত্রণে রাখতে একাধিক আগামী এক বছরের জন্য পদক্ষেপের কথা ঘোষণা করেছে কেরলের পিনারাই বিজয়ন সরকার।

    এদিকে করোনা সংক্রমণ বেড়েই চলেছে কর্নাটকে। মোট আক্রান্ত ৪৭ হাজার ২৫৩। রাজ্যে সবচেয়ে বেশি সংক্রামিত বেঙ্গালুরুতেই। পরিস্থিতি সামাল দিতে গত ১৪ জুলাই থেকে ফের লকডাউন চালু হয়ে গেছে বেঙ্গালুরুতে। কনট্যাক্ট ট্রেসিং মডেলে করোনা কার্ভ নিয়ন্ত্রণে রেখে বেঙ্গালুরুই একসময় সংক্রমণ রোখার নতুন পথ দেখিয়েছিল। ব্রুহাট বেঙ্গালুরু মহানগর পালিকে (বিবিএমপি)-র পরিসংখ্যাণ বলছে, ৮ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত দেশে যখন করোনা সংক্রমণ ক্রমেই রেকর্ড জায়গায় পৌঁছচ্ছিল, বেঙ্গালুরুতে তখন সংক্রামিতের সংখ্য ছিল ৩৫৮। মৃত্যু হয়েছিল ১০ জনের। কানপুর, অমৃতসর, লখনৌ, নাগপুর, জলন্ধর, আজমেঢ়, মেরঠ, উদয়পুর ও শাহারানপুরের থেকেও বেঙ্গালুরুতে কোভিড রোগীর সংখ্যা ছিল অনেক কম। কিন্তু জুনের শেষ থেকেই আক্রান্তের সংখ্যা আচমকাই বাড়তে শুরু করেছে বেঙ্গালুরুতে। কোভিড সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনতে ইতিমধ্যেই শহরে কনটেইনমেন্ট জ়োনের সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে।

    কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক জানিয়েছে, দেশে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়লেও সুস্থতার হারও বেড়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা সারিয়ে সুস্থ হয়েছেন ২০ হাজার ৭৮২ জন। দেশে মোট সুস্থ হয়ে ওঠাদের সংখ্যা ৬ লাখ ১২ হাজার ৮১৪।  স্বাস্থ্যমন্ত্রকের তথ্য বলছে, ২১টি রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল মিলিয়ে দেশে কোভিড রিকভারি রেট ৬৩.২৪%।  এখনও অবধি দেশে মোট কোভিড টেস্ট হয়েছে ১ কোটি ২৪ লক্ষ ১২ হাজার ৬৬৪। আইসিএমআর জানাচ্ছে, ১৪ জুলাই দেশে করোনা পরীক্ষা হয়েছে তিন লাখের বেশি। ৮৫২টি সরকারি ও ৩৪৮টি বেসরকারি ল্যাবে চলছে করোনা পরীক্ষার কাজ। কোভিড ভ্যাকসিনের ক্লিনিকাল ট্রায়াল নিয়েও প্রস্তুতি চলছে আইসিএমআরে। ডিরেক্টর জেনারেল ডক্টর বলরাম ভার্গম বলেছেন, করোনার দুই টিকা ভারত বায়োটেকের তৈরি কোভ্যাক্সিন ও জাইদাস ক্যাডিলার তৈরি জ়াইকভ-ডি ভ্যাকসিন ক্যানডিডেটের হিউম্যান ট্রায়ালের জন্য প্রস্তুতি শুরু হয়ে গেছে। আজ থেকেই টিকা দিতে শুরু করেছে জাইদাস ক্যাডিলা। দুই পর্যায়ে করোনার টিকা দেওয়া হবে ১০৪৮ জনকে।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More