মঙ্গলবার, অক্টোবর ১৫

#Breaking: রাজীব কুমারের খোঁজ নেই, ফোন বন্ধ, এখনও যাননি সিবিআই দফতরে

দ্য ওয়াল ব্যুরো : শুক্রবার কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারের উপর থেকে রক্ষাকবচ তুলে নেওয়ার পরেই সিবিআই আধিকারিকরা তাঁর বাড়ি গিয়ে নোটিস দিয়ে এসেছিলেন। শনিবার সকাল ১০টায় সিবিআই দফতরে হাজিরা দিতে বলা হয়েছিল তাঁকে। কিন্তু এখনও সিবিআই দফতরে জাননি রাজীব কুমার। তাঁর ফোনও বন্ধ রয়েছে। প্রাক্তন কমিশনার কোথায় রয়েছেন, সেই ব্যাপারে কোনও খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না।

শনিবারই কলকাতা পুলিশের তরফে জানানো হয়েছিল, ছুটিতে রয়েছেন রাজীব কুমার। কিন্তু তিনি কোথায় রয়েছেন, বা কোথাও গিয়েছেন কিনা, সে ব্যাপারে কোনও খবর পাওয়া যায়নি। এমনকী তাঁর ফোনও বন্ধ রয়েছে বলে জানা গিয়েছে। ছুটিতে থাকায় ভবানীভবনে না গিয়ে ৩৪ পার্ক স্ট্রিটে তাঁর বাড়িতে গিয়ে নোটিস দিয়ে আসেন সিবিআই আধিকারিকরা।

শনিবার উচ্চ আদালত জানায়, রাজীব কুমার কোনও স্পেশাল ট্রিটমেন্ট পেতে পারেন না। তাঁর ক্ষমতা ব্যবহার করে তিনি তদন্তও এড়িয়ে যেতে পারেন না। সিবিআই বা তদন্ত এজেন্সি ডাকলে তাঁকে যেতেই হবে। তদন্তেও সাহায্য করতে হবে। এমনকী বিচারপতি মধুমতী মিত্র এও পরিষ্কার জানিয়ে দেন, সিবিআই চাইলে তদন্তের স্বার্থে রাজীব কুমারকে গ্রেফতারও করতে পারে।

মামলার রায় ঘোষণা হতেই সিবিআই আধিকারিকরা বৈঠকে বসেন নিজাম প্যালেসে। তার পরই বিকেল ৫টা বাজার আগেই রাজীব কুমারকে নোটিস দিতে তাঁর বাড়িতে চলে যায় সিবিআই। শনিবার সকাল দশটায় সিজিও কমপ্লেক্সে হাজিরা দিতে বলা হয় তাঁকে। আইপিএস কোয়ার্টারে ঢোকার এবং বেরনোর দরজায় মোতায়েন করা হয় বিরাট সংখ্যার পুলিশ। সিবিআই আধিকারিকরা রাজীবের বাড়িতে ঢোকার মিনিট পনেরোর মধ্যেই শেক্সপিয়র সরণি থানা এবং পার্কস্ট্রিট থানার আধিকারিকরা পৌঁছে যান ৩৪ নম্বর পার্ক স্ট্রিটে। ঠিক পাঁচটা তেরো মিনিটে সিবিআই টিম বেরিয়ে যায় রাজীবের কোয়ার্টার থেকে।

সিবিআই সূত্রে খবর, রাজীব কুমারের এই খোঁজ না পাওয়া তাঁর বিপক্ষেও যেতে পারে। হাইকোর্ট জানিয়েছে, তদন্তে সহযোগিতা করতে হবে রাজীবকে। তা না হলে তাঁকে গ্রেফতারও করতে পারে সিবিআই। কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার নোটিস পাঠানোর পরেও প্রাক্তন কমিশনার যদি হাজিরা না দেন, তাহলে তদন্তে অসহযোগিতার প্রসঙ্গ তুলে রাজীব কুমারকে গ্রেফতার করার ক্ষেত্রে পদক্ষেপ নিতে পারে সিবিআই। এখন দেখার শনিবার আদৌ রাজীব কুমার সিবিআই দফতরে হাজিরা দেন কিনা। আর যদি না দেন, তাহলে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার পরবর্তী পদক্ষেপ কী হয় সেটাও দেখার।

Comments are closed.