শুক্রবার, এপ্রিল ২৬

স্ত্রীয়ের দেহ শত টুকরো করে প্লাস্টিকে ভরেছিলেন ইনিই, পাকড়াও তামিল চিত্রপরিচালক

দ্য ওয়াল ব্যুরো: শ্বাসরোধ করে স্ত্রীকে খুন করেছিলেন প্রথমে। এরপর দেহ টুকরো টুকরো করে কালো প্লাস্টিকে ভরে ফেলে দিয়ে এসেছিলেন বাড়ি থেকে বেশ কিছুটা দূরে রাস্তার ধারে এক আবর্জনা স্তূপে। পুলিশের কাছে নিখোঁজ ডায়রি করেও রেখেছিলেন তামিল চিত্রপরিচালক ও প্রযোজক বালাকৃষ্ণন। দিন কয়েক আগে উদ্ধার হওয়া সেই দেহাংশের সূত্র ধরেই বালাকৃষ্ণনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

চেন্নাই পুলিশ কমিশনার একে বিশ্বনাথন জানিয়েছেন, জানুয়ারির প্রথম দিকেই স্ত্রী সন্ধ্যাকে খুন করেছিলেন বালাকৃষ্ণন। এরপর পুলিশের কাছে নিখোঁজ ডায়রি করতে এসে নানা গল্প ফেঁদেছিলেন। বারে বারেই পুলিশকে নানা কথায় বিভ্রান্ত করেছেন তিনি। কখনও বলেছেন স্ত্রী বাড়ি ছেড়ে চলে গেছে, কখনও বলেছেন তাঁকে অপহরণ করা হয়েছে। তবে, বালাকৃষ্ণনের কথাবার্তায় অনেক অসঙ্গতি ছিল। সেখান থেকেই সন্দেহ হয় তদন্তকারীদের।

স্থানীয় সূত্রে খবর পেয়ে, সপ্তাহ দুয়েক আগে দক্ষিণ চেন্নাইয়ের এক প্রত্যন্ত এলাকা থেকে কালো প্লাস্টিকে মোড়া এক মহিলার মৃতদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। হাত, পা, দেহের নানা অংশ টুকরো টুকরো করে কাটা ছিল। শুধু মাথাটাই ছিল না। পায়ে আঁকা ট্যাটুর সূত্র ধরেই তদন্ত শুরু করে পুলিশ। সন্ধ্যার সারা শরীরেও ঠিক এমনই অজস্র ট্যাটু আঁকা ছিল। দেহাংশের ফরেন্সিক টেস্টের পরই পুলিশ নিশ্চিত হয় সেটি বালাকৃষ্ণনের স্ত্রী সন্ধ্যারই মৃতদেহ।
সন্ধ্যার পরিবার জানিয়েছে, বালাকৃষ্ণনের সঙ্গে তাঁর কখনওই বনিবনা হত না। ৫১ বছরের চিত্রপরিচালক স্ত্রীয়ের উপর নানা ভাবে অত্যাচারও করতেন। নিজের পরিবারকে সে কথা জানিয়েছিলেন সন্ধ্যা। জেরায় খুনের কথা স্বীকার করেছেন বালাকৃষ্ণন।  পুলিশ জানিয়েছে, মৃতদেহের মাথা এবং দেহের বেশ কিছু অংশের এখনও খোঁজ মেলেনি।  অভিযুক্তকে জেরা করে তার খোঁজ চলছে।

Shares

Comments are closed.