মঙ্গলবার, অক্টোবর ২২

বিরাট ক্যাম্পাসে হন্যে হওয়ার দিন শেষ, মেডিক্যাল কলেজ আনছে নতুন অ্যাপ

দ্য ওয়াল ব্যুরো: কলকাতা মেডিক্যাল কলেজে এসে প্রায়ই সমস্যায় পড়েন বাইরে থেকে আসা রোগী ও তাঁদের পরিজনরা। কোথায় কোন বিভাগ রয়েছে, বা কোথায় কীসের পরীক্ষা হয়, তা খুঁজতে গিয়ে হয়রান হতে হয় তাঁদের। এই সমস্যা সূর করার পথ বের করে ফেলেছে মেডিক্যাল কলেজ। আসতে চলেছে অ্যাপ, যার মাধ্যমে মোবাইলেই গোটা মেডিক্যাল কলেজের নকশা দেওয়া থাকবে। ফলে সহজেই যাওয়া যাবে গন্তব্যে।

কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষের বক্তব্য, মেডিক্যাল কলেজে ৪২টি বিল্ডিং রয়েছে। সেখানে প্রায় ৪০টি বিভাগ রয়েছে। এই গুগল ম্যাপযুক্ত অ্যাপের মধ্যে গন্তব্য করা হয়েছে ৫০টি। বিভিন্ন বিভাগ ছাড়াও সেন্ট্রাল ল্যাব, এক্স-রে রুম, সিটি স্ক্যান রুম, কেমো রুম, অ্যাকাউন্টস বিভাগ, সুপারের অফিস, এটিএম ওয়াটার, রিপোর্ট জমা দেওয়ার রুম প্রভৃতি রয়েছে। এই গন্তব্যগুলোই দেখা যাব এই অ্যাপে। এতদিন কাগজ নিয়ে ছুটোছুটি করতে হতো রোগী ও তাঁদের পরিজনদের। নির্দিষ্ট বিভাগ খুঁজতে হিমশিম খেতে হতো। এ বার তার অবসান হবে। ফলে হয়রানি কম হবে। কাজের ক্ষেত্রেও সুবিধা হবে।

কিন্তু কীভাবে কাজ করবে এই অ্যাপ? সেই পদ্ধতিও বলে দেওয়া হয়েছে।

জানানো হয়েছে, অ্যান্ড্রয়েড মোবাইলে কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ অ্যাপ লিখলে সেই মোবাইল নম্বরে একটা ওটিপি আসবে। সেই ওটিপি দিলে অ্যাপটি ডাউনলোড হবে। তারপর অ্যাপ খুলে তাতে ডেস্টিনেশন বা গন্তব্য লিখলে তীরচিহ্নের সাহায্য কোন বিল্ডিংয়ের কোন তলায় সেই গন্তব্য, তা নির্দেশ করা হবে। ফলে তা দেখে সহজেই সেখানে পৌঁছে যাওয়া সম্ভব হবে।

মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, শুধুমাত্র গন্তব্য নয়, এই অ্যাপের সাহায্যে দেখা যাবে ডাক্তারের লিস্টও। কবে আউটডোরে কোন ডাক্তার বসবেন, বা কোন বিল্ডিংয়ের কোন ফ্লোরে কী কী বিভাগ রয়েছে, তাও দেখা যাবে এই অ্যাপে। এ ছাড়াও মেডিক্যাল কলেজের ব্লাড ব্যাঙ্কে কোন গ্রুপের রক্ত কতটা আছে, ইমারজেন্সির নম্বর, পুলিশের নম্বর প্রভৃতি দেওয়া থাকবে সেখানে। এ ছাড়াও কোনও রোগীর পরিবার যদি কোনও সাজেশন দিতে চান, সেটাও দেওয়া যাবে এই অ্যাপের মাধ্যমে।

মেডিক্যাল কলেজের সুপার ইন্দ্রনীল বিশ্বাস বলেন, “আপনি যে জায়গায় দাঁড়িয়ে আছেন, সেখান থেকে আপনার গন্তব্য ওয়ার্ড, বিভাগ, বিল্ডিং বা নির্দিষ্ট ঘরে পৌঁছতে পথ দেখাবে এই অ্যাপ। গুগল ম্যাপের সাহায্যে তীরচিহ্ন দিয়ে গন্তব্যে পৌঁছে দেবে এই অ্যাপ। এমন উদ্যোগ এই রাজ্যে এই প্রথম। আমরা কাজ শেষ করে এনেছি। ১৫ অগস্ট কিংবা এই মাসের শেষ এই অ্যাপ চালু করার চেষ্টা করা হচ্ছে।”

Comments are closed.