শুক্রবার, জানুয়ারি ১৮

সিবিআই বনাম সিবিআই: অলোক বর্মার অপসারণের পর আস্থানাকে নিয়ে দিল্লি হাইকোর্টের রায়ের দিকে তাকিয়ে সবাই

দ্য ওয়াল ব্যুরো : বৃহস্পতিবারই সিবিআই প্রধানের পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে অলোক বর্মাকে। যিনি তাঁর বিরুদ্ধে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ করেছিলেন, সিবিআইয়ের সেই স্পেশ্যাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানাও এখন আছেন বাধ্যতামূলক ছুটিতে। অভিযোগ থেকে অব্যাহতি চেয়ে তিনি আবেদন করেছিলেন দিল্লি হাইকোর্টে। এ সম্পর্কে হাইকোর্ট রায় দেবে শুক্রবার।

হায়দরাবাদের ব্যবসায়ী সতীশ বাবু সানা অভিযোগ করেন, মাংস রফতানির একটি মামলা থেকে বাঁচার জন্য তিনি আস্থানাকে ঘুষ দিয়েছিলেন। গত ২০ডিসেম্বর দিল্লি হাইকোর্টের বিচারপতি নাজমি ওয়াজিরি এই মামলার রায়দান স্থগিত রাখেন। মামলায় আবেদনকারীদের মধ্যে ছিলেন আস্থানা, সিবিআইয়ের প্রাক্তন ডিরেক্টর অলোক বর্মা, ডেপুটি সুপারিনটেন্ডেন্ট দেবেন্দর কুমার এবং জয়েন্ট ডিরেক্টর এ কে শর্মা। সেই সঙ্গে ছিলেন সিবিআইয়ের কৌঁসুলি। আস্থানা, কুমার এবং দালাল বলে অভিযুক্ত মনোজ প্রসাদ আবেদন করেন, তাঁদের বিরুদ্ধে মামলা খারিজ করে দেওয়া হোক। আস্থানা বলেন, উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে তাঁর বিরুদ্ধে মামলা সাজিয়েছেন অলোক বর্মা।

আস্থানা গুজরাত ক্যাডারের আইপিএস অফিসার। তাঁর সঙ্গে মোদীর ভালো সম্পর্ক ছিল বলে জানা যায়। তাঁকে যখন সিবিআইয়ের স্পেশ্যাল ডিরেক্টরের পদে নিয়োগ করা হচ্ছে, তখনই আপত্তি জানিয়েছিলেন বর্মা। তাঁর অভিযোগ ছিল, আস্থানা দুর্নীতিগ্রস্ত।

গত আগস্টে আস্থানা মন্ত্রিসভার সচিবের কাছে অভিযোগ করেন, তাঁর বস বর্মা ২ কোটি টাকা ঘুষ খেয়েছেন। গত ১৫ অক্টোবর সিবিআই আস্থানার বিরুদ্ধে মামলা করে। আস্থানার কৌঁসুলি অমরেন্দ্র শরণ হাইকোর্টে বলেন, তাঁর মক্কেলের বিরুদ্ধে মামলা করার আগে দুর্নীতি দমন আইনের ১৭ এ ধারায় অনুমোদন নেওয়া উচিত ছিল। তা এক্ষেত্রে নেওয়া হয়নি। তাছাড়া কেন্দ্রীয় ভিজিলেন্স কমিশন বলেছিল, আস্থানার বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া যাবে না। তাও তাঁর বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে।

সিবিআইয়ের কৌঁসুলি বিক্রমজিৎ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, এই মামলার ক্ষেত্রে দুর্নীতি দমন আইনের ১৭ এ ধারায় অনুমতি নেওয়ার প্রয়োজন নেই।

সিবিআই প্রধান হিসাবে গত বুধ ও বৃহস্পতিবার বর্মা মোট দু’ডজন অফিসারকে ট্রান্সফার করেছেন। বুধবার তিনি কয়েকজনের বদলির আদেশ নাকচ করে দেন। যে অফিসাররা আস্থানার বিরুদ্ধে তদন্ত করছিলেন, মূলত তাঁদেরই বদলি করা হয়েছিল। বর্মা তাঁদের ফিরিয়ে এনেছেন। তিনি নিশ্চিত করেছেন যাতে জয়েন্ট ডিরেক্টর ভি মুরুগেসান এবং ডেপুটি ডিরেক্টর তরুণ গাউবা আগামী দিনে আস্থানার বিরুদ্ধে তদন্ত চালিয়ে যেতে পারেন। কিন্তু মূল তদন্তকারী অফিসারকে তিনি সরিয়ে দিয়েছেন। তাঁর জায়গায় এনেছেন মোহিত গুপ্তাকে। তিনি আগে পুলিশ সুপার ছিলেন।

Shares

Comments are closed.