সোমবার, মে ২৭

রবার্ট বঢড়ার বিরুদ্ধে অভিযোগ থাকলে তদন্ত হোক, চেন্নাইতে প্রশ্নোত্তরে অকপট রাহুল

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কাশ্মীর থেকে বেকারত্ব, নরেন্দ্র মোদীকে আলিঙ্গন থেকে ভগ্নিপতি রবার্ট বঢড়ার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ, দেড় ঘণ্টা ধরে তিন হাজার ছাত্রীর সামনে চোখা চোখা প্রশ্নের উত্তর দিলেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। বুধবার চেন্নাইতে একটি কলেজের অনুষ্ঠানে  যোগ দিয়েছিলেন রাহুল।

সাদা পাজামা, পাঞ্জাবির পরিচিত পোশাকের বদলে এ দিন এক্কেবারে অন্য লুকে রাহুল। কালো টি শার্ট আর ডেনিম ব্লু জিনস। মঞ্চে হেঁটে হেঁটে সব প্রশ্নের উত্তর দিলেন সনিয়া-পুত্র। এ দিন এক ছাত্রী রাহুলকে প্রশ্ন করেন, “আপনি তো রাফায়েল দুর্নীতি নিয়ে এত সরব। কই রবার্ট বঢড়ার বিরুদ্ধে ওঠা দুর্নীতি নিয়ে তো কখনও বলেন না!” একটুও ইতস্তত না করে রাহুলের জবাব, “আইন সবার জন্য সমান। রবার্ট বঢড়ার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ থাকলে তার তদন্ত হোক। তেমনই প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধেও তদন্ত প্রয়োজন।” তাঁর ভগ্নিপতি রবার্টের বিরুদ্ধে তদন্ত করছে কেন্দ্রীয় এজেন্সি ইডি। গত মাসে একাধিকবার জেরাও করা হয়েছে তাঁকে।  প্রশ্নোত্তরের সময় রাহুল বলেন, “আমি তো সব প্রশ্নের জবাব দিচ্ছি। কিন্তু আমাদের প্রধানমন্ত্রীর সাহস নেই প্রশ্নের মুখোমুখি হওয়ার।”

এ দিনের অনুষ্ঠানে রাহুল ফের একবার সরব হন প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে। সরাসরি মোদীকে দুর্নীতিবাজও বলেন। এক ছাত্রীর প্রশ্নের উত্তরে রাহুল বলেন, “নোটবন্দির সময় আপনার বাবা-মা ব্যাঙ্কে টাকা দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ওই টাকা নীরব মোদীকে দিয়ে দিয়েছেন।” দেশের দুর্নীতিযুক্ত ব্যবসায়ীদের নাম বলতে গিয়ে রাহুল মুখ ফস্কে নরেন্দ্র মোদীর নাম বলে ফেলেন। সঙ্গে সঙ্গে উল্লাসে ফেটে পড়েন ছাত্রীরা। তবে সঙ্গে সঙ্গে শুধরে নিয়ে রাহুল বলেন, “না না নরেন্দ্র নয়। ওটা নীরব মোদী।”

কাশ্মীর সমস্যার কথাও এ দিন উল্লেখ করেন কংগ্রেস সভাপতি। তাঁর কথায়, ইউপিএ সরকারের সময় উপত্যকায় পঞ্চায়েত নির্বাচনও হয়েছিল। কিন্তু এখন বিধানসভা ভোট করা যাচ্ছে না।” তাঁদের সরকার এলে সরকারি চাকরির ক্ষেত্রে ৩৩ শতাংশ মহিলা সংরক্ষণ হবে বলেও প্রতিশ্রুতি দেন রাহুল।

সংসদে প্রধানমন্ত্রীকে জড়িয়ে ধরা নিয়েও এ দিন প্রশ্ন করা হয় রাহুলকে। জবাবে তিনি বলেন, “আমার ভিতরে প্রধানমন্ত্রীর সম্পর্কে কোনও রাগ বা ঘৃণা নেই। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর রয়েছে। সুযোগ পেলেই বলেন, আমি কত খারাপ, আমার মা কত খারাপ, আমার বাবা বা ঠাকুমা কতটা ভয়ঙ্কর ছিলেন। আমার তো মনে হয় প্রধানমন্ত্রী এই পৃথিবীর সৌন্দর্যই দেখেননি।”

এ দিন শুরুতেই অনুষ্ঠান জমিয়ে দেন কংগ্রেস সভাপতি। এক ছাত্রী রাহুলকে স্যার বলে সম্বোধন করলে তিনি বলেন, “তুমি আমাকে রাহুল বলতে পারো।” অনুষ্ঠান চলতে চলতেই গত পাঁচ বছরে তিনি কতটা রাজনীতি শিখেছেন সে কথা উল্লেখ করেন কংগ্রেস সভাপতি। বলেন, “২০১৪ সালে আমি এক্কেবারেই তরুণ ছিলাম।” এরপরই রসিকতা করে বলেন, “আমি এখনও তরুণ। তবে এই সময়ে আমি অনেক কিছু শিখেছি। সংসদে প্রধানমন্ত্রীর বক্তৃতাও আমাকে অনেক পরিণত করেছে।”

Shares

Comments are closed.