রাজ্যসভার ভোট চলছে ১০ রাজ্যের ২৪টি আসনে, গুজরাত-রাজস্থান-মধ্যপ্রদশে টানটান লড়াই, নজর মণিপুরেও

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

    দ্য ওয়াল ব্যুরো: ভোট হওয়ার কথা ছিল মার্চ মাসে। কিন্তু করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে অন্য সব কিছুর মতো থমকে গিয়েছিল সংসদের উচ্চ কক্ষের ভোটও। আনলক ওয়ানের মধ্যে শুক্রবার ১০ রাজ্যের ২৪টি রাজ্যসভার আসনে ভোটগ্রহণ হচ্ছে। সকাল ন’টা থেকে শুরু হয়েছে ভোটগ্রহণ।

    তবে নজর থাকছে গুজরাত ও রাজস্থানের আসনগুলিতে। কারণ দুই রাজ্যেই কংগ্রেসের বিধায়কদের দলত্যাগ, রিসর্টে সরিয়ে রাখার মতো ঘটনা ঘটেছে এই সময়ের মধ্যে। টানটান উত্তেজনা চলেছে লকডাউনের মধ্যে। ফলে সেদিকে রাজনৈতিক মহলের নজর থাকবে।

    প্রসঙ্গত গত বছরও গুজরাতের কয়েকটি রাজ্যসভার আসন ফাঁকা হয়েছিল। বিধায়ক সংখ্যার নিরিখে একটি আসন নিশ্চিত ছিল কংগ্রেসের। সাবেকদল সেখানে প্রার্থী করেছিল সনিয়া গান্ধীর দীর্ঘদিনের বিশ্বস্ত সৈনিক আহমেদ পটেলকে। তা নিয়েও কম উত্তেজনা হয়নি। বিধায়ক ভাঙানোর অভিযোগ তোলে কংগ্রেস। যদিও শেষপর্যন্ত পটেলই জিতেছিলেন।

    রাজ্যসভার ২৪৫ টি আসনের মধ্যে এনডিএর ৯১টি, ইউপিএর ৬১টি আসন রয়েছে। অন্য দলের মিলে রয়েছে আরও ৬৮টি আসন। আজকের নির্বাচনে বেশ কিছু ওজনদার রাজনৈতিক নেতার ভাগ্য নির্ধারণ হবে। তাঁদের মধ্যে অন্যতম গুজরাতের শক্তি সিং গোহিল, ভারত সিং সোলাঙ্কি, মধ্যপ্রদেশের জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া এবং দিগ্বিজয় সিং এবং রাজস্থানের কেসি বেণুগোপাল।

    সবচেয়ে জটিল অঙ্ক গুজরাতে। সেখানে গত মার্চ থেকে ৮ জন বিধায়ক কংগ্রেস দল ছেড়েছেন। ওই রাজ্যে ৪ টি আসনের জন্য বিজেপি ৩ জন প্রার্থীর দিয়েছে। অন্যদিকে কংগ্রেস লড়ছে দুটি আসনে। বিজেপির ৩ প্রার্থী হলেন অভয় ভরদ্বাজ, রামিলাবেন বারা এবং নরহরি আমিন। বিপরীতে কংগ্রেসের ২ প্রার্থী হলেন শক্তিসিং গোহিল এবং ভারত সিং সোলাঙ্কি। গুজরাতে জয় পেতে একজন প্রার্থীর ৩৪ টি ভোটের প্রয়োজন। বিধায়কদের দলবলের পর সমীকরণ কী দাঁড়ায়নতুন করে ফ্লোরে কতটা ক্রস ভোটিং হয় সেদিকে নজর থাকছে রাজনৈতিক মহলের।

    একইসঙ্গে মধ্যপ্রদেশের আসন নিয়েও আগ্রহ রয়েছে। সেখানে কমলনাথ সরকারের পতন, জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া-সহ ২২ বিধায়কের দলত্যাগ হিন্দি বলয়ের এই রাজ্যের সমীকরণকেও জটিল করে তুলেছে। একইসঙ্গে ভাঙাগড়ার খেলা চলেছে রাজস্থানেও। কংগ্রেস শাসিত এই রাজ্যে গত কয়েকদিন ধরেই টানটান উত্তেজনা। ভোটের নিরিখে বিজেপির একটি আসন নিশ্চিত হলেও অতিরিক্ত আসনে প্রার্থী দিয়েছে গেরুয়া শিবির। ফলে সেখানেও ক্রস ভোটের সম্ভাবনা থাকছে।

    তা ছাড়াও মণিপুর, মেঘালয়, মিজোরাম, অরুণাচলে একটি করে আসনে ভোট হচ্ছে। গত দু’দিনে মণিপুরের রাজনৈতিক অবস্থার বড়সড় বদল হয়েছে। সংকটে বিজেপির সরকার। এখন দেখার রাজ্যসভার একটি আসন কাদের দিকে যায়।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More