শনিবার, মার্চ ২৩

কুমারী মেয়েদের নিয়ে অশালীন মন্তব্য, যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকের বিরুদ্ধে তদন্তের নির্দেশ জাতীয় মহিলা কমিশনের

দ্য ওয়াল ব্যুরো : মেয়েদের কুমারীত্ব নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় অশালীন মন্তব্য করেছিলেন। যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপকের করা এই ধরণের মন্তব্যে সমালোচনার ঝড় উঠেছিল সোশ্যাল মিডিয়ায়। সেই অধ্যাপক কনক সরকারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিল জাতীয় মহিলা কমিশন।

জাতীয় মহিলা কমিশনের তরফে পশ্চিমবঙ্গের ডিজিপি-কে এই ঘটনায় তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়েছে। এমনকী তদন্ত করার পর কী ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে, সেটাও জানাতে বলা হয়েছে মহিলা কমিশনের তরফে। সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই তদন্ত শুরু করেছে ডিজিপি’র নেতৃত্বাধীন এক তদন্ত কমিটি।

আরও পড়ুন নিয়মিত শিক্ষক নিয়োগই শুরুর ফুরসৎ পায়নি সরকার, অথচ ইন্টার্নদের ব্যবস্থা হয়ে গেল!

কিন্তু কী বলেছিলেন যাদবপুরের ওই অধ্যাপক কনক সরকার?

কনক সরকার রবিবার দুপুরে ফেসবুক একটি পোস্ট করেন। তিনি সেই পোস্টের ক্যাপশন দিয়েছিলেন ‘ভার্জিন ব্রাইড—হোয়াই নট?’ কনকবাবুর কথায়, এখনও অনেক ছেলে রয়েছেন যাঁরা বোকা। তাঁরা কোনও কুমারী মেয়েকে বিয়ে করার কথা ভাবেন না। এরপরেই কনক সরকারের দাবি, কুমারী মেয়েরা হলো সিলড বোতল বা না খোলা বিস্কুটের প্যাকেটের মতো। তিনি লিখেছেন, সিল খোলা কোল্ড ড্রিঙ্কসের বোতল বা খোলা বিস্কুটের প্যাকেট কখনও কিনবেন?

তবে এখানেই শেষ নয়। কনকবাবু এরপর লিখেছেন, একটি মেয়ে কুমারীত্ব নিয়েই জন্মগ্রহণ করে। আর পরবর্তীকালে সেই কুমারী মেয়েই যখন কারও স্ত্রী হন তখন তিনি দেবদূতের সমান। এটাই নাকি মনে করেন অধিকাংশ ছেলেরা। এমনটাই দাবি করেছেন যাদবপুরের এই অধ্যাপক।

আর কনক সরকারের এই ফেসবুক পোস্টের পরেই সোশ্যাল মিডিয়ায় সমালোচনার ঝড় বয়ে যায়। একজন অধ্যাপক হয়ে তিনি কীভাবে মহিলাদের নিয়ে এরকম মন্তব্য করলেন, তাই নিয়েই সমালোচনা শুরু হয়। এমনকী এই ধরণের মন্তব্য করার জন্য কনকবাবুর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ারও দাবি জানানো হয়। তারপরেই এই সিদ্ধান্ত নেয় জাতীয় মহিলা কমিশন।

The Wall-এর ফেসবুক পেজ লাইক করতে ক্লিক করুন 

Shares

Comments are closed.