শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২০

মায়াবতীকে কুকথার জের, ‘যে বিজেপি বিধায়কের মাথা কেটে আনবে তাকে ৫০ লাখ দেব’, হুঁশিয়ারি বসপা নেতার

  • 41
  •  
  •  
    41
    Shares

দ্য ওয়াল ব্যুরো : উনিশের লোকসভার আগে উত্তরপ্রদেশে বিজেপি-বসপা তরজা চরমে। শনিবার বিজেপি বিধায়ক সাধনা সিং বহুজন সমাজবাদী পার্টি নেত্রী মায়াবতীর বিরুদ্ধে অশালীন মন্তব্য করেছিলেন। বলেছিলেন, “মায়াবতীকে দেখে বোঝাই যায় না উনি পুরুষ না মহিলা।” এ বার তার পালটা দিলেন বসপা নেতা বিজয় যাদব। বললেন, “যে সাধনা সিংয়ের মাথা কেটে আনবেন, তাঁকে ৫০ লক্ষ টাকা পুরস্কার দেবেন।”

শনিবার যখন ব্রিগেডে বিজেপি বিরোধী সমস্ত রাজ্যের নেতাদের নিয়ে ‘ইউনাইটেড ইন্ডিয়া র‍্যালি’ হচ্ছে, ঠিক তখনই মুঘলসরাইয়ের একটি জনসভায় সাধনা বলেন, “ওঁকে (পড়ুন মায়াবতীকে) দেখলে বোঝাই যায় না পুরুষ না মহিলা। এই মহিলার মান-ইজ্জত বলে কিচ্ছু নেই। ক্ষমতার লালসায় সব বেচে দিয়েছেন।”

আরও পড়ুন ‘মুম্বই এসে ধনেপাতাও বিক্রি করেছি’, নিজের স্ট্রাগলিং সময়কে তুলে ধরলেন নওয়াজ

এখানেই থামেননি বিজেপি-র এই মহিলা বিধায়ক। তিনি আরও বলেন, “ওঁর শ্লীলতাহানি করা হয়েছিল। তবু ওঁর লজ্জা নেই। ইতিহাসে পড়েছি দ্রৌপদীর বস্ত্রহরণ করা হয়েছিল। কিন্তু তারপর দ্রৌপদী প্রতিশোধের প্রতিজ্ঞা নিয়েছিলেন। আর ইনি ক্ষমতার জন্য আত্মসমর্পণ করেছেন। উনি নারী জাতির কলঙ্ক।”

সাধনা সিংয়ের এই মন্তব্যের পর বহুজন সমাজবাদী পার্টি নেতা বিজয় যাদব বলেন, “সাধনা সিং যে মন্তব্য করেছেন, তারপর তাঁর উচিত মায়াবতী ও দেশের মহিলাদের কাছে ক্ষমা চাওয়া। নাহলে আমরা এর প্রতিবাদ করব। পার্টির লোকেরা সবাই মিলে চাঁদা দিয়ে টাকা তুলব। তারপর যিনি সাধনা সিংয়ের মাথা কেটে আনবেন, তাঁকে আমি ৫০ লক্ষ টাকা পুরস্কার দেব।”

নিজের মন্তব্যের পরে অবশ্য বিক্ষোভের মুখে পড়ে সাধনা বলেন, “আমি কাউকে অসম্মান করতে চাইনি। আমি খালি মায়াবতীজিকে এটাই মনে করাতে চেয়েছিলাম, ১৯৯৫ সালে গেস্ট হাউস কাণ্ডের পর বিজেপিই তাঁকে সমর্থন করেছিল। সেই সময় যারা তাঁকে নিগ্রহ করেছিল, তাদের সঙ্গেই হাত মিলিয়েছেন তিনি।”

এই মন্তব্যের পর বসপা নেতা রাম চরণ গৌতম ইতিমধ্যেই সাধনা সিংয়ের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। আরেক বসপা নেতা সতীশ চন্দ্র মিশ্র সাধনাকে ‘মানসিকভাবে অসুস্থ’ বলে মন্তব্য করেছেন। তিনি বলেন, “সপা-বসপা জোটের পর বিজেপি ভয় পেয়ে গিয়েছে। বিজেপি বুঝতে পেরেছে উনিশের লোকসভা নির্বাচনে একটা সিটও পাবে না তারা। তাই যে ধরণের ভাষা তাঁরা ব্যবহার করছেন, তাতে বোঝা যাচ্ছে তাঁরা মানসিকভাবে অসুস্থ।”

দিনকয়েক আগে সাংবাদিক সম্মেলন করে উনিশের লোকসভা নির্বাচনে জোটের কথা ঘোষণা করেন মায়াবতী ও অখিলেশ যাদব। সেখানেই মায়াবতী বলেন, ১৯৯৫ সালের ঘটনা তিনি ভুলে গিয়েছেন। সাধনা সিংয়ের মন্তব্যের পর অখিলেশ যাদবও এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছেন। তিনি বলেন, “বিজেপি ভয় পেয়ে গিয়েছে। ওরা বুঝতে পেরেছে, সামনের নির্বাচনে উত্তরপ্রদেশে সুবিধা করতে পারবে না। তাই সবাইকে ব্যক্তিগত আক্রমণ করছে।”

The Wall-এর ফেসবুক পেজ লাইক করতে ক্লিক করুন 

Comments are closed.