শনিবার, মার্চ ২৩

দক্ষিণ কলকাতায় জোড়া দুর্ঘটনা, মৃত ১ মহিলা

দ্য ওয়াল ব্যুরো: বৃহস্পতিবার সকালেই পরপর দু’টি দুর্ঘটনা ঘটেছে দক্ষিণ কলকাতায়। মৃত এক মহিলা। আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন এক বৃদ্ধ।

জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার সকাল ৭টা নাগাদ একটি দুর্ঘটনা ঘটেছে গড়িয়াহাট থানার কাছেই অশ্বিনী দত্ত রোডে। পুলিশ সূত্রে খবর, সরস্বতী হালদার নামের এক মহিলা স্থানীয় একটি মন্দিরের সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। বছর ছত্রিশের ওই মহিলা ছলেন দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার মন্দিরবাজারের বাসিন্দা। আচমকাই তাঁকে এসে ধাক্কা মারে বেপরোয়া গতির একটি গাড়ি। স্থানীয়রাই উদ্ধার করে একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যান মহিলাকে। সেখানেই তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। পুলিশ জানিয়েছে, গাড়ির নম্বর জানা গিয়েছে। কিন্তু ঘাতক গাড়ি বা গাড়ির চালক কারও খোঁজই এখনও পাওয়া যায়নি। পলাতক চালকের খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে গড়িয়াহাট থানার পুলিশ।

অন্যদিকে, বাঘাযতীন এলাকায় বাসে উঠতে গিয়ে পড়ে যান এক বৃদ্ধ। পুলিশ জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার সকালে বাস স্ট্যান্ড থেকেই বাসে উঠতে গিয়েছিলেন ওই বৃদ্ধ। বাস এসে নির্দিষ্ট জায়গাতেই দাঁড়ায়। কিন্তু বৃদ্ধ বাসে ঠিক ভাবে ওঠার আগে চালক গাড়ির গতি বাড়িয়ে দেন। বাসের সিঁড়ি থেকে ছিটকে পড়ে যান বছর সাতাত্তরের ওই ইতিহাসের অধ্যাপক। আর সেই সময়েই বৃদ্ধের বাঁ হাতের উপর দিয়ে চলে যায় বাসের চাকা। আপাতত দক্ষিণ কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন তিনি। বৃদ্ধের বাঁ হাত বাদ দিতে হবে কিনা সে ব্যাপারে সংশয়ে রয়েছেন চিকিৎসকরাও।

বুধবার সন্ধ্যা আটটা নাগাদ আরও একটি দুর্ঘটনা ঘটেছে দক্ষিণ কলকাতার গোলপার্ক এলাকায়। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, বাস থেকে নামবেন বলে সিঁড়িতে দাঁড়িয়ে ছিলেন বছর একুশের এক তরুণী। কিন্তু তিনি নামার আগেই ছেড়ে দেয় বাস। ছিটকে রাস্তায় পড়ে যান তরুণী। বাসের গতি অত্যন্ত বেশি থাকায় রাস্তায় ছিটকে পড়ে মাথায় গুরুতর চোট পান তরুণী। দ্রুত তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যান স্থানীয়রা। সেখানেই তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। পুলিশ জানিয়েছে, ঘাতক বাস এবং পলাতক চালকের খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে তারা।

Shares

Comments are closed.