মঙ্গলবার, জুন ২৫

মোদী-প্রিয়ঙ্কা লড়াই নিয়ে জল্পনা বহাল, বারাণসীর সঙ্গে প্রয়াগরাজ নিয়েও চুপ কংগ্রেস

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বারাণসী সহজ আসন নয় এটা ঠিক। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর জেতা আসনে তাঁর বিরুদ্ধে লড়াই করার সিদ্ধান্ত সহজ নয়। তবু সেটা করেই প্রিয়ঙ্কা গান্ধী চমকে দিতে চান বলে জল্পনা চলছে। প্রিয়ঙ্কা গান্ধী বঢরা রাজনীতিতে যোগ দেওয়ার পর থেকে যে জল্পনা চলছে সেটা এখনও মিটল না। শনিবার উত্তরপ্রদেশের আরও ন’টি আসনের প্রার্থী ঘোষণা করলেও বারাণসী নিয়ে চুপ কংগ্রেস। একই ভাবে লখনউ কেন্দ্রে রাজনাথ সিং-এর বিরুদ্ধেও এখনও প্রার্থী দেয়নি কংগ্রেস।

শুধু উত্তরপ্রদেশ নয়, গোটা দেশের কাছেই প্রশ্ন, লোকসভা ভোটে কোন আসনে লড়বেন প্রিয়ঙ্ক? প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর কেন্দ্র বারাণসীতে? নাকি এলাহাবাদে মানে এখনকার প্রয়াগরাজ কেন্দ্র থেকে? এই জল্পনা এখনও বহাল।

শনিবার যে প্রার্থীতালিকা কংগ্রেস ঘোষণা করেছে, তার মধ্যে ওই দু’টি আসনের নামই নেই। জল্পনা বাড়িয়ে দিয়েছে এনিয়ে কংগ্রেসের শীর্ষ স্তরের নেতৃত্বও চুপ থাকা। প্রিয়ঙ্কার বারাণসীতে প্রার্থী হওয়া নিয়ে কংগ্রেস মুখপাত্র রণদীপ সুরজেওয়ালা বলেন, ‘‘এ ব্যাপারে কোনও সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হলে তা ঘোষণা করতে দেরি হবে না।’’

কংগ্রেস সূত্রের খবর, ২০১৪ সালেও তিনি নাকি লড়তে চেয়েছিলেন মোদীর বিরুদ্ধে, বারাণসীতে। এবারেও মোদীর বিপক্ষে লড়তে চান তিনি। এর পরেও টালবাহানা চলছে কারণ, কংগ্রেস প্রিয়ঙ্কার নাম ঘোষণার আগে ইলাহাবাদ বা বারাণসীতে তাঁর জেতার সম্ভাবনা খতিয়ে দেখছে। এর জন্য আরও একটু সময় নিতে চাইছে। সেই কারণেই এই দুই আসনে প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করেনি।

তবে প্রিয়ঙ্কা যে বারাণসীতেই দাঁড়াতে পারেন সে সম্ভাবনাও উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। কারণ, ২০০৪ সালে বারাণসীতে কংগ্রেসের টিকিটে জয়ী রাজেশ মিশ্রকে পাশের সালেমপুর আসনে প্রার্থী করেছে কংগ্রেস। তবে ২০১৪-য় নরেন্দ্র মোদীর কাছে হেরে যাওয়া অজয় রাইকে এখনও কোথাও প্রার্থী করা হয়নি।

এ বছরের গোড়ায় আনুষ্ঠানিক ভাবে রাজনীতিতে আসেন প্রিয়ঙ্কা। তাঁকে এআইসিসির সাধারণ সম্পাদক করা হয়, পূর্ব উত্তরপ্রদেশের দায়িত্ব দেওয়া হয়। তাই দেরিতে হলেও প্রার্থী তাঁকেই করবে কংগ্রেস। তবে শেষ বেলায় কঠিন লড়াই থেকে সরে প্রয়াগরাজেও প্রার্থী হতে পারেন তিনি। তখন অজয় রাইকে ফের বারাণসীতে টিকিট দেওয়া হতে পারে। কিন্তু তাতে বারাণসীর উত্তেজনা কমে যাবে। মোদী বনাম প্রিয়ঙ্কা লড়াইয়ের চমকটাই আর থাকবে না। একই সঙ্গে প্রিয়ঙ্কা প্রয়াগরাজে প্রার্থী হলে ভয় পাওয়ার অভিযোগ তুলবে বিজেপি।

উত্তরপ্রদেশে সপা, বসপাকে নিয়ে তৈরি মহাজোটে বারাণসীতে প্রার্থী দেওয়ার কথা অখিলেশ যাদবের দলের। গত লোকসভা নির্বাচনে দেখা গিয়েছিল কংগ্রেসের সঙ্গে জোট না হলেও গান্ধী পরিবারের দুই প্রার্থী সনিয়া ও রাহুলের বিরুদ্ধে প্রার্থী দেয়নি সপা। এবারেও আমেঠি ও রায়বেরিলিতে প্রার্থী দেয়নি তারা। প্রিয়ঙ্কার নাম ঘোষণা না হওয়ায় সপাও চুপ বারাণসী নিয়ে।

Comments are closed.