বৃহস্পতিবার, জুন ২৭

ভোররাতে জম্মু-দিল্লি দুরন্ত এক্সপ্রেসে ডাকাতি, প্রশ্নের মুখে রেলের সুরক্ষা

দ্য ওয়াল ব্যুরো : ভোরের আলো তখনও ফোটেনি। জম্মু-দিল্লি দুরন্ত এক্সপ্রেসের যাত্রীরা ঘুমে মগ্ন। হঠাৎ করেই দুটি এসি কামরায় শোরগোল শুরু হলো। হাতে ধারালো ছুড়ি নিয়ে বেশ কিছু দুষ্কৃতী তখন দুটি কোচে চালাচ্ছে অবাধে লুঠ। ১০ থেকে ১৫ মিনিটে কাজ সেরে নেমে পড়ল দুষ্কৃতীরা। এই ডাকাতির ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে ট্রেনের যাত্রীদের মধ্যে।

ঘটনাটি বৃহস্পতিবার ভোরের। ট্রেনেরই এক যাত্রী এই ডাকাতির পর রেলের অনলাইন কমপ্লেন পোর্টালে গোটা ঘটনার বিবরণ দিয়েছেন। তাঁর বক্তব্য অনুযায়ী, ঘড়ির কাঁটায় তখন সাড়ে তিনটে বাজে। জম্মু-দিল্লি দুরন্ত এক্সপ্রেস দাঁড়িয়েছে বাদলি স্টেশনে। হঠাৎ করেই সাত থেকে দশজনের দুষ্কৃতীর একটি দল বি৩ ও বি৭ কোচে উঠে পড়ে। তারা ধারালো ছুড়ির ভয় দেখিয়ে যাত্রীদের মোবাইল ফোন, টাকা-পয়সা, গয়না সব দিয়ে দিতে বলে। ১০-১৫ মিনিটের মধ্যেই দুই কোচে লুঠ চালিয়ে নেমে পালিয়ে যায় তারা।

আরও পড়ুন ‘ভ্যাম্পায়ার ফেসিয়াল!’ নিজের রক্ত দিয়ে তৈরি ময়শ্চারাইজার মাখেন ভিক্টোরিয়া বেকহ্যাম, দাম কত জানেন?

তারপরেই স্টেশনে নেমে আরপিএফের কাছে অভিযোগ জানান যাত্রীরা। দুরন্ত এক্সপ্রেসের এসি কোচ হওয়া সত্ত্বেও কোনও পুলিশ কেন কামরায় ছিল না, তা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন যাত্রীরা। অভিযোগ দায়ের করা হয় বাদলি স্টেশনের স্টেশন মাস্টারের কাছেও।

নর্দার্ন রেলের তরফে জানানো হয়েছে, তাদের কাছে অভিযোগ জমা পড়েছে। তদন্তের জন্য একটা বিশেষ দল গঠন করা হয়েছে। স্টেশনের সিসিটিভি ফুটেজ দেখে দুষ্কৃতীদের চিহ্নিত করার চেষ্টা করা হচ্ছে। শিগগির দুষ্কৃতীরা ধরা পড়বে বলে আশ্বাস দেওয়া হয়েছে রেলের তরফে।

The Wall-এর ফেসবুক পেজ লাইক করতে ক্লিক করুন 

Comments are closed.