মঙ্গলবার, অক্টোবর ১৫

চরমে গোষ্ঠীকোন্দল, ভোটের মুখে দল ছাড়লেন হরিয়ানার প্রাক্তন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি

দ্য ওয়াল ব্যুরো: আর পনেরো দিনও বাকি নেই হরিয়ানার ভোটের। কিন্তু বিজেপি-র বিরুদ্ধে লড়াই তো দূরের কথা, গোষ্ঠীকোন্দল নিয়েই এখন মাথায় হাত সর্বভারতীয় কংগ্রেসের। শনিবার কংগ্রেসের প্রাথমিক সদস্যপদ থেকে ইস্তফা দিতে চেয়ে সভানেত্রী সনিয়া গান্ধীকে চার পাতার চিঠি পাঠালেন অশোক তানওয়ার। গতমাসেই তাঁকে প্রদেশ সভাপতির পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়। আর এ দিন তিনি কার্যত বিস্ফোরক চিঠি লিখলেন সনিয়াকে।

গোটা চিঠিটা টুইট করেছেন তিনি। তাতে তানওয়ার লিখেছেন, “কংগ্রেসের ভিতরে এখন ষড়যন্ত্র চলছে, কী ভাবে দলকে অস্তিত্ব সংকটে ফেলা যায়।” কংগ্রেস সভানেত্রীকে তিনি এও লিখেছেন, “আমি আমার রক্ত-ঘাম ঝরিয়ে দল করেছি। যদি কেউ রাহুল গান্ধীর পছন্দের হন তাহলে কিন্তু কংগ্রেসের ভিতরে তিনিই এখন প্রধান শত্রু হিসেবে চিহ্নিত হচ্ছেন।”

রাহুল গান্ধীই প্রদেশ সভাপতির দায়িত্ব দিয়েছিলেন এই তরুণ কংগ্রেস নেতাকে। সেই সময় থেকেই দ্বন্দ্ব ছিল। ভুপিন্দর সিং হুডার মতো বর্ষীয়ান নেতারা অনেকেই তানওয়ারের নেতৃত্বকে মানতে চাননি। লোকসভা ভোটেও হরিয়ানায় মুখ থুবড়ে পড়ে কংগ্রেস। সর্বভারতীয় সভাপতির পদ থেকে সরে দাঁড়ান রাহুল। ফলে রাজ্য রাজনীতিতে চাপে পড়ে যান তানওয়ার।

সনিয়াকে লেখা চিঠিতে সদ্য প্রদেশ সভাপতির চেয়ার হারানো তানওয়ার অভিযোগ করেছেন, এই বিধানসভা ভোটে টিকিট বণ্টনের ক্ষেত্রেও ব্যাপক দুর্নীতি হয়েছে। তাঁর অভিযোগ, হুডার নেতৃত্বে টাকার বিনিময়ে টিকিট বিতরণ হয়েছে। চিঠিতে তানওয়ার আরও লিখেছেন, এখন হরিয়ানা কংগ্রেসের ভিতর চারটি গোষ্ঠী। তাঁর প্রশ্ন, “নিজেরাই নিজেদের বিরুদ্ধে লড়ে সব শক্তি নষ্ট করে ফেলছে। তাহলে বিজেপি-র বিরুদ্ধে লড়াই করবে কী ভাবে?” সব মিলিয়ে তানওয়ারের এই বিস্ফোরক চিঠিতে ভোটের মুখে বিপাকে হরিয়ানা কংগ্রেস।

Comments are closed.