রবিবার, সেপ্টেম্বর ১৫

কর্পোরেশনের গেটে বাম যুবদের হুঙ্কার, এত লোক দেখে অনেকেই বিস্মিত

  • 3K
  •  
  •  
    3K
    Shares

দ্য ওয়াল ব্যুরো: দাবি ছিল কলকাতা কর্পোরেশনের ২৬ হাজার শূন্য পদে কর্মী নিয়োগ করতে হবে। দাবি তুলে বুধবার কলকাতা কর্পোরেশনের সদর দফতর অভিযানের ডাক দিয়েছিল সিপিএমের যুব সংগঠন ডিওয়াইএফআই-এর কলকাতা জেলা কমিটি। আর তাতে বাম যুবরা যে জমায়েত করল, আর মেজাজ দেখাল, তা দেখে বিস্মিত অনেকেই।

গত এক মাস ধরে প্রচার করেছিল ডিওয়াইএফআই। সোশ্যাল মিডিয়ার প্রচারেও জোর দিয়েছিল দীনেশ মজুমদার ভবন। কিন্তু তাতে এত লোক! সংগঠনের নেতাদের কথায় হাজার দশেক লোক হয়েছিল। তা না হলেও চার-পাঁচ হাজার লোক তো বটেই। ডোরিনা ক্রসিং থেকে এলিট সিনেমা পর্যন্ত ঠাসা জমায়েত।

ভোট এসে ঠেকেছে সাত শতাংশে। লোকসভা ভোটে বাংলায় আসন সংখ্যা শূন্য। সেই সিপিএমের গণসংগঠনের একটা জেলা কমিটির ডাকে এত জমায়েত হল কী ভাবে? ডিওয়াইএফআই-এর কলকাতা জেলার সম্পাদক ধ্রুবজ্যোতি চক্রবর্তী বলেন, “চোখের সামনে সবাই দেখছে পদ শূন্য পড়ে রয়েছে। বেকারদের কাছে জ্বলন্ত দাবি। তৃণমূলের কাউন্সিলরদের পেটোয়া ঠিকাদারদের কাছে যাঁরা কাজ করেন, তাঁরাও এসেছিলেন মিছিলে।”

মিছিল পুরসভার গেটের কাছে পৌঁছতেই ব্যারিকেড দিয়ে আটকায় পুলিশ। পুলিশের সঙ্গে সামান্য ধস্তাধস্তিও হয় বাম যুবদের। এরপর পাঁচ জনের একটি প্রতিনিধি দল যায় মেয়রের কাছে স্মারকলিপি দিতে। প্রতিনিধি দলের এক সদস্য বলেন, “আমরা যেতেই মেয়র বলেন, তোমরা এসেছ যখন বোসো। কিন্তু আমি সরকারের কাছে লোক নিয়োগের সুপারিশ পাঠিয়ে দিয়েছি।” সেই সঙ্গে নাকি মেয়র এ-ও বলেছেন, “ডিসেম্বরের মধ্যেই ৯ হাজার কর্মী নিয়োগের প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ হবে। বাকিটা করতে কিছুটা সময় লাগবে।” মেয়রের সঙ্গে কথা বলে যে বাম যুবরা সন্তুষ্ট তা-ও জানিয়েছে নেতৃত্ব।

শেষ কবে ডিওয়াইএফআই বড় আন্দোলন করেছে তা অনেকেই মনে করতে পারছেন না। আগের মতো সেই তেজও নেই। কিন্তু ভোটের ধাক্কা কাটিয়ে সওয়া দু’মাসের মধ্যে বামেরা রাস্তায় নেমেছে, এটাকেই তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছেন অনেকে। পর্যবেক্ষকদের অনেকের মতে, আসলে হাতের কাছের জ্বলন্ত সমস্যাগুলিকে এড়িয়ে বামেরা অনেক বেশি সময় নষ্ট করেছে জাতীয়, আন্তর্জাতিক ইস্যু নিয়ে। যাতে লাভের চেয়ে লোকসান বেশি হয়েছে। সংগঠনের অনেকেই ব্যাপারগুলি খায় না মাথায় দেয় বুঝতে পারেনি।

Comments are closed.