শনিবার, মার্চ ২৩

#Breaking: কলকাতা শহরে এ বার ‘গুলাব গ্যাং’, গতিধারায় দেড় লক্ষ টাকা করে পাবেন মহিলারা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: গোলাপি অটো আগেই দেখেছিল শহর। যদিও সে প্রকল্প তেমন ভাবে চলেনি। এ বার দেখবে গোলাপি ট্যাক্সি। আর এই উদ্যোগ খোদ সরকারেরই। বুধবার নবান্ন-লাগোয়া একটি বাস টার্মিনাসের উদ্বোধন করতে গিয়ে এই প্রকল্পের কথা ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। জানান, গতিধারা প্রকল্পে এবার মহিলাদেরও আলাদা করে সুবিধা দেওয়া হবে।

এত দিন গতিধারা প্রকল্পের আওতায় কেউ গাড়ি চালাতে চাইলে, সরকারের তরফে এক লক্ষ টাকা সাহায্য পাওয়া যেত। কিন্তু এবার নয়া প্রকল্পে, যদি গাড়ির মালিক এবং চালক মহিলা হন, তবে সে সাহায্য হবে দেড় লক্ষ টাকার। ট্যাক্সির রংও হবে আলাদা, গোলাপি রঙের। নারীশক্তিকে সম্মান দিতেই এই রঙের তফাত বলে মনে করছেন অনেকেই।

নীতু গিরি, গতিধারার মহিলা চালক।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, প্রিয়ঙ্কা গান্ধী রাজনীতির আঙিনায় উত্তরপ্রদেশের দায়িত্ব নেওয়ার পরে একটি দল তৈরি করেছেন, যার নাম প্রিয়ঙ্কা সেনা। এবং সেই দলের প্রতিটি সদস্য নারী-পুরুষ নির্বিশেষে গোলাপি পোশাক পরছেন। গোলাপি যে আদতে কেবল ‘মেয়েদের রং’ নয়, এ রং যে শক্তিরও, শৌর্যেরও হতে পারে, তারই প্রতিফলন এই বাহিনীর পোশাকের রং নির্বাচনে পড়েছে।

গুলাব গ্যাং।

এই কারণেই গতিধারা প্রকল্পের আওতায় মহিলাচালিত ট্যাক্সিগুলির রং গোলাপি করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সব ঠিক থাকলে, কয়েক দিনের মধ্যেই ‘গুলাব গ্যাং’ দেখতে পাবে শহরবাসী। হাতে তাদের তলোয়ার নয়, স্টিয়ারিং। কয়েক বছর আগে মুক্তি পাওয়া ‘গুলাব গ্যাং’ সিনেমায় দেখা যায়, উত্তরপ্রদেশের বুন্দেলখণ্ড এলাকার এক গুন্ডা বাহিনীকে জব্দ করার পাশাপাশি নারীশিক্ষা, নারীর ক্ষমতায়ন ও তাঁদের আত্মনির্ভরশীল করে তোলার ভার নিয়েছেন স্থানীয় প্রতিবাদী মহিলা রাজ্জো তথা মাধুরী দীক্ষিত। তাঁরই সেই দলের নাম ছিল গুলাব গ্যাং।

শুনে নিন, কী বলছেন গতিধারার গুলাব গ্যাঙের নতুন সদস্য নীতু গিরি।

গতিধারা প্রকল্পের এই সুবিধা ছাড়াও এ দিন মুখ্যমন্ত্রী সূচনা করেন ৮০টি ইলেকট্রিক বাস, ৫৫টি চার্জিং সেন্টার। নতুন করে ঢেলে সাজার কথা বলেন যাদবপুরের এইট বি বাসস্ট্যান্ড। আসানসোলে সিএনজি বাস চলার ঘোষণা করেন।

Shares

Comments are closed.