শনিবার, সেপ্টেম্বর ২১

হোমওয়ার্ক না করায় সিক্সের ছাত্রীকে ১৬৮টি চড়, বিক্ষোভ ভোপালের স্কুলে, গ্রেফতার শিক্ষক

দ্য ওয়াল ব্যুরো: হোমওয়ার্ক করে আনেনি ছাত্রী। তাই কোনও ভাবেই রেয়াত করা হবে না তাকে। প্রথমে বকঝকা, শেষে কঠিন ‘শাস্তি’ দেওয়ার বন্দোবস্ত করেছিলেন শিক্ষক। টানা ৬দিন ধরে ছাত্রীটিকে ১৬৮টি চড় মারা হলো ক্লাসের ভিতরেই। সহপাঠীদের দিয়ে এমন কাজ করালেন খোদ শিক্ষক নিজেই। ঘটনার খবর ছড়িয়ে পড়তেই তুমুল উত্তেজনা তৈরি হয়েছে ভোপালের সরকারি স্কুলে।

শুধুমাত্র হোমওয়ার্ক করেনি বলে এমন শাস্তি? স্কুল শিক্ষকের অমানবিক আচরণের খবর সামনে আসায় প্রতিবাদ শুরু হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়াতেও। পুলিশ জানিয়েছে, গত সোমবার ওই শিক্ষককে গ্রেফতার করা হয়েছে।

ঘটনা পাঁচ মাস আগে জানুয়ারি মাসের। ছাত্রীর বাবার লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে ২২ জানুয়ারি ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়। সেই সময় তাঁকে গ্রেফতার করলেও জামিনে ছাড়া পেয়ে যান শিক্ষক। সম্প্রতি এই খবর সোশ্যাল মিডিয়াপ হাত ধরে নেট দুনিয়ায় ভাইরাল হয়ে যায়। ছেলেমেয়েরা স্কুলে নিরাপদ কি না সেই অভিযোগ তুলে সরব হন অভিভাবকরাও।

ঝাবুয়া জেলার ওই সরকারি স্কুলের বিজ্ঞানের শিক্ষক মনোজ কুমার বর্মা। পড়া না পারলে ছাত্রছাত্রীদের উপর তিনি যথেষ্ট কড়া, এমন অভিযোগ আগেই ছিল। নির্যাতিতা ছাত্রীর বাবা শিবপ্রতাপ সিংয়ের দাবি, তাঁর মেয়ে অসুস্থ ছিল। তাই হোমওয়ার্ক শেষ করে নিয়ে যেতে পারেনি। তারই শাস্তি স্বরূপ শিক্ষক মেয়ের সহপাঠীদের দিয়ে জোর করে তাকে চড় মারায়। এবং একদিন নয়, ক্লাসের অন্তত ১৪ জন পড়ুয়াকে বলা হয়, টানা ৬দিন ধরে রোজ ক্লাসে এলেই তাকে চড় মারতে। গুনে গুনে ১৬৮টি চড় মারা হয়েছে তার মেয়েকে। শিবপ্রসাদের কথায়, মেয়ে এখনও ট্রমার মধ্যে রয়েছে। সেই মানসিক চাপ কাটিয়ে উঠতে পারেনি।

ঝাবুয়ার এসপি বিনীত জৈন জানিয়েছেন, ওই শিক্ষককে কঠিন শাস্তি দেওয়ার ব্যবস্থা হচ্ছে। শাসন করা ভালো, কিন্তু ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে হিংসা ছড়ানোর চেষ্টা করেছেন তিনি। এই অপরাধের কোনও ক্ষমা নেই।

Comments are closed.