চলচ্চিত্র উৎসবে উপেক্ষিত মৃণাল সেন

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

সুজাতা কুণ্ডু

পরিচালক মৃণাল সেন গত হয়েছেন ৩০ ডিসেম্বর ২০১৮। তাঁর মৃত্যুর পর এটাই প্রথম কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব। এ বছর মৃণাল সেনের বেশ কয়েকটা ছবি থাকবে উৎসবে এমনটাই প্রত্যাশিত ছিল। কিন্তু ছবি ছিল মাত্র একটি ‘ভুবন সোম’। হোমেজ সেকশনে। একটি মাত্র শো ছিল ১৩ তারিখ সন্ধ্যা ছ’টায় চলচ্চিত্র শতবর্ষ ভবনে। কোনও এক অজ্ঞাত কারণবশতঃ ‘ভুবন সোম’–এর পরিবর্তে দেখানো হয় India vs England ছবিটি। এইরকম হোমেজ সেকশন করার সত্যিই কি কোনও অর্থ আছে? মৃণাল সেনের অন্য কোনও ছবি না থাকলে ডিভিডি জোগাড় করেও তো চালানো যেত।

ফিল্ম ফেস্টিভালে ছবি পাল্টে যাওয়া এমন কিছু নতুন ঘটনা নয়। নিউ এম্পায়ারে দর্শক টিকিট কেটে হলে ঢুকে জানতে পেরেছে ‘System Crasher’ ছবির বদলে দেখানো হবে Instinct. এই একই হলে ১১ নভেম্বর বিকেল তিনটের নির্ধারিত ছবির বদলে কোনও ছবিই দেখানো হয়নি। বস্তুত ওই শো–টাই হয়নি। দেশের ‘কালচারাল ক্যাপিটল’ কলকাতায় মৃণাল সেন এভাবে উপেক্ষিত হলেন বলেই এই প্রসঙ্গের অবতারণা।

পঞ্চম দিনে অনেক ছবি, অনেক ধরনের ছবি, অনেক ভিড় সবই ছিল। তার মধ্যে শুধু একটি ছবির উল্লেখ করা যাক। ছবির নাম ‘Sorry We Mised You’. এ ছবি বিলেতের গল্প বলে। বাঙালির তথা ভারতবাসীর বহু আকাঙ্খার বিলেত– ইউনাইটেড কিংডোম। এ গল্প রিকি টার্নার, তার স্ত্রী অ্যাবি, পুত্র সেব ও কন্যা লিজা–র। রিকি আমাদের অ্যামাজন বা ফ্লিপকার্ট–এর মতো একটি ডেলিভারি সংস্থার ডেলিভারি ম্যান। তার বাহন একটি ভ্যান।

রিকি’র স্ত্রী অ্যাবি একজন পেশাদার সেবিকা (caregiver)। অ্যাবির একমাত্র সম্পত্তি ও প্রয়োজনীয় গাড়িটি রিকি’র ভ্যান কিনতে গিয়ে বিক্রি করতে হয়। ভ্যানটি এই ছবিতে একটি চরিত্র হয়ে ওঠে, হয়ে ওঠে একটি দুস্থ পরিবারের আঁকড়ে ধরা খড়কুটো।

 

ঋণ, অভাব প্রতিরোধ করার একটি উপায় হল আরও বেশি কাজ করা। আরও বেশি কাজ করতে গিয়ে নিজের সময়, স্ত্রী–সন্তানদের জন্য দেওয়া সময়ে টান পড়ে। এই সময়ের অভাব কীভাবে একটি পরিবারকে শেষ করে দেয় তারই কাহিনী নিয়ে এই ছবি। I, Daniel Blake ছবির প্রস্থান বিন্দুতেই এই ছবির আরম্ভ। দুটি ছবিই সাধারণ মানুষের গল্প বলে যেখানে বাজার অর্থনীতি ভিলেন এবং হিরো হল মানুষের বেঁচে থাকার লড়াই। পরিচালক কেন লোচ তাঁর স্বাভাবসিদ্ধ ভঙ্গিমায় একটি সহজ গল্প সরাসরি ভাবে বলেন। স্বাভাবিক ভাবেই তাঁর কথন ভঙ্গিমায় রাজনৈতিক ভাষ্যটিও আড়ালে থাকে না।

কেন লোচ–এর দক্ষতা নিয়ে নতুন করে কিছু বলার নেই। তার সঙ্গে যুক্ত হয়েছে অনবদ্য অভিনয়, চমৎকার দৃশ্যকল্প, যথাযথ সম্পাদনা এবং অসাধারণ আবহ পরিকল্পনা।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

You might also like

Comments are closed, but trackbacks and pingbacks are open.

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More