বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ২৫

‘অফিসারকে বদলি করা আমার উচিত হয়নি’, সুপ্রিম কোর্টের কাছে ক্ষমা চাইলেন নাগেশ্বর রাও

দ্য ওয়াল ব্যুরো : আদালত অবমাননার অভিযোগে সুপ্রিমে কোর্টে হাজিরা দেওয়ার আগের দিনই ক্ষমা চাইলেন সিবিআইয়ের অ্যাডিশনাল ডিরেক্টর এম নাগেশ্বর রাও। সোমবার দেশের শীর্ষ আদালতের কাছে একটি এফিডেবিট জমা দিয়ে ক্ষমা চান তিনি।

সিবিআই অধিকর্তা হিসেবে ঋষিকুমার শুক্ল দায়িত্ব নেওয়ার আগে অন্তর্বর্তী অধিকর্তা ছিলেন নাগেশ্বর রাও। এই সময়েই তিনি এ কে শর্মা-সহ ছ’জন সিবিআই অফিসারকে বদলির নির্দেশ দেন। এই এ কে শর্মা বিহারের মুজফফরপুরে শেল্টার হোমে নাবালিকাদের উপর হওয়া অত্যচারের তদন্ত করছিলেন। বাকি অফিসাররা সিবিআইয়ের প্রাক্তন অধিকর্তা অলোক বর্মার ডেপুটি রাকেশ আস্থানার উপর আনা ছ’টি অভিযোগের তদন্তের দায়িত্বে ছিলেন।

এই বদলির পরে দেশের শীর্ষ আদালতের তরফে জানানো হয়, সুপ্রিম কোর্ট নির্দেশ দিয়েছিল, এই তদন্তকারী অফিসারদের কোনও ভাবেই বদলি করা যাবে না। তারপরেও কোর্টের অনুমতি না নিয়ে কীভাবে তাঁদের বদলি করলেন নাগেশ্বর রাও। এটা করে তিনি দেশের শীর্ষ আদালতের অবমাননা করেছেন বলে মন্তব্য করেন বিচারপতিরা। সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ বলেন, “সুপ্রিম কোর্ট যখন নির্দেশ দিয়েছিল এই তদন্তকারী অফিসারদের সরানো যাবে না, তারপরেও কীভাবে এই বদলির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়? আপনি আমাদের নির্দেশ নিয়ে ছেলেখেলা করেছেন। ভগবান আপনার মঙ্গল করুন।”

এই অবমাননার অভিযোগে মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্টে হাজিরা দেওয়ার কথা রাওয়ের। সোমবারই তিনি একটি এফিডেবিট জমা দিয়ে ক্ষমা প্রার্থনা করেন। এফিডেবিটে তিনি লিখেছেন, “আমি আমার ভুল বুঝতে পারছি। আমি এই কাজের জন্য নিঃশর্ত ক্ষমা প্রার্থনা করছি। আমি বলতে চাই, এই বদলির পিছনে কোনও রকমের অসৎ উদ্দেশ্য আমার ছিল না। আদালত অবমাননার কথা আমি স্বপ্নেও ভাবতে পারি না।”

নাগেশ্বর রাও আরও লিখেছেন, “সুপ্রিম কোর্টের অনুমতি ছাড়া সিবিআই অফিসার এ কে শর্মাকে বদলি করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া আমার উচিত হয়নি।” মঙ্গলবার এই এফিডেবিট পরখ করে দেখবে সুপ্রিম কোর্ট। শীর্ষ আদালতের সামনে হাজিরাও দেবেন নাগেশ্বর রাও।

আরও পড়ুন

‘বাবাকে ভারতরত্ন দেওয়া মোদী সরকারের সস্তায় নাম কেনার চেষ্টা’, ক্ষোভ উগড়ে দিলেন ভূপেন হাজারিকার ছেলে

Comments are closed.