শুক্রবার, মে ২৪

ফের অশান্ত পুলওয়ামা, সেনার সঙ্গে গুলি বিনিময়ে খতম দুই জঙ্গি, নিহত জওয়ান

দ্য ওয়াল ব্যুরো: আবারও পুলওয়ামা। ১৪ ফেব্রুয়ারি সিআরপিএফ কনভয়ে আত্মঘাতী জইশ হামলার পর থেকে কড়া নিরাপত্তায় মুড়ে ফেলা হয়েছে পুলওয়ামা ও লাগোয়া এলাকাকে। জঙ্গি নিধন অভিযানে বারে বারেই তৎপর হয়েছে জম্মু-কাশ্মীর পুলিশ থেকে সেনাবাহিনী। গত মাসেই পুলওয়ামার লসিপোরায় চার লস্কর জঙ্গিকে খতম করেছে সেনা। মাঝে কিছুদিন শান্ত থাকলেও ফের জঙ্গি উপদ্রব শুরু হয়েছে পুলওয়ামার নানা জায়গায়। বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই দফায়-দফায় সেনা-জঙ্গি গুলির লড়াইতে উত্তপ্ত উপত্যকা।

সেনা সূত্রে খবর, পুলওয়ামা হামলার পর থেকেই ওই জেলার বিভিন্ন প্রান্তে জঙ্গি দমন অভিযান চালাচ্ছে সেনা। বুধবার রাতেই গোপন সূত্রে খবর আসে কিছু জঙ্গি আত্মগোপন করে আছে পুলওয়ামায়। ভোররাতেই অভিযানে নামে সিআরপিএফ, রাষ্ট্রীয় রাইফেলস ও সেনার স্পেশাল অপারেশনস গ্রুপ। গোটা এলাকা ঘিরে ফেলে জওয়ানরা যখন তল্লাশি অভিযান চালাচ্ছিলেন, সে সময় তাঁদের লক্ষ্য করে গুলি চালাতে শুরু করে জঙ্গিরা। শুরু হয়ে যায় দু’পক্ষের গুলির লড়াই। সেই সংঘর্ষেই দুই জঙ্গি খতম হয়েছে বলে খবর।

গুলির লড়াইয়ে প্রাণ গেছে এক সেনা জওয়ানের। জখম এক গ্রামবাসী-সহ আরও দুই জওয়ান। গুলির লড়াই এখনও থামেনি বলে সেনা সূত্রে খবর। নিরাপত্তার জন্য গোটা এলাকায় ইন্টারনেট যোগাযোগ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

১৪ ফেব্রুয়ারি ভালোবাসার দিনেই রক্তাক্ত হয়েছিল উপত্যকা। ৪০ সিআরপিএফ জওয়ানের রক্তে ভিজেছিল পুলওয়ামা। ঘটনার দায় স্বীকার করেছিল পাক মদত পুষ্ট জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মহম্মদ। এর পরে ঘাত-প্রত্যাঘাত ঘিরে এখনও অশান্ত নিয়ন্ত্রণ রেখা ও তার সংলগ্ন একাধিক এলাকা। বারে বারেই সংঘর্ষ বিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করে জম্মু, রাজৌরি, পুঞ্চের ৫৫টি ভারতীয় চৌকিতে গুলি বর্ষণ করে চলেছে পাক সেনারা।

গত মাসেই পুলওয়ামাতে জঙ্গিদের গ্রেনেড হামলায় এক জওয়ান আহত হন।  শোপিয়ান, কুপওয়ারা, বদগাম জম্মু-কাশ্মীরের একের পর এক জায়গায় অভিযান চালিয়ে দুই জইশ-সহ ৬ জঙ্গিকেও নিকেশ করেছে সেনা।

Shares

Comments are closed.