শনিবার, মার্চ ২৩

পুলওয়ামার পর সোপোরের ওয়ারপোরা গ্রাম, সেনার গুলিতে খতম জঙ্গি, এলাকায় বন্ধ ইন্টারনেট পরিষেবা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: পুলওয়ামার পিংলান গ্রামের পর এ বার বারামুলা জেলার সোপোরে জঙ্গি দমন অভিযানে নামল সেনা। শুক্রবার ভোর রাত থেকেই শুরু হয়েছে গুলির লড়াই। সোপোরের ওয়ারপোরা গ্রামে জঙ্গিদের গোপন ঘাঁটি রয়েছে খবর পেয়ে এ দিন সকাল থেকে শুরু হয় তল্লাশি অভিযান। সেনার গুলিতে এক জঙ্গি নিকেশ হয়েছে বলে খবর।

সেনা সূত্রে খবর, ওয়ারপোরা গ্রামে ছোট ছোট দলে আত্মগোপন করেছিল জঙ্গিরা। এ দিন সকালে গ্রাম ঘিরে ফেললেই গুলি চালাতে শুরু করে তারা। পাল্টা জবাব দেয় সেনাও। গুলির লড়াই এখনও চলছে বলে খবর।

পুলিশ জানিয়েছে, ওয়ারপোরা ও আশপাশের কয়েকটি গ্রামে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে। বন্ধ রাখা হয়েছে ইন্টারনেট পরিষেবা। নিয়ন্ত্রিত হয়েছে যান চলাচল। চলছে পুলিশি টহলদারি।

১৪ ফেব্রুয়ারি পুলওয়ামায়  আত্মঘাতী গাড়িবোমা বিস্ফোরণের পরদিনই পিংলান গ্রামে এনকাউন্টার চালায় ভারতীয় সেনার ৫৫ রাষ্ট্রীয় রাইফেলস। শুরু হয় সেনা-জঙ্গি গুলির লড়াই। জঙ্গির গুলিতে প্রাণ যায় মেজর-সহ পাঁচ জওয়ানের। দু’পক্ষের গুলির লড়াইয়ের মাঝে পড়ে মৃত্যু হয় দুই স্থানীয়েরও। সেনার গুলিতে খতম হয় আইইডি হামলার মূল চক্রী কামরান ওরফে আবদুল রশিদ গাজি। উড়িয়ে দেওয়া হয় পিংলানে জইশের গোপন ঘাঁটি।

কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সূত্রে খবর, পুলওয়ামার আত্মঘাতী হামলার রেশ মিলিয়ে যাওয়ার আগেই ফের বড়সড় ফিদায়েঁ হামলা চালাতে পারে জইশ জঙ্গিরা। জিহাদিদের সাহায্যকারী ছোট ছোট দলে উপত্যকায় ছড়িয়ে রয়েছে লিঙ্কম্যানেরা। জঙ্গিদের ভাষায় যাদের বলে তানজিম। এদের হাত ধরেই বার্তা ছড়িয়ে পড়ছে উপত্যকায় জঙ্গিদের গোপন ডেরায়। গোয়েন্দাদের রিপোর্ট অনুযায়ী, সোপোর, কুপওয়ারা-সহ উপত্যকার বিভিন্ন সেনা শিবিরগুলিতে ফের অতর্কিতে হামলা চালাতে পারে জইশ ফিদায়েঁ জঙ্গিরা।

The Wall-এর ফেসবুক পেজ লাইক করতে ক্লিক করুন 

Shares

Comments are closed.