বুধবার, মার্চ ২০

নারদ কাণ্ড: ইডি দফতরে জিজ্ঞাসাবাদ সাধন পাণ্ডের মেয়ে শ্রেয়াকে

দ্য ওয়াল ব্যুরো: আগেই নোটিস পাঠিয়েছিল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী স্বংস্থা এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট। কিন্তু তিনি সময় চেয়ে নিয়েছিলেন ক’টা দিন। অবশেষে বৃহস্পতিবার দুপুরে সল্টলেকের সিজিও কমপ্লেক্সে হাজিরা দিতে গেলেন রাজ্যের মন্ত্রী তথা তৃণমূল কংগ্রেসের বর্ষীয়ান নেতা সাধন পান্ডের মেয়ে শ্রেয়া পাণ্ডে।

নারদ কাণ্ডে ইতিমধ্যেই একাধিকবার জেরা হয়েছে কলকাতার প্রাক্তন মেয়র শোভন চতটোপাধ্যায় এবং তাঁর স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায়কে। মাস দেড়েক আগে ঘনঘন দু’বার শোভনের সঙ্গে ইডি দফতরে যান তাঁর ঘনিষ্ঠ বন্ধু বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ও। ইডি সূত্রে খবর, শোভনের ‘শুভাকাঙ্খী’ বৈশাখী ইডি আধিকারিকদের জানিয়েছেন, সাধন পাণ্ডের মেয়ে শ্রেয়া নাকি তদন্তকারী আধিকারিকদের সঙ্গে ‘সেটিং’ করিয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে শোভনের থেকে টাকা নিয়েছিলেন।

আল আমিন মিলি কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের অধ্যাপিকা বৈশাখীর বয়ানের ভিত্তিতেই নোটিস পাঠানো হয় শ্রেয়াকে। ব্যাঙ্ক এবং ইনকাম ট্যাক্স সংক্রান্ত নথি চাওয়া হয় মানিকতলার বিধায়ক-কন্যার থেকে। সমস্ত নথি গুছিয়ে নিয়ে যেতে তদন্তকারীদের থেকে সময় চেয়েছিলেন শ্রেয়া।  শুক্রবার অর্থাৎ ১৮ জানুয়ারি পর্যন্ত সময় চেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু এ দিনই তিনি চলে যান হাজিরা দিতে। বেলা সওয়া একটা নাগাদ ইডি অফিসে ঢোকেন শ্রেয়া। বিকেল চারটে পর্যন্ত পাওয়া খবর অনুযায়ী জেরা চলছে শ্রেয়ার।

প্রসঙ্গত নারদ স্টিং অপারেশনে তৃণমূলের একাধিক নেতা-মন্ত্রীর সঙ্গে টাকা নিতে দেখা গিয়েছিল শোভন চট্টোপাধ্যায়কে। ষোলোর নির্বাচনের কয়েক মাস আগে রাজ্য রাজনীতিতে তোলপাড় ফেলে দিয়েছিল নারদ কাণ্ড। শোভনকে জেরা করে একাধিক তথ্য পান তদন্তকারীরা। সেই সূত্র ধরেই শ্রেয়াকে ডেকে পাঠায় ইডি। এখন দেখার শ্রেয়াকে জেরা করে কোন পথে এগোন তদন্তকারী আধিকারিকরা।

Shares

Comments are closed.